এম.মনছুর আলম, চকরিয়া :
দেশের গ্রামে-গঞ্জে সাধারণ মানুষের নিরাপত্তার অতন্ত্র প্রহরী হলেন (চৌকিদার) গ্রাম পুলিশ। গ্রাম এলাকায় যে কোনো তথ্য বা ঘটনা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর মধ্যে পুলিশের আগেই গ্রাম পুলিশরা অবগত থাকে। গ্রাম পুলিশ হলো পুলিশ বাহিনীর অন্যতম সহযোগী। তাই গ্রামীণ জনপদে যে কোন অপরাধ সংঘটিত ঘটনা দেখা গেলে দ্রুত পুলিশকে অবগত করার প্রথম দায়িত্ব হচ্ছে গ্রাম পুলিশের।
কক্সবাজারের চকরিয়ায় উপজেলার ১৮টি ইউনিয়ের দায়িত্বরত গ্রাম পুলিশ ( চৌকিদার) সাথে মতবিনিময় সভায় উপরোক্ত এ সব কথা বলেন চকরয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো: হাবিবুর রহমান। বুধবার (১৭জুলাই) দুপুর ১২টার দিকে চকরিয়া থানা কম্পাউন্ডে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: হাবিবুর রহমান দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপট নিয়ে গ্রাম পুলিশ নিয়ে এ মতবিনিময় সভা করেন। চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মতবিনিময়কালে গ্রাম পুলিশদের সাথে ইউনিয়নের বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড বিষয় নিয়ে দিকনির্দেশনা প্রদান করেন।
ওসি হাবিবুর রহমান বলেন, উপজেলায় ১৮টি ইউনিয়ন থেকে শুরু করে গ্রামের প্রতিটি এলাকায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক পর্যায়ে রাখতে ও সমাজ পরিবর্তনে উন্নতির লক্ষ্যে গ্রাম পুলিশদের বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ দেয়া হয়। বিশেষ করে এলাকায় মাদক প্রতিরোধ, বাল্যবিবাহ, ইভটিজিং, চুরি, ডাকাতিসহ নানা অপরাধ কর্মকান্ডের বিষয়ে গ্রাম পুলিশকে সব সময় সজাগ থাকার জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়। গ্রামে-গঞ্জে অপরাধীদের আতঙ্কের নাম হতে হবে গ্রাম পুলিশ। তিনি আরও বলেন, সকল গ্রাম পুলিশকে নিষ্ঠা, সততা ও দক্ষতার সাথে কাজ করে প্রত্যেক এলাকায় অপরাধীর বিরুদ্ধে সোচ্চার ভুমিকা রাখতে হবে। এছাড়াও মরণ নেশা ইয়াবা, মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীর সাথে যারা জড়িত রয়েছে তাদের ব্যাপারে খোঁজ নেয়া ও চিহ্নিত করার জন্যও সভায় বলা হয়।
থানা কম্পাউন্ডের ভেতরে গ্রাম পুলিশের সাথে মতবিনিময়কালে এসময় উপস্থিত ছিলেন চকরিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এস এম আতিক উল্লাহ, থানার অপারেশন অফিসার উপপরিদর্শক (এস আই) রুহুল আমিন, এস আই আবদুল বাতেন, এস আই কামরুল ইসলাম, এএসআই জহিরুল ইসলাম, এএসআই পলাশ বড়ুয়াসহ থানার দায়িত্বরত বিভিন্ন স্তরের পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •