cbn  

এ কে এম ইকবাল ফারুক, চকরিয়া:

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার মাতামুহুরী নদীর উপর নির্মিত সেতুটি আবারো ভাঙ্গনের কবলে পড়ায় যানবাহন চলাচলে চরম ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। জোড়াতালির মেরামতের মাধ্যমে কতৃপক্ষ সেতুটি সচল করার বারবার চেষ্টা চালালেও কিছুদিন পরপর আবারো বিকল হয়ে পড়ছে।

গত বুধবার হঠাৎ সেতুর মেরামত করা অংশ দেবে গিয়ে আবারো বড় ধরনের ফুটো হয়ে গেছে। ফলে এদিন রাত ১১ টা থেকে বৃহস্পতিবার (২৩ মে) সকাল ৭টা পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে সরাসরি যান চলাচল বন্ধ করে দিলে বিকল্প পথ চকরিয়া থানা রাস্তার মাথা-ঈদমনি লালব্রীজ ও পেকুয়া চৌমহনী হয়ে বরইতলী একতা বাজার সড়ক দিয়ে চলেছে এসব যানবাহন। আবার কোন কোন যানবাহন পেকুয়া চৌমহনী হয়ে বাঁশখালী সড়ক দিয়েও চলাচল করে। সওজ কতৃপক্ষ হঠাৎ করে মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় ঈদকে সামনে রেখে চকরিয়া পৌরশহরের কেনাকাটা করতে আসা শতশত লোকজনকে চরম ভোগান্তি পড়তে হয়। অনেককে নিরুপায় হয়ে পায়ে হেঁটে ফিরতে হয়েছে বাড়ি বা নিজ গন্তব্যে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্র জানায়, গত বুধবার হঠাৎ সেতুর মেরামত করা অংশে আবারো বড় ধরনের ফুটো হয়ে যাওয়ায় যানবাহন চলাচলে সমস্যার সৃষ্টি হয়। ফলে সেতুর মেরামত কাজের জন্য বুধবার রাত ১১ টা থেকে বৃহস্পতিবার (২৩ মে) সকাল ৭টা পর্যন্ত চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে সরাসরি যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। বিকল্প পথ চকরিয়া থানা রাস্তার মাথা-ঈদমনি লালব্রীজ ও পেকুয়া চৌমহনী হয়ে বরইতলী একতা বাজার সড়ক দিয়ে চলেছে দূরপাল্লাসহ আভ্যন্তরীণ সব ধরনের যানবাহন। আবার কোন কোন যানবাহন পেকুয়া চৌমহনী হয়ে বাঁশখালী সড়ক দিয়েও চলাচল করে।

এদিকে কতৃপক্ষ বৃহস্পতিবার (২৩ মে) সকাল থেকে মাতামুহুরী সেতুর একপাশ দিয়ে যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দিলে দুরপাল্লাসহ সকল আভ্যন্তরীণ সড়কের যানবাহনগুলোর চলাচল শুরু হয়। তবে যানবাহন চলাচলের জন্য সড়কের একপাশ খোলা থাকায় মাতামুহুরী সেতুর দুইপাশসহ পৌর শহরে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা যানজটের কবলে পড়ে আটকে থাকতে হয় এসব যানবাহন গুলোকে। ফলে চরম দূর্ভোগের শিকার হতে হয় সাধারণ যাত্রীদেরও। আর দিন রাত এ যানজট নিরসন করতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয়েছে ট্রাফিক পুলিশকেও।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের চকরিয়া অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. আবু এহেছান বলেন, চকরিয়া মাতামুহুরী সেতুর বিষয়টি এখন সড়ক ও জনপথ বিভাগের আলাদা প্রজেক্ট ক্রস বর্ডার রোড নেটওয়ার্ক ইনপ্রোভমেন্ট প্রজেক্টেটের অধীনে চলে গেছে। সুতরাং সেতুটি অচল হলেও সচল করার ব্যাপারে এখন আর আমাদের কিছুই করার নাই। সড়ক ও জনপথ বিভাগের যে প্রকল্পের অধীনে এ সেতুর কাজ চলছে এখন সব দায়-দায়িত্ব তাদের উপর।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের ক্রস বর্ডার রোড নেটওয়ার্ক ইনপ্রোভমেন্ট প্রজেক্টেটের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. কোরাইশী বলেন, মাতামুহুরী সেতুটি দীর্ঘদিনে পুরানো সেতু। এর বয়স আনুমানিক ৬০-৭০ বছর হবে। মাঝে মধ্যে সেতুর মাঝখানে সমস্যার সৃষ্ঠি হয়ে যানবাহন চলাচলে ব্যাঘাত ঘটে। বড় ধরনের কোন সমস্যা হলে সওজ বিভাগের উর্ধতন কতৃপক্ষকে অভিহিত করে এ সেতু মেরামতের জন্য যানবাহন চলাচল সাময়িক বন্ধ রাখা হয়। ওই সময় বিকল্প পথে এসব যানবাহন চলাচল করে থাকে।

বুধবার রাত ১১টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৭টা পর্যন্ত সেতুর উপর দিয়ে যাবাহন চলাচল বন্ধ রেখে সেতুর একপাশ মেরামত করা হয়। পরে ওই সেতুর একপাশ যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়। বর্তমানে সেতুর একপাশ দিয়ে যানবাহন চলাচল করায় সাময়িক যানচলাচলে সমস্যা হচ্ছে। সেতুর অপর অংশ মেরামত হয়ে গেলে এ সমস্যা কেটে যাবে বলেও জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •