‘জঙ্গিরা নিজেদের স্বার্থে তরুণদের বেহেশতের স্বপ্ন দেখায়’

নিজস্ব প্রতিবেদক:

‘জাগো তারুণ্য, রুখো জঙ্গিবাদ’ শিরোনামে সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের জঙ্গিবাদবিরোধী সেমিনারটির আয়োজন করা হয়েছিল সোমবার সকালে মিরপুর রাজধানী মহিলা কলেজ এ।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন চিকিৎসক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ডা. আব্দুন নূর তুষার। উপস্থিত শিক্ষার্থীদের জঙ্গিবাদের উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ নিয়ে আলোচনা করেন তিনি।

ডা. আব্দুন নূর তুষার বলেন, কোনটি প্রতিবাদ আর কোনটি জঙ্গিবাদ সে পার্থক্য বুঝতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমরা যুদ্ধ করেছিলাম অন্যায়ের বিরুদ্ধে, নৈতিকতার পক্ষে। আর জঙ্গিবাদ হলো নিজের স্বার্থে, গোষ্ঠীর স্বার্থে, অন্যায়ভাবে ক্ষমতা দখলের জন্য ইসলামের নামে ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করা। তিনি আরও বলেন, ইসলাম কখনোই জঙ্গিবাদকে সমর্থন করে না। কোন মানুষ কেন, বিনা ওজরে কোন প্রাণীকেও হত্যা করতে ইসলাম অনুমোদন দেয়নি। আরবে নবী কারীম (সাঃ) এর সময় ইহুদী এবং মুসলমানরা একই সঙ্গে বসবাস করেছে। তিনি কখনোই কাউকে হত্যা করতে বলেননি, প্রশ্নই ওঠে না। ইসলামে প্রকৃত মুসলমান বলা হয়েছে তাকেই, যার কাছে কেবল অন্য মুসলমান নয়, যে কোন ব্যক্তিই নিরাপদ।

ডা. তুষার বলেন, জঙ্গিরা তাদের স্বার্থ উদ্ধারের জন্য, ক্ষমতার স্বার্থে মানুষকে বিভ্রান্ত করে। টার্গেট করে তরুণদের। নিজেরা নিরাপদে থেকে, ক্ষমতায় থেকে অন্যকে অনিরাপদ করে তোলে। বেহেশতের স্বপ্ন দেখায়। অথচ সেই বেহেশতে তারা নিজেরা যেতে চায় না। তারা যে বেহেশতের কথা বলে সেই বেহেশত আসলে ‘দোযখ’। মহান আল্লাহ পাক খুব অল্প সংখ্যক মানুষকে দুনিয়াতে থাকাকালীন বেহেশতের ফয়সালা করেছেন। তারা অনেক মহৎ, মহান মানুষ। এছাড়া আর কেউ জানেন না কে বেহেশতে যাবে আর কে দোযখে। সুতরাং যারা এখানে বসে মানুষকে বেহেশতের ঘোষণা দেয়, বুঝতে হবে তারা জালিম শয়তান। শুধু তাই নয় এর চেয়ে বড় র্শিক আর কিছু নেই।

সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের ডিরেক্টর ও এই কার্যক্রমের সমন্বয়ক কানতারা খান বলেন, জঙ্গিবাদকে তোমাদেরই রুখতে হবে। আজকে যারা ধর্মের নামে মানুষ হত্যা করছে, অরাজকতা ও বিশৃঙ্খলতা করছে এরা কেউই প্রকৃত মুসলিম হতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, হলি আর্টিজানে যে নিরীহ, নিরাপরাধ মানুষদের হত্যা করা হয়েছে তাদের অনেকেই মেট্রোরেলের কাজে দেশে এসেছিলেন। কি ছিল তাদের অপরাধ? তারাতো ভিনদেশী। তারা আমাদের উন্নয়ন সহযোগী। যারা তাদেরকে হত্যা করেছে, তারা যে বাংলাদেশের উন্নয়ন চায় না, দেশকে পিছিয়ে দিতে চায়, অন্ধকারে ঠেলে দিতে চায় তা স্পষ্ট বোঝা যায়।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন একই ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সুশান্ত সরকার। সবশেষে সমাপনী বক্তব্য রাখেন কলেজের অধ্যক্ষ শিব শঙ্কর সরকার।

অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ছিলেন ‘আজ সারাবেলা’র সম্পাদক জব্বার হোসেন।

সর্বশেষ সংবাদ

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ: কক্সবাজার পৌরসভার জার্সি উন্মোচন

ভালবাসার মানুষের প্রত্যেক অর্জনই ‘সুখের’!

ব্রিজের নিচ থেকে বালি উত্তোলন, ডাম্পার জব্দ

২৫ বছর আগের মামলা, ৪৫০০ গ্রামবাসীকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ

এয়ারলাইনসের টিকিট বিক্রিতে ব্যাংক গ্যারান্টি লাগবে না ট্রাভেল এজেন্সির

আমাদের বলির পাঁঠা বানানো হয়েছে: রাব্বানী

পোকখালীতে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু

রোহিঙ্গাদের এনআইডি: মামলার পর ইসি কর্মচারীকে বরখাস্ত

রোহিঙ্গাদের এনআইডি : ইসি কর্মচারীসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা

বিভাগীয় শহরে হচ্ছে পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসাকেন্দ্র

অসম্মান, অশ্রদ্ধা

আলীকদমে এনজিওর প্রকল্পে স্থানীয়দের নিয়োগ দাবীতে মানব বন্ধন ও স্মারকলিপি

স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পায়নি বাইশারীর থোয়াইছাহ্লা

রোহিঙ্গা সমস্যা আরো দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে?

লোহাগাড়ায় ইয়াবা বিক্রি করতে গিয়ে যুবক আটক

জেলা দায়রা জজ আদালতের পিপি হলেন এডভোকেট ফরিদুল আলম

জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানানোয় এসপি মাসুদের কৃতজ্ঞতা

পেকুয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইসচেয়ারম্যান মঞ্জু গ্রেপ্তার

মাওলানা সোলায়মানের মৃত্যুতে লুৎফুর রহমান কাজলের শোক

কিশোর গ্যাং: যেভাবে গড়ে ওঠে দুর্ধর্ষ কিশোর অপরাধীদের এক একটি দল