রোহিঙ্গা নির্যাতন : মিয়ানমার সরকারের বিচারে আইসিসি’র তদন্ত কমিটি গঠন

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)
মিয়ানমারে সহিংসতা থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন নিয়ে তদন্ত শুরু করতে যাচ্ছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)। এর ফলে রোহিঙ্গা সংকটে পূর্ণ তদন্ত শুরু করতে আরও একধাপ এগিয়ে গেলো সংস্থাটি। এই তদন্ত শুরু হলে এটাই হবে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের হত্যাযজ্ঞের বিরুদ্ধে প্রথম আন্তর্জাতিক তদন্ত।
আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের একাধিক প্রসিকিউটর বুধবার ২৬ জুন সিবিএন-কে এ তথ্য জানান।
মিয়ানমার সেই মুষ্টিমেয় দেশগুলোর একটি, যারা আইসিসি সনদে স্বাক্ষর করেনি। তাই সরাসরি মিয়ানমারের বিচারের এখতিয়ার আইসিসির নেই। এই অবস্থানে দাঁড়িয়ে শুরু থেকেই তারা আইসিসির বিচারিক এখতিয়ার নিয়ে প্রশ্ন তুলে আসছে। তবে আইসিসি মনে করছে, মিয়ানমার এই আদালতের সদস্য না হলেও বাংলাদেশ অন্যতম সদস্য দেশ। তাই এ ঘটনার বিচার করার এখতিয়ার আদালতের রয়েছে। কারণ আন্তঃসীমান্ত অনুপ্রবেশের ধরনের জন্যই এই বিচার সম্ভব। তাই এক প্রসিকিউটরের আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ৬ সেপ্টেম্বর নেদারল্যান্ডসের হেগে সংস্থাটির তিনজন বিচারক বিশিষ্ট প্রি-ট্রায়াল কোর্ট বিচারের পক্ষে রায় দেন। আদালত বলেছে, মিয়ানমার এই আদালতের সদস্য না হলেও বাংলাদেশ অন্যতম সদস্য দেশ। তাই এ ঘটনার বিচার করার এখতিয়ার আদালতের রয়েছে। কারণ আন্তঃসীমান্ত অনুপ্রবেশের ধরনের জন্যই এই বিচার সম্ভব।
২০১৮ সালে একটি প্রাথমিক তদন্ত শুরু করে আইসিসি। প্রসিকিউটর জানান, তিনি পূর্ণ তদন্ত কমিটি গঠন করার জন্য আবেদন করবেন। আইসিসির সদস্য দেশ বাংলাদেশে তদন্তের ‘অন্তত একটি আলামত’ নিয়ে তদন্তের জন্য বিচারকদের কাছে অনুমতি চাইবেন। প্রসিকিউটর আরো বলেন, এই তদন্তের আওতায় যেখানে অপরাধ সংঘটিত হয়েছে সেই স্থান অর্থাৎ মিয়ানমারের রাখাইনও থাকবে। এর প্রেক্ষিতে আইসিসি জানায়, তারা ইতোমধ্যে তিনজনের বিচারক প্যানেল তৈরি করেছেন। এই তদন্ত শুরু হলে আইসিসিই হবে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের হত্যাযজ্ঞের বিরুদ্ধে প্রথম আন্তর্জাতিক তদন্ত।
২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে কথিত হামলার পর পূর্বপরিকল্পিত ও কাঠামোগত সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে নতুন করে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ১১ লাখেরও বেশি মানুষ। জাতিগত নিধনের ভয়াবহ বাস্তবতায় রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বড় অংশটি বাংলাদেশে পালিয়ে এলেও জাতিসংঘের হিসাবে ৪ লাখেরও বেশি মানুষ এখনও সেখানে থেকে গেছে। জাতিসংঘ এই সামরিক অভিযানকে ‘জাতিগত নিধনযজ্ঞ’ বলে আখ্যা দেয়।

সর্বশেষ সংবাদ

রমজাইন্যা চোরার বিধিবাম! ধরা খেল জনতার হাতে

‘কেয়ার’ এর উদ্যোগে মহেশখালীতে দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস মেলা অনুষ্ঠিত

কিডস আইটি সেন্টারের ‘আইকিউ টেস্ট ও চারুকারু প্রদর্শনী’ জমে উঠেছে

ঘুমন্ত তুহিনকে কোলে করে নিয়ে আসেন বাবা, খুন করেন চাচা

২০ অক্টোবর জেলা শ্রমিক লীগের বর্ধিত জরুরী সভা আহ্বান

ত্রি-দেশীয় সম্মেলনে যোগ দিতে ৮ দিনের সফরে ভারত যাচ্ছেন সাংবাদিক নজরুল 

আন্তর্জাতিক কনফারেন্স শেষে ইফা’য় সৌজন্য সাক্ষাত করলেন মাওলানা সিরাজুল ইসলাম

পিএমখালীতে ফ্রি রক্তের গ্রুপ নির্ণয়

লোহাগাড়ায় চোলাই মদসহ মহিলা আটক

সদরের ইসলামপুরে চিংড়ি ঘের দখলঃ গুলি বর্ষন, আহত ৪

রত্নাপালং যুদ্ধে আতংকের ক্ষতিটুকুন যেন হয় মোর উত্তরাধিকার!

সুপারী চোরদের গোপন বৈঠক!

প্রথমার ৬ দিন ব্যাপী বইমেলা, মিলছে সর্বোচ্চ ৬০% ছাড়ে বই

মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশের ক্রাউন পরাবেন ভারতের সুস্মিতা সেন

উখিয়ায় আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস উদযাপন

ল্যাপটপ কোলে নিয়ে কাজ করলে হারাতে পারেন পুরুষত্ব

কক্সবাজার এলএ শাখায় দালালি করতে গিয়ে ধরা, খোরশেদসহ ৫ জনের সাজা

মিয়ানমারের কাছে ৫০ হাজার রোহিঙ্গার তালিকা হস্তান্তর

বদরখালীতে জেলে পরিবারের মাঝে ভিজিএফের চাউল বিতরণ

কক্সবাজার সিটি কলেজ আন্তঃ অনুষদ ফুটবল টুর্নামেন্টের জার্সি উন্মোচন