রামু সংবাদদাতাঃ
বেঁধে দেওয়া সময়সীমার মধ্যে চাঁদা প্রদানে ব্যর্থ হওয়ায় প্রকাশ্য দিবালোকে বসতবাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। লুটপাট করা হয়েছে উত্তোলিত ৫০ বস্তা ধানসহ মূল্যবান আসবাবপত্র। তছনছ করা হয়েছে টিনের ঘেরাবেড়া ও ঘরের ছাউনি।
১৩ জুন বিকাল ৪ টার দিকে রামুর ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের লম্বরীপাড়ায় একদল চিহ্নিত সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনী ঘটনাটি ঘটিয়েছে। প্রায় দুই ঘণ্টা তাণ্ডবের পর এলাকাবাসীর উপস্থিতি দেখে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।
এতে অন্তত ৩ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ভুক্তভোগী আবুল কালাম অভিযোগ করেছেন। তিনি ওই এলাকার মৃত সোলাইমানের ছেলে।
আবুল কালাম জানান, অপহরণসহ বিভিন্ন মামলার দাগি আসামি নুরুল কবিরের নেতৃত্বে ভাঙচুর ও লুটপাট এর ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে। এতে রাজারকুলের আমানুল্লাহ, সলিমুল্লাহ, সালামত উল্লাহ, কায়সার, অফিসেরচরের রিদুয়ানসহ একদল ভাড়াটে সন্ত্রাসী জড়িত। বাড়িতে তাদের অনুপস্থিতির সুযোগে ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে বলে আবুল কালাম জানিয়েছেন।
তিনি জানান, নুরুল কবির দীর্ঘদিন ধরে তাদের বাড়ির পার্শ্ববর্তী জায়গা জবরদখলে নিতে পাঁয়তারা করে আসছিল। দাবি করে ১০ লাখ টাকা চাঁদা। বেঁধে দেওয়া সময়সীমার মধ্যে চাঁদা দিতে না পারায় এই ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে। অভিযুক্তরা প্রভাবশালী হওয়ায় স্বপরিবারে আতঙ্কে রয়েছে বলে জানান নুরুল কবির। তিনি ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের কাছে আকুল আবেদন জানিয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •