এম.এ আজিজ রাসেল:
ক্রিকেট উম্মাদনায় ভাসছে লাল সবুজের দেশ। সারাদেশের ন্যায় উচ্ছ্বাস বেড়েছে কক্সবাজারেও। বিশ্বকাপ ক্রিকেটকে কেন্দ্র করে শহরসহ বিভিন্ন উপজেলায় জার্সি কেনার ধুম পড়েছে।
রবিবার শহরের পুরাতন পান বাজার সড়কস্থ এরশাদ স্পোর্টস, ষ্টার স্পোর্টসসহ কয়েকটি দোকান ঘুরে দেখা যায়, স্বত্ত্ব ক্রয়কারী প্রতিষ্ঠানের বাইরেও অনুমতি ছাড়াই জার্সি বিক্রি করছেন। সাধারণ মানুষও খুশি সহজলভ্যতায়, কম দামে জার্সি কিনতে পারায়। তবে সবার প্রত্যাশা এক বিশ্ব মঞ্চে দেশের সাফল্য। বিশ্বকাপে গর্জে উঠবে লাল সবুজের দেশ। এ জন্য প্রস্তুত ষোলো কোটির বাংলাদেশ। তাই চাই একটা জার্সি, যে জার্সি পড়ে মাঠ মাতাবেন মাশরাফী, সাকিব, তামিমরা। তাই আয়োজনের কমতি নেই ক্রীড়া দোকানে। ফুটপাথ থেকে সুপার শপ বা স্পোর্টস ব্র্যান্ড কোথাও জার্সির ঘাটতি নেই। কেউ বিক্রি করছেন অফিসিয়াল জার্সি। কেউ আবার দর্শকের সাধ্য বিবেচনায় দিচ্ছেন কম দামে জার্সি।
অফিসিয়াল জার্সির দাম ১১৫০ টাকা হলেও, ৩০০ থেকে ৮০০ টাকায় মিলছে বিভিন্ন মানের জার্সি। তাতেই খুশি ক্রিকেট ভক্তরা।
জার্সির পাশাপাশি ভিড় ইলেক্ট্রনিক্সের দোকানে বিশ্বকাপকে সামনে রেখে টেলিভিশনে বিক্রি বেড়েছে কয়েকগুন। ক্রিকেট উম্মাদনাকে পুঁজি করে লোভনীয় অফারও দিয়েছে প্রতিষ্ঠানগুলো। রঙ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা সমালোচনার পর গাঢ় সবুজ জার্সির বুক বরাবর রক্তিম সূর্যের প্রতীক লাল রঙ যুক্ত করে পুনরায় জার্সি বানানোর সিদ্ধান্ত জানায় বিসিবি। বিতর্কের অবসান হয় তাতে। আর এখন প্রাণের বাংলাদেশকে সমর্থন জানাতে এই লাল-সবুজের জার্সি কেনার ধুম পড়েছে টাইগার ভক্তদের মাঝে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •