মোঃ নিজাম উদ্দিন, চকরিয়া:
চকরিয়ায় মারধর ঘটনায় মামলা করায় বাদীকে উল্টো মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। এমনি অভিযোগ করেন ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড ষোলহিচ্ছা গ্রামের বাসিন্দা মনজুর আলমের ছেলে ছাদেক হোছাইন (৩২)।
অভিযোগে তিনি জানান, গত ২৪ এপ্রিল বিকেল ৪টার দিকে ষোলহিচ্ছা গ্রামের একটি দোকানের সামনে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় লোহার রড় ও হাতুড়ি দিয়ে অমানুষিক মারধর করায় ছাদেক হোসেনের কাঁচা দাঁত ভেঙ্গে যায়। হামলাকালে নগদ টাকা ও মূল্যবান মোবাইল সেট ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনায় গত ২৬ এপ্রিল ভুক্তভোগী ছাদেক হোছাইন বাদী হয়ে চকরিয়া থানা নং ৫১ মামলা ১৯২/১৯ দায়ের করে। দায়ের করা মামলায় একই এলাকার আবু তাহেরের পুত্র জিয়াবুল ইসলামসহ সাতজনকে আসামী করা হয়। তৎমধ্যে অন্য মামলার কয়েকজন জেলফেরত আসামীও ছিল।
এ মামলা প্রত্যাহার না করলে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করবে মর্মে হুমকিধামকি দিচ্ছিল বাদীকে। এমনকি স্থানীয় চেয়ারম্যান নুরুল আমিনের সহযোগিতায় ঘটনার আপোষ মিমাংসা করতে চাপ সৃষ্টিও করে। এ বিষয়ে গত ১৯ মে তারিখ ছাদেক হোসেন চকরিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (এসডিআর- ১১৬৫) করে।
পরে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে আসামী জিয়াবুল ইসলাম গত ৩০ মে তারিখে একটি মিথ্যা ঘটনা সাজায়। এ সাজানো ঘটনায় পরদিন ১ জুন তারিখে চকরিয়া থানায় মামলা দায়ের করে। এ মামলায় আনীত অভিযোগগুলো সম্পূর্ণ মিথ্যা ও সাজানো বলে দাবী করে ছাদেক হোসেন। ঘটনার ব্যপারে তিনি মোটেই জড়িত ও অবগত নয়। এ কাল্পনিক ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্তে প্রকৃত সত্যতা যাচাই করতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •