cbn  

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কক্সবাজার সরকারী কলেজ শাখার নব-গঠিত আহবায়ক কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদ পদায়ন করায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। প্রকৃত ও বর্তমান ছাত্রদল নেতাকর্মীরা। তারা এই নিয়ে নানাভাবে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। গত কয়েকদিন এই নিয়ে একটা তোলপাড় অবস্থাও তৈরি হয়েছে। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে গতকাল মঙ্গলবার (২জুন) কলেজ ক্যাম্পাসে এক প্রতিবাদ মিছিল করেছে ত্যাগী ও প্রকৃত ছাত্রদল নেতাকর্মীরা। পরে এক প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়। এতে বক্তব্য রাখেন- ছাত্রদল নেতা মোঃ মুছা, বোরহান কিবরিয়া ও মোঃ রায়হানসহ অন্যান্যরা।

বিক্ষোভকারীরা ওই কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়ে বলেন, ছাত্রদল একটি ঐতিহ্যবাহী, শক্তিশালী ও জনপ্রিয় ছাত্র সংগঠন। এই সংগঠনটি ইতিহাসের নানা বাঁকে বাঁকে ত্যাগী ছাত্রনেতাদের নেতৃত্বে দেশ ও মানুষের জন্য অবদান রেখে আসছে। কিন্তু কক্সবাজার সরকারি কলেজের মতো একটি বৃহৎ ও স্বনামধন্য কলেজের ছাত্রদলের সদ্য ঘোষিত কমিটি এই ধারার মধ্যে নেই। এই কমিটি বিবাহিত ও অছাত্রদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে একটি কলঙ্কজনক ও বিতর্কিত অধ্যায়ের সূচনা হলো। আমরা এই কমিটিকে মানি না। তাই অনতিবিলম্বে এই বিবাহিত ও অছাত্রদের ছাত্রদল কমিটি বাতিল করে প্রকৃত ছাত্রদের দিয়ে কমিটি দেয়া হোক। না হয় আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবো।
বিক্ষোভ সমাবেশের আগে বিক্ষুব্ধ ছাত্র নেতা ও কর্মীরা মিছিলসহকারে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করেন।

অভিযোগ উঠেছে, সদ্য ঘোষিত ৩১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটির আহবায়ক হামিদ খাঁন একজন অছাত্র। কক্সবাজারের সর্বোচ্চ শিক্ষাঙ্গনে ছাত্রদলের নাম্বার ওয়ান নেতার পদে জেলা ছাত্রদল হামিদকে অধিষ্ঠিত করলেও কলেজের ছাত্রদের তিন বছরের হিসেবের খাতায় কোথাও তার কোন নাম নেই। শুধু তাই নয়-তিনি বছর দু’য়েক আগে উখিয়ার এক তরুণীকে বিয়ে করে শহরের ভাড়া বাসায় দিব্যি ঘর-সংসারও করছেন। পেশায় হামিদ খাঁন দীর্ঘ দিনের ঔষুধ কোম্পানির অভিজ্ঞ এম আর।
এ ঘটনায় কক্সবাজার সরকারী কলেজ ছাত্রদলের সকল স্তরের নেতা-কর্মীদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •