হাবিবুর রহমান সোহেল :

“দেশের সাংবাদিক সমাজ জাতির আয়না স্বরুপ। গণ মাধ্যম কর্মীদের সঠিক লিখনীর মাধ্যমে দেশ তথা সমাজের নানা অনিয়মসহ বিভিন্ন উন্নয়ন চিত্র ফুটে উঠে। আপনাদের সঠিক সহযোগিতা পেলে রামুকে দুর্নীতি মুক্ত উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলা হবে।” ২০ মে সোমবার দুপুরে রামু পূর্বাঞ্চল প্রেস ক্লাবের নেতৃবৃন্দ নবাগত রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমার সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি উপরোক্ত কথা গুলো বলেন। তিনি আরো বলেন সংবাদ কর্মীদের আরো দায়িত্বশীল হতে হবে। এই সময় রামু পূর্বাঞ্চল প্রেস ক্লাব সভাপতি এসএম হুমায়ুন কবির ও সিনিয়র সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান সোহেলসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গসহ উপজেলার কর্মকর্তা কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

১৯ মে সোমবার আনুষ্ঠানিক ভাবে রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসাবে তিনি দায়িত্ব বুঝে নেন। ওই দিন থেকে অফিসে বসে নিয়মিত কাজ করছেন। সুত্র জানায় নবাগত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৎ,সাহসী ও ন্যায়পরায়ন অফিসার হিসেবে সাবেক কর্মস্হল টেকনাফে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছেন। রামুবাসী এমন একজন সৎ কর্মবীর রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসাবে প্রণয় চাকমা কে পেয়ে অনেক স্বপ্ন দেখছে। রামু পূর্বাঞ্চল প্রেস ক্লাব নেতৃবৃৃৃৃন্দ জানান, অপার সম্ভাবনার স্থান রামু।শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ অবকাঠামো সহ সার্বিক দিক দিয়ে পিছিয়ে রয়েছে রামু। নবাগত রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার অতীত কর্মস্হলে যেমন ব্যাপক কর্মযঞ্জ চালিয়ে নিজ কর্মদক্ষতার স্বাক্ষর রাখায় টেকনাফের উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা- কর্মচারী সহ সর্বস্হরের জনগণ অশ্রুসিক্ত নয়নে বিদায় দিয়েছেন তেমনি রামু উপজেলাবাসী কে আপন করে নেবেন নিজ কর্মদক্ষতায় এমন প্রত্যাশা রামুবাসীর। এদিকে নবাগত সৎ,দক্ষ, কর্মবীর সিনিয়র সহকারী সচিব প্রণয় চাকমা কে রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসাবে পেয়ে খুশিতে আত্নহারা রামু উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারী, কর্মরত সাংবাদিকদের সংগঠন,বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। উল্লেখ্য,গত ২১ এপ্রিল অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার(সার্বিক) শংকর রঞ্জন সাহা স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে তাঁকে পদায়ন করা হয়। ৩১তম বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের এই কর্মকর্তা ২০১৭ সনের ২৩ জুলাই টেকনাফে সহকারী কমিশনার(ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে যোগদান করেন। যোগদানের ১ মাসের মাথায় রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঘটায় দাপ্তরিক কাজের পাশাপাশি তাঁকে বেশীর ভাগ সময় রোহিঙ্গাদের নিয়ে কাজ করতে হয়েছে। এরপরও সীমান্তবর্তী উপজেলা হিসেবে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান,সরকারী জমি উদ্ধার,পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযানসহ মাদক এবং মানবপাচার প্রতিরোধে তাঁর নিয়মিত তৎপরতা সরকারের উচ্চ মহলেও বেশ প্রশংসনীয়। ১বছর ৯মাস সময়ে এসিল্যান্ড প্রণয় চাকমা টেকনাফের ভূমি অফিসকে পুরো ডিজিটাইজ এবং দালালমুক্ত রাখতে সর্বাত্মাক প্রচেষ্টায় ছিলেন। এর আগে তিনি দীর্ঘ সাড়ে ৪ বছর নেত্রকোণা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এনডিসি হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •