জাকির নায়েককে ভারত প্রত্যর্পণ করতে চান না মাহাথির

বিদেশ ডেস্ক:

বিতর্কিত ইসলামি বক্তা জাকির নায়েককে ভারতে প্রত্যর্পণ না করা অধিকার রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন মালয়েশীয় প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। তিনি বলেন, জাকির মনে করেন ভারতে তিনি ন্যায়বিচার পাবেন না। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়।

জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে তরুণদের সন্ত্রাসবাদে উসকানি, ঘৃণাবাদী বক্তব্য ও সাম্প্রদায়িক উস্কানির অভিযোগ এনেছে ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থা (এনআইএ)। ২০১৬ সালে ঢাকায় গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলাকারীরা জাকির নায়েকের বক্তব্যে অনুপ্রাণিত হয়েছিল বলে তথ্য পাওয়ার দাবি করে এনআইএ’র তদন্তকারীরা। হামলাকারী তরুণদের ঘৃণাবাদী বক্তব্যের মাধ্যমে অনুপ্রাণিত করার অভিযোগেরও তদন্ত চলছে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে। দুই বছর আগে ভারত ছেড়ে যাওয়া জাকির এখন সৌদি আরব ও মালয়েশিয়ায় বসবাস করছেন। বিগত নাজিব রাজাকের নেতৃত্বাধীন মালয়েশিয়ার সরকার জাকির নায়েককে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ দেয়। গত বছর তাকে ফেরত পাঠানোর অনুরোধ জানায় ভারত। মালয়েশিয়ার সঙ্গে ভারতের বন্দিবিনিময় চুক্তি থাকলেও গত বছরের জুলাইয়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ বলেছিলেন, জাকির নায়েকের মামলায় সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে সব বিষয় খতিয়ে দেখা হবে।

মাহাথির বলেন, আমরা অস্ট্রেলিয়াকে অনুরোধ করেছিলাম যে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পুলিশ কমান্ডো সিরুল আজহার উমারকে যেন তারা ফিরিয়ে দেয়। কিন্তু তারা দিচ্ছে না। জাকির নায়েকের ব্যাপারটিও তেমন। ভারত ইন্টারপোলের সহায়তায় জাকির নায়েককে দেশে ফিরিয়ে আনতে পারে এমন সম্ভাবনার ব্যাপারে মাহাথির বলেন, জাকির ভারতে নিরাপদ বোধ করছেন না।

মুম্বাইয়ের এই ইসলামি চিন্তাবিদের বিরুদ্ধে হাওয়ালায় টাকা লেনদেন ও ধর্মীয় বিদ্বেষমূলক মন্তব্য করার অভিযোগ রয়েছে। গ্রেফতার এড়াতে বর্তমানে তিনি বর্তমানে তিনি মালয়েশিয়ায় বসবাস করছেন। ভারতের একাধিক তদন্ত সংস্থা তাকে দেশে ফেরানোর চেষ্টা করলেও এখনও তা সফল হয়নি। জাকির নায়েককে সম্মানসূচক নাগরিকত্ব দিয়েছে মালয়েশিয়া সরকার।

সর্বশেষ সংবাদ

রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট তৈরীতে সহায়তাকারীদের আইনের আওতায় আনা হবে : ডিআইজি

আ’লীগের প্রতিনিধি সভায় সফল করার আহবান জেলা ছাত্রলীগের

ভারুয়াখালীতে পরকিয়ার জেরে স্ত্রীকে হত্যা

কাজ না করেই বিল নেয়ার দিন শেষ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মাদক ও ইভটিজিংয়ের বিরুদ্ধে টেকনাফে কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সভা

পাসপোর্ট করতে গিয়ে কথিত পিতাসহ রোহিঙ্গা নারী আটক

ছাত্রলীগের পর যুবলীগকে ধরেছি: প্রধানমন্ত্রী

যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ রিমান্ডে

চট্টগ্রাম রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ এএসআই নির্বাচিত হলেন রাশেদ খাঁন

নারী ও কন্যা শিশুর প্রতি সহিংসতারোধে যুব সমাবেশ

বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইন–১৯৯১ ও কক্সবাজারের প্রেক্ষাপট

সময়ের সর্বোত্তম কাজ হচ্ছে বৃক্ষরোপন- জেলা প্রশাসক

কোস্টগার্ডের বিরুদ্ধে বোট মালিক সমিতির বিক্ষোভ 

ইসলামপুরের হাফেজ বেদারের ইন্তেকাল

পেকুয়ায় পুলিশের অভিযানে প্রতারণা মামলার আসামী গ্রেফতার

বদরখালী জেনারেল হাসপাতালে দুর্বৃত্তের হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট

১১তম গ্রেডের দাবি: লোহাগাড়ায় প্রাথমিক শিক্ষকদের মানববন্ধন

খুটাখালী পুরাতন ইউপি ভবন যেন ধ্বংসস্তূপ!

বালক কক্সবাজার পৌরসভা ও বালিকা’য় মহেশখালী ফাইনালে

রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের জন্য বড় ধরনের বোঝা : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা