এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া:
চকরিয়া উপজেলার উপকুলীয় জনপদ বদরখালীতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে জায়গা দখলে বাঁধা দেওয়ায় এক গৃহবধুর ওপর বর্বরতা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় তাকে চারিদিক থেকে আটকিয়ে লোহার রড ও লাঠি দিয়ে উপর্যুপুরি আঘাত করলে গুরুতর আহত হন ওই নারী। তাঁর শোর-চিৎকারে পরিবার সদস্য ও প্রতিবেশি লোকজন এগিয়ে এসে ওই নারীকে উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ওই নারী। এ ঘটনায় সাতজনের নাম উল্লেখ করে শনিবার (২৯ জুন) সন্ধ্যায় চকরিয়া থানায় একটি এজাহার জমা দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সকালে উপজেলার উপকূলীয় বদরখালী ইউনিয়নের চার নম্বর ওয়ার্ডের তিন নম্বর ব্লকের খালকাঁচা পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। আহত গৃহবধুর নাম জাইতুন নাহার (৩৫)। তিনি ওই এলাকার দেলোয়ার হোসেনের স্ত্রী।

শনিবার চকরিয়া থানায় দেওয়া এজাহারে দাবি করা হয়েছে, একই এলাকার মহিউদ্দিনের নেতৃত্বে অপরাপর আসামীরা ওই নারীর ক্রয়কৃত জায়গার জবর-দখলের চেষ্টা চালিয়ে আসছিল দীর্ঘদিন ধরে। এনিয়ে উভয়পক্ষে বিরোধ চলে আসছিল এবং একের পর এক ঘটনা করে আসছিল চক্রটি।

সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার সকালে আসামীরা সংঘবদ্ধ হয়ে বাড়ির পাশে একটি গাছের বাগানে চারিদিকে আটকিয়ে লোহার রড ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে ওই নারীর ভোগদখলীয় জায়গা জবর-দখলের চেষ্টা চালায়। এ সময় তাদের বাঁধা দিতে গেলে অমানবিকভাবে পিটিয়ে আহত করা হয় তাকে। এ সময় স্থানীয় বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরও লেলিয়ে দেওয়া হয় ওই জায়গা দখলে। অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে জোরপূর্বক কেড়ে নেওয়া হয় জায়গা ক্রয়ের দলিলপত্র এবং নগদ ১৭ হাজার টাকাও।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘উপকূলীয় বদরখালীতে নারীর ওপর হামলার ঘটনা মৌখিকভাবে শুনে পুলিশ পাঠিয়ে ঘটনা তদন্ত করা হয়। এর পর লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর তা মামলা হিসেবে নেওয়া হচ্ছে। ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে অবশ্যই যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •