সংবাদ বিজ্ঞপ্তিঃ
উখিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী বলেছেন, যুব সমাজ ধ্বংসকারী মাদকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। কারন এই মাদক অামাদের উখিয়ার জন্য অভিশাপ। এই মাদকের কারনে উখিয়ার প্রতিটি ঘরে ঘরে অাজ অশান্তি। বিশেষ করে মরন নেশা ইয়াবার কারনে অাজ সারা দেশ ঝুকির মুখে। তাই এই মরননেশা ইয়াবার বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। তিনি শনিবার সকাল ১১ টায় উখিয়ার কুতুপালং গ্রামের অন্যতম সামাজিক সংগঠন প্রত্যাশার ১ম বর্ষপূর্তি ও ঈদ পূনর্মিলনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। তিনি অারো বলেন কুতুপালং গ্রামটি এখন সারাবিশ্বে মানবতার শহর নামে পরিচিত। মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে বাংলাদেশে এসে রোহিঙ্গারা এই কুতুপালং সহ উখিয়ার অন্যান্য স্থানে অাশ্রয় নিয়েছে। অামরা তাদের অাশ্রয় দিয়ে এখন বাংলাদেশীদেরই করুন অবস্থা। আমরা স্থানীয়রা নিরাপত্তাহীনতা সহ নানা সমস্যায় পতিত হয়েছি। অদুর ভবিষ্যতে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের জন্য চরম হুমকি হয়ে দাড়াবে। তাই এই রোহিঙ্গাদের যত দ্রুত সম্ভব বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে ফেরত নিয়ে যাবে ততই বাংলাদেশের জন্য মঙ্গলজনক হবে।
প্রত্যাশার সভাপতি মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম জর্জ কোর্টের সিনিয়র অাইনজীবি এড. ছমি উদ্দিন, নুরুল ইসলাম চৌধুরী টেকনিক্যাল কলেজে অধ্যক্ষ মিলন বড়ুয়া, প্রবীন রাজনীতিবিদ এম বাদশা মিয়া চৌধুরী, কক্সবাজার সরকারী কলেজের প্রভাষক ওবায়দুল হক, আইনজীবি মোঃ ইসলাম, পালংখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিপ্র বড়ুয়া, চাকবৈঠা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পলাশ বড়ুয়া, পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর শাহ অালম, কুতুপালং বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক জহির আহমদ, কক্সবাজার জর্জ কোর্টের কর্মকর্তা মাহমুদুল হক মামুন, এনজিও কর্মকর্তা খাইরুল হক প্রমূখ। সবশেষে প্রত্যাশার পক্ষে সমাপনী বক্তব্য রাখেন প্রত্যাশার প্রধান উপদেষ্টা ও তরুন সমাজসেবক হেলাল উদ্দিন।
অালোচনা সভা শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন প্রত্যাশার সদস্য ইব্রাহিম মোঃ হিময়, ও অনামিকা বড়ুয়া।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •