মোঃ নিজাম উদ্দিন:
বান্দরবানের লামায় কোরাল লীফ নামের এক প্রভাবশালী কোম্পানী ও তাদের ইন্ধনে দায়ের করা মিথ্যা মামলায় হয়রানির অভিযোগ তুলেন লামা ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য গোলাম কাদের। তিনি ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের সাবেক দু’বারের মেম্বার ও উত্তর মালুম্মা অংসাঝিরি এলাকার মৃত আবদুর রহমানের ছেলে।
তিনি জানান, বিগত সময়ে কোরাল লীপ কোম্পানির সাথে জায়গা বিক্রির চুক্তি হয় তার (গোলাম কাদের মেম্বার) সাথে। এসময় কোম্পানি পক্ষ থেকে ৩০ ও ৫০ লাখ টাকার দুটি ভুয়া চেক হাতে ধরিয়ে দিয়ে প্রায় একশ একর জায়গা জবরদখল করে নেয় তারা। এনিয়ে গোলাম কাদের বাদী হয়ে লামা জুড়িশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে মামলা সিআর- ১২৩ দায়ের করে। পরে অপর ঘটনায় গত ১১ এপ্রিল ২০১৯ ইং তারিখে কোরাল লীপ কোম্পানির ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে গোলাম কাদের’এর বাড়িঘর ভাংচুর করে তার বাগানের মূল্যবান গাছগুলো কেটে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় সুষ্ঠ বিচারের প্রত্যাশায় গোলাম কাদের লামা সিনিয়র জুড়িশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আরেকটি (সিআর- ১২৪) মামলা দায়ের করে।
গোলাম কাদের অভিযোগে আরো বলেন, প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে তার বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে কোরাল লীপ কোম্পানি। অথচ তাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের কয়েক ডজন নিরীহ পরিবার। রাত ঘনিয়ে আসলে তাদের আস্তানায় শুনা যায় গুলা বারুদের বিকট আওয়াজ। বন বিভাগের বন্য প্রাণী নিধনের সাক্ষীও রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। তাদের আস্তানায় ভিন্নভিন্ন রূপের বহিরাগত লোকজনের আনাগোনা করতে দেখতে পায় স্থানীয়রা। এলাকাবাসীর আশংকা, এখানে জঙ্গির কোন প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে কিনা! প্রশাসনের নিরপেক্ষ পর্যবেক্ষণে তাদের অনেক রহস্য বেরিয়ে আসবে বলে জানান গোলাম কাদের।
তিনি আরো জানায়, কোরাল লীপ কোম্পানি প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের ছত্রছায়ায় জবরদখল কাজে লিপ্ত রয়েছে ইউনিয়নের নলবনিয়া গ্রামের আবুল হাসেমের ছেলে নজির আহমদ। সে গোলাম কাদেরের গাছ কেটে লুট করার সময় বাধা দিলে নুরুল আলম বুলেট নামের একজনের দু’হাতের আটটি আঙ্গুল কেটে নেয়। এঘটনায় ২৬ জুন ২০১৮ ইং তারিখে লামা থানায় জিআর-৬২ মামলা দায়ের করে। ওই মামলায় নজির আহমদ গংদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়। তবুও দাপটের সাথে খোলা ফিল্ডে চলাফেরা করছে আসামীরা। অপরদিকে প্রতিপক্ষ সাবেক মেম্বার গোলাম কাদেরকে ফাঁসাতে বারেবারে মিথ্যা মামলা ও হুমকি দিয়ে হয়রানি করে যাচ্ছে অভিযুক্তরা।
গত ১১ মে ২০১৯ ইং তারিখে নজির আহমদ বাদী হয়ে তাকে অপহরণের চেষ্টা চালানো হয়েছে বলে গোলাম কাদেরের বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা ঘটনা সাজায়। অথচ ওই সময় এরকম কোন ঘটনাই ঘটেনি যা প্রত্যক্ষদর্শীরা অবগত রয়েছে বলে তিনি জানান। এ সাজানো ঘটনায় নজির আহমদ প্রতিপক্ষ হিসেবে গোলাম কাদেরকে হয়রানি মূলক জড়ানো হয়েছে। সর্বশেষ গত ১৭ মে (শুক্রবার) সকাল ৯টার দিকে ফাসিয়াখালী ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের অংসাং ঝিড়ি গ্রামে আরিফ নামের প্রবাসীর শিশুকে মারধর করেছে বলে ঘটনা সাজিয়েছে। এ সাজানো ঘটনায় শিশুটির মা ও কোরাল লীপ কোম্পানির লোকজনের যোগসাজশে গোলাম কাদেরকে জড়িয়ে গণমাধ্যমে প্রচারণা চালাচ্ছে। অথচ গোলাম কাদের এ ঘটনা সম্পর্কে কিছুতেই অবগত নয় বলে দাবী করেন। এভাবে প্রতিনিয়ত নিত্যনতুন ঘটনা সাজিয়ে তাকে মিথ্যা ভাবে জড়ানো হচ্ছে বলে জানান গোলাম কাদের।
এ ব্যপারে কোরাল লীপ কোম্পানির ম্যানেজার রহিম উদ্দিন জানায়, কোম্পানি তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে। পরে সেও পাল্টা মামলা করে। মামলাগুলো চলমান রয়েছে। অন্যান্য অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবী করেন তিনি। অপরদিকে কোরাল লীপ কোম্পানির লোকজন তাকে প্রতিনিয়ত মৃত্যুর হুমকি দিয়ে যাচ্ছে বলে জানান গোলাম কাদের। এনিয়ে আতংকিত রয়েছে এবং তিনি প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •