নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
গতানুগতিক শিক্ষা নয়, ভিন্ন মাত্রার কারিকুলাম নিয়ে সময়োপযোগী শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে মা’হাদ আন-নিবরাস।
কক্সবাজার শহরের প্রাণকেন্দ্র খুরুশকুল রোডে অবস্থিত প্রতিষ্ঠানটির তত্ত্বাবধানের দায়িত্বে রয়েছেন একদল বিজ্ঞ, প্রাজ্ঞ, উচ্চ শিক্ষিত মুত্তাকি আলিম।
‘সোনালী আগামী বিনির্মাণের প্রত্যয়ে সৎ, যোগ্য ও সুনাগরিক গড়ার লক্ষ্যে’ এই শ্লোগান ধারণ করে ২০১৮ সালে যাত্রা শুরু করে মা’হাদ আন-নিবরাস।
দ্বীনি ও আধুনিক শিক্ষার সমন্বয়ে যোগ্যতাসম্পন্ন শিক্ষার্থী উপস্থাপনের মহান ব্রত নিয়ে যাত্রা করা এই প্রতিষ্ঠানটি মাত্র এক বছরের মাথায় শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ সর্বমহলে প্রশংসা কুড়িয়েছে।
আলোকিত এই প্রতিষ্ঠান হতে প্রথম বছরেই ইবতিদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় তিনজন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে দু’জন A+, ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি লাভ করে এবং ২১ জন হিফজ বিভাগের শিক্ষার্থী পূর্ণ হিফজ সমাপনের কৃতিত্ব অর্জন করে।
সম্প্রতি এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয়।
মা’হাদ আন-নিবরাস শিক্ষার্থীদের নিবিড় পরিচর্যা ও সুষ্ঠু তত্ত্বাবধানে এগিয়ে চলছে তা তার অভীষ্ট গন্তব্যপানে। দেড় বছরের স্বল্প পথ চলায় মা’হাদ আন-নিবরাস আজ কক্সবাজার জেলার এক পরিচিত নাম, আলোকিত শিক্ষালয়।
যেখানে নূরানী, ইবতিদায়ি, ই’দাদি শ্রেণি ও তাহফিজুল কুরআন বিভাগে দক্ষ, অভিজ্ঞ ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষকের সার্বক্ষণিক তদারকিতে আবাসিক/অনাবাসিক/ডে-কেয়ারে পড়ালিখা চালিয়ে যাচ্ছে জ্ঞানপিপাসু বাচাইকৃত সীমিত সংখ্যক তালিবে ইলম।
এখানে অন্যতম আকর্ষণ হিসেবে রয়েছে তা’হিলী কোর্স। যাতে রয়েছে একজন সদ্য হিফজ সম্পন্নকারী হাফেজে কুরআন ছাত্রের জন্য এক বছরে বিশেষ তত্ত্বাবধানে পঞ্চম শ্রেণি সমাপ্ত করার পাশাপাশি ইবতিদায়ি শিক্ষা সমাপনি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুবর্ণ সুযোগ।
অ্যাকাডেমিক কার্যক্রমের বাইরে রয়েছে স্পোকেন ইংলিশ ও স্পোকেন অ্যারাবিক এর নিয়মিত প্রশিক্ষণ।
রমাদান পরবর্তী সীমিত সংখ্যক আসনে তা’হিলী কোর্স ও হিফজুল কুরআন বিভাগে ভর্তি চলছে।
মা’হাদ আন-নিবরাসের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মাওলানা জিয়াউল হক বলেন, গতানুগতিক শিক্ষায় দক্ষ জাতি গড়া সম্ভব নয়। দ্বীনি ও আধুনিক জ্ঞানের সমন্বয়ে সুনাগরিক গড়ে তোলার প্রত্যয়ে মা’হাদ আন-নিবরাস প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।
তিনি বলেন,এতগুলো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মধ্যে এটি যদিওবা একটি বড় চ্যালেঞ্জ। আশা করছি আমরা সফল হবো, ইনশাআল্লাহ।
সন্তানের ভবিষ্যত গড়ার বিষয়ে সচেতন অভিভাবকগণ আমাদের প্রতিষ্ঠানের ওপর পূর্ণ আস্থা রাখতে পারেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •