জেলে পল্লীতে চলছে নীরব দুর্ভিক্ষ

শাহেদ মিজান, সিবিএন:
টানা ৬৫ দিন সাগরে মাছ ধরা বন্ধ নিষিদ্ধ করেছে সরকার। চলমান এই নিষিদ্ধ সময়ের ২৩ দিন অতিবাহিত হয়েছে। আরো ৪২ দিন অবশিষ্ট রয়েছে। মাছ ধরা বন্ধ থাকায় জেলেরা সম্পূর্ণভাবে বেকার হয়ে আছে। া বেকার থাকায় তাদের পরিবার-পরিজন চরম অভাবের মধ্যে দিনাতিপাত করছে। অনাহারে-অর্ধাহারে কাটছে তাদের অভাবমাখা কষ্টের দিন। কেউ কারো খবর নিতে পারছে না। সব মিলে জেলে পল্লীতে বিরাজ করছে নীরব দুর্ভিক্ষ। জেলে ও সংশ্লিষ্টদের সাথে যোগাযোগ করে এই তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, বঙ্গোপ সাগরের মাছে প্রজনন রক্ষায় টানা ৬৫ দিন মাছ ধরা নিষিদ্ধ করেছে সরকার। গত ২০ মে থেকে এই নিষিদ্ধ সময় শুরু হয়েছে। শেষ হবে আগামী ২৩ জুলাই। এর ফলে একমাত্র মাছ পেশার উপর নির্ভরশীল কক্সবাজারের লক্ষাধিক জেলে সম্পূর্ণ বেকার অবস্থায় রয়েছে। এর মধ্যে নিবন্ধিত প্রায় সাড়ে ৪৬ হাজার জেলে সরকারি অনুদান হিসেবে পেয়েছে মাত্র ৪০ কেজি চাল সাথে কিছু স্বল্প পরিমাণ অন্যান্য সরঞ্জাম। অন্যদিকে আরো অর্ধলক্ষাধিক জেলে পায়নি অনুদান। সাড়ে ৪৬ হাজার জেলেকে যে পরিমাণ চাল ও সরঞ্জাম পেয়ে তা একটি জেলে পরিবারের মাত্র কয়েকদিনের খাদ্য।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কক্সবাজার জেলার কুতুবদিয়া, মহেশখালী, কক্সবাজার সদর ও টেকনাফসহ বিভিন্ন এলাকার লক্ষাধিক মানুষ জেলে পেশার সাথে জড়িত। এটি তাদের একমাত্র পেশা এবং এতেই কোনো মতে চলে তাদের পুরো সংসার। এর মধ্যে টানা ৬৫ মাছ ধরা নিষিদ্ধ হওয়া তাদের জন্য অভিশাপ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ তারা অন্য কোনো কাজ করতে সামর্থ্য নয়। এতে অর্থাভাবে তাদের পরিবারের দিন চরম কষ্টে। যার কারণে কক্সবাজার পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড, মহেশখালীর কুতুবজোম ইউনিয়ন, কুতুবদিয়া, কক্সবাজার সদরের চৌফলদন্ডী, খুরুশ্কুল ও টেকনাফের জেলে পল্লীতে নীরব দুর্ভিক্ষ বিরাজ করছে। একই এলাকার সবাই জেলে হওয়ায় কেউ কারো কাছে পাচ্ছে না ধার-দেনাও। যার ফলে অনাহারে ও অর্ধাহারের দিন কাটছে জেলে পরিবারের সদস্যদের।

কুতুবজোমের ঘটিভাঙ্গার জেলে আলী হোসেন জানান, কুতুবজোমের ৯০ ভাগ মানুষ জেলে পেশার সাথে জড়িত। প্রায় সবাই জন্মগতভাবেই এই পেশার সাথে জড়িয়ে যায় বলে অন্য কোনো কাজে কাজে তারা পারদর্শী নয়। ফলে মাছ ধরতে যেতে না পারলে আর কোনো উপায় থাকে না। ইলিশ প্রজনন মৌসুম ও মাছ ধরার নিষিদ্ধ সময়ে এলে কুতুবজোমের পুরো পল্লী হয়ে উঠে একটি অভাবের কারখানা!

কক্সবাজার পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আকতার কামাল জানান, কুতুবদিয়া ও মহেশখালীসহ বিভিন্ন এলাকার জেলেরা এসে কক্সবাজার পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের বসবাস করছেন। ফলে পুরো এলাকাটিকে জেলে পল্লী হিসেবেই ধরতে হবে। মাছ ধরা নিষিদ্ধ করা হলে সবাই বেকার হয়ে পড়ে। এতে অর্থভাবে তাদের পরিবারের নেমে আসে এক দুর্বিসহ জীবন- যা তারা ভাষায় প্রকাশ করতে পারে না। নীরবেই অনাহারে-অর্ধাহারে কাটে তাদের দিন। বর্তমানেও সেই অবর্ণনীয় দুর্দশা বিরাজ করছে।

কক্সবাজার জেলা বোট মালিক সমিতি সূত্রে জানা গেছে, কক্সবাজার জেলায় লক্ষাধিক জেলে থাকলেও নিবন্ধিত হয়েছে ৪৮ হাজার ৩৯৩ জন। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাছ ধরা বন্ধের সময়ে জেলেদের খাদ্যশস্য সহায়তা দেওয়ার জন্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়। ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে কক্সবাজার জেলায় ১ হাজার ৮৪৩ মেট্রিক টন ভিজিএফ চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়। এই খাদ্যশস্যের উপকারভোগি নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৬ হাজার ৮৭ জন জেলের পরিবার। প্রতি পরিবারে ৪০ কেজি করে বিতরণ করা হয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৭ হাজার ৯৫ জন, চকরিয়ায় ৩ হাজার ৮৪৯ জন, মহেশখালীতে ১১ হাজার ৪২২ জন, উখিয়ায় ৩ হাজার ৩৯৯ জন, পেকুয়ায় ৩ হাজার ৯৪৯ জন, কুতুবদিয়ায় ৮ হাজার ৫১৩ জন ও টেকনাফে ৭ হাজার ৮৬০ জন জেলে পরিবার। নিবন্ধন না থাকায় বাকি অধিকাংশ জেলে কোনো অনুদান পায়নি।

অন্যদিকে অভিযোগ উঠেছে, নিবন্ধিতদের মধ্যে রয়েছে ভিন্ন পেশার অনেক মানুষ। এর মধ্যে রিক্সাওয়ালা, মৎস্য ব্যবসায়ী ও অন্যপেশার শ্রমিক। অনিয়মের মাধ্যমে প্রকৃত জেলেদের নিবন্ধন না করে অন্য পেশার লোকদের জেলে হিসেবে নিবন্ধন করেছে সংশ্লিষ্টরা।

কক্সবাজার জেলা বোট মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহামদ বলেন, ‘মাছের প্রজনন রক্ষায় মাছ ধরা নিষিদ্ধ করা এটা ইতিবাচর দিক। কিন্তু এতো দীর্ঘ সময় তা উচিত হয়নি। বাংলাদেশ প্রজনন রক্ষায় মাছ নিষিদ্ধ করলেও ভারত ও মায়ানমারের জেলেরা বাংলাদেশের সীমানায় ঢুকে মাছ ধরে নিয়ে যায়। এ রকম ঘটনা প্রায়ই ঘটে থাকে। এতে বাংলাদেশের জেলেদের অনাহারী ত্যাগ যথাযথ সফলতা পায় না।’

জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, শুধু নিবন্ধিত জেলে নয়, অনিবিন্ধত জেলেদেরও ঈদের আগে সহায়তা দেয়া হয়েছে। রোহিঙ্গাদের জন্য বরাদ্দকৃত ত্রাণের (চাল ও অন্যান্য সামগ্রি) ২৫ শতাংশ স্থানীয় জনগোষ্ঠিকে দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। ওই ২৫ শতাংশ ত্রাণ আপাতত জেলার সব জেলে পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হয়।

সর্বশেষ সংবাদ

উখিয়া মাদক কারবারির বাড়ির মাল ক্রোক

আদালতে এনজিও কর্মী খুনের দায় স্বীকার করেছে ঘাতক আলাউদ্দিন

টাইগারদের জয়ের বন্দরে পৌছে দিল সাকিব

নাইক্ষ্যংছড়ি পর্যটন শিল্পের সম্ভাবনাময়ী এলাকা -অতিরিক্ত সচিব মোঃ আতিকুল হক

দুই মামলায় জি কে শামীম ১০ দিনের রিমান্ডে

চট্টগ্রামে তিন ক্লাবে র‌্যাবের অভিযান, দুটিতে মিলেছে জুয়ার সরঞ্জাম

দুর্নীতিগ্রস্ত আওয়ামী লীগ নেতারা দেশকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছে

মরহুম রশীদ আহমদের ৩১ তম মৃত্যু বার্ষিকী রবিবার

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মিথ্যা ‘আই লাভ ইউ’: যুবলীগ চেয়ারম্যান

প্রশিক্ষণ পেশার উৎকর্ষতা ও দক্ষতা বৃদ্ধি করে : এসপি মাসুদ

রামুর অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ ফারুকের জানাযা সম্পন্ন 

চট্টগ্রামে ৪ হাজার ইয়াবাসহ আটক ১

এনজিওকর্মী মাজহার খুনের ঘটনায় মামলা, স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর

‘পৃথিবীতে ইসলাম ছাড়া কোনো ধর্ম থাকা উচিত নয়’

পদুয়ার মাদক কারবারী কাইছার গ্রেফতার

মগনামার চেয়ারম্যান ওয়াসিমকে বিএনপি থেকে বহিস্কার

হুফফাজুল কুরআন সংস্থার জাতীয় কাউন্সিল সম্পন্ন

হাটহাজারীতে অজ্ঞাত লাশ উদ্ধার

বঙ্গবন্ধু হত্যার পরিকল্পনাকারী এখনো তৎপর – ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী

চকরিয়ায় মা’কে মেরে দাত ফেলে দিল ছেলে!