হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী :
কক্সবাজারের রামুর ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের বণিকপাড়ার অতি দরিদ্র পরিবারের সন্তান শয়ন মল্লিক (১০)। প্রায় দুই বছর আগে থেকে দুই চোখে ঝাপসা দেখা শুরু করে শিশুটি। গত তিন মাস ধরে আলোকোজ্জ্বল এ পৃথিবীর পুরোটাই তাঁর কাছে অন্ধকার।

এ কারণে শয়ন গত ছয় মাস ধরে কক্সবাজারের সাহিত্যিকা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আর যেতে পারছে না। বঞ্চিত হচ্ছে পড়ালেখার থেকে। শয়ন ওই বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিল।

চট্টগ্রামস্থ পাহাড়তী চক্ষু হাসপাতালের চিকিৎসক চোখ পরীক্ষা করে জানালেন শয়নের রোগের নাম ‘অ্যাডভান্সড রেটিনাল ডিটাচমেন্ট’। চিকিৎসার জন্য লাগবে ৪ লাখ টাকা।

বাবা তপন মল্লিক ও মা অরচনা মল্লিক থেকে ছোটবেলা থেকেই বিচ্ছিন্ন শয়ন নানী সুখেদা ধরের সাথে বেড়ে উঠছেন। নানী সুখেদা ধরের পক্ষে তার ভরণ-পোষণ করাই কষ্টসাধ্য। তাঁর পক্ষে এত টাকা জোগাড় করা কোনোভাবেই সম্ভব নয়।

নিরুপায় শয়ন মল্লিক তাই দুই চোখের আলো ফিরে পেতে সমাজের হৃদয়বান ও বিত্তবান ব্যক্তিদের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছে।

শয়ন মল্লিক জানায়, কিছুদিন আগে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা তপন মল্লিক ও সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমলের একান্ত সচিব আবু বক্কর সাহায্যের হাত বাড়িয়ে তাকে আর্থিক সহযোগিতা করেছেন। কিন্তু এই সাহায্য চিকিৎসার জন্য খুবই অপ্রতুল। তাঁদের মতো সমাজের বিত্তবানেরা এগিয়ে এলে শয়ন দুই চোখের আলো ফিরে পাবেন।

সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা:
নানী সুখেদা ধর ও মামা সুজিত ধর।
মোবাইল: ০১৮৩১-৫১৫৫৮৬।
ফতেখাঁরকুল, রামু, কক্সবাজার।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •