সংবাদ বিজ্ঞপ্তি:
উখিয়া-টেকনাফের স্থানীয় কর্মক্ষম মানুষদের নির্মাণকৌশল ও ব্যবসায় দক্ষতা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে জাতিসংঘের তিন সংস্থা ইউএনএইচসিআর, আইওএম এবং ডব্লিউএফপি’র যৌথ প্রকল্প সাইট ম্যানেজমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং প্রজেক্ট (এসএমইপি)।

প্রাথমিকভাবে ১০-জনের একটি ব্যাচকে ইতোমধ্যে ২৫-দিনের প্রশিক্ষণ দিয়েছে এসএমইপি। তবে স্থানীয়দের চাহিদা থাকায় উখিয়ার কুতুপালং-এ আরো বড় কলেবরে এই প্রশিক্ষণ আয়োজন করার চিন্তা করছে আইওএম।

আইওএম বাংলাদেশ মিশনের উপ-প্রধান ম্যানুয়েল পেরেইরা বলেন, আইওএম মনে করে নির্মাণকাজ থেকে শুরু করে কম্পিউটার-চালনা কিংবা প্রশাসনিক কাজে দক্ষ হতে পারলে স্থানীয়রাই এ অঞ্চলের ত্রাণ সহায়তা কাজের মূখ্য ভূমিকা রাখবে।

প্রশিক্ষণে অংশ নেওয়া স্থানীয়রাও দক্ষতাবৃদ্ধিমূলক এমন আয়োজনে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। মায়ানমার থেকে পালিয়ে আসা প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দেওয়া এ অঞ্চলের মানুষজন এমন সুযোগে লাভবান হবে বলে মনে করেন।

প্রশিক্ষণে অংশ নেওয়া রেজা বলেন, “সীমান্তের ওপার থেকে ২০১৭ সালে অগণিত মানুষ এসেছে। কিন্তু এই উদ্বাস্তুদের থাকার আশ্রয় বানানোর জন্য ছিল না পর্যাপ্ত ও অভিজ্ঞ ঠিকাদার এবং শ্রমিক। এমনকি এখনোও নেই। এধরনের প্রশিক্ষণ পেয়ে এখন আমরা পরিকল্পনা করছি নিজেরাই একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চালু করব।“

রেজার তিন বন্ধুও এই প্রশিক্ষণে অংশ নেন। তারা বলেন, এমন প্রশিক্ষণের সুযোগ এই এলাকায় আগে ছিল না। আগে এখানকার নির্মাণকাজগুলো স্থানীয়ভাবে বেড়ে উঠা ঠিকাদার ও অদক্ষ শ্রমিকরাই করত।

এধরনের প্রশিক্ষণ আরো হওয়া উচিত বলে মনে করেন প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীরা। এই বিষয়গুলোর পাশাপাশি অন্যান্য কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এ অঞ্চলের মানুষের দক্ষতা বৃদ্ধিতে আরো আয়োজনের পরিকল্পনা করছে আইওএম ও এসএমইপি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •