আবুল কালাম চট্টগ্রাম :

ঢাকাতে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব ঘটছে আশঙ্কাজনক হারে। এ ডেঙ্গুর আগ্রাসান চট্টগ্রামে হবে না এর কোনো নিশ্চয়তা নেই। নগরে ও হতে পারে তাই সময় থাকতে আমাদের এ ডেঙ্গু রোগ থেকে বাচাতে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে বললেন নগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন ন

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) চসিক মেয়র বিভাগ ও শাখা প্রধানদের বৈঠকে এসব বলেন।

মেয়র বলেন, এখন এডিস মশার বংশবৃদ্ধির জন্য উপযুক্ত সময়। ভারি বর্ষণ কিংবা থেমে থেমে বৃষ্টির কারণে বাড়ির আশপাশ, ফুলের টব, আবর্জনা ফেলার পাত্র, প্লাস্টিকের পাত্র, পরিত্যক্ত টায়ার, প্লাস্টিকের ড্রাম, মাটির পাত্র, বালতি, টিনের কৌটা, ডাবের খোসা, নারিকেলের মালা, ব্যাটারি শেল, পলিথিন, চিপসের প্যাকেট এবং নালা-নর্দমায় জমে থাকা বৃষ্টির পানি এডিস মশার প্রজননের স্থান।

তিনি বলেন, বর্যাকালে কোনো পাত্রেই পানি জমিয়ে রাখা যাবে না। তার ওপর বৃষ্টির পর বাড়ির আশপাশে পানি জমে থাকলে তাও পরিষ্কার করে ফেলতে হবে। জমে থাকা পানি ছাড়া এডিস মশা বংশবৃদ্ধি করতে পারে না।

এসব বিষয়ে বিশেষ নজর দিয়ে চসিক পরিচ্ছন্ন ও স্বাস্থ্য বিভাগকে দায়িত্বশীল ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে বলেন মেয়র।

মশা-মাছির উপদ্রব এবং মশার উৎপত্তি রোধে দীর্ঘমেয়াদি ওষুধ ছিটানোর ক্রাস প্রোগাম, মাইকিং, প্রচারপত্র বিলি, গণমাধ্যমে বিজ্ঞাপন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে সচেতনতামূলক কর্মসূচি গ্রহণ এবং নালা-নর্দমা পরিষ্কারসহ বিভিন্ন কর্মসূচি নেওয়ার নির্দেশ দেন মেয়র।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সামসুদ্দোহা, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়ৃয়া, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমদ, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার সেলিম আকতার চৌধুরী, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার মোহাম্মদ আলী, মেমন মাতৃসদন হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডাক্তার প্রীতি বড়ুয়া, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শফিকুল মান্নান যীশু সহ আরও অনেকে।