সংবাদদাতা:
ঐতিহ্যবাহী রামু আল-জামিয়াতুল ইসলামিয়া দারুল উলুম চাকমারকুল মাদ্রাসার শিক্ষা কার্যক্রমকে এগিয়ে নিতে সকল শিক্ষক ঐক্যবদ্ধ। তাই কোন মহলকে অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানানো হয়েছে।
গত কয়েকটিন দিন ধরে একটি মাদরাসা বিরোধী মহলের ষড়যন্ত্র, অপপ্রচারের বিষয় নিয়ে জরুরী বৈঠকে মিলিত হন কর্মরত শিক্ষকবৃন্দ।
১৫ মে বাদ জুহুর মাদ্রাসা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন মুহতামিম মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিকদার।
সভায় মাদরাসার ৩৬ জন শিক্ষকের মধ্যে ৩২ জন শিক্ষকই উপস্থিত ছিলেন। অনুপস্থিত শিক্ষকরাও বৈঠকের সকল সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত।
সভায় সর্বসম্মত্তভাবে এই মর্মে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, মাদ্রাসার শিক্ষক ও মুহতামিম সাহেব মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিকদারের মাঝে কোন ধরনের সমস্যা নেই। তাই অতীতের মত সকল শিক্ষক ঐক্যবদ্ধভাবে ঐতিহ্যবাহী এই দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে বর্তমান মুহতামিম হযরত মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিকদারের নেতৃত্বে স্বাবাবিক কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
এছাড়াও পূর্বের নিয়মে রমজান মাসে মাদ্রাসার ফান্ড কালেকশন, ছাত্র সংগ্রহ ও অভিভাবক এবং শুভাকাঙ্খীদের সাথে যোগাযোগ সহ সার্বিক কার্যক্রম এলাকা ভিত্তিক দায়িত্ব বন্টন এর মাধ্যমে অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত হয়।
সভায় মাদ্রাসার সুনাম নষ্ট করার কুমানসে মহলবিশেষের নানা ধরণের অপপ্রচার ও দুর্নাম এবং ভিত্তিহীন প্রচারণায় বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য মাদ্রাসার সকল স্তরের অভিভাবক, শুভাকাঙ্ক্ষীসহ সর্বস্তরের দ্বীনদার ঈমানদার মুসলমানদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
একই সাথে মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিকদারের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অপপ্রচারকারী ও ষড়যন্ত্রকারী মহলের ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে দেওয়ার জন্য মাদ্রাসার সকল স্তরের অভিভাবক, শুভাকাঙ্ক্ষীসহ সর্বস্তরের দ্বীনদার ঈমানদার মুসলমানদের প্রতি আহ্বান জানানোর পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।
সভায় শিক্ষকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- মাওলানা কামাল হোসাইন, মাওলানা হারুন কাদিম, মাওলানা মুফতি ফিরোজ আহমদ, মাওলানা সাঈদ আহমদ, মাওলানা ইয়াকুব, মাওলানা মুফতি হাবিবুল্লাহ, মাওলানা আনোয়ারুল হক, মাস্টার আজিজুল হক, মাওলানা নজরুল ইসলাম, মাওলানা সিদ্দিক আহমদ, মাওলানা হারুন জাদিদ, মাওলানা সোলাইমান, মাওলানা নুরুল আমিন, মাওলানা আবদুর রহমান, মাওলানা আজিজুর রহমান, ক্বারী মো. তৈয়ব, মাওলানা মিজানুর রহমান, মাওলানা মামুনুল হক, মাওলানা নুরুল হক, মাওলানা মিনহাজ উদ্দিন, মাওলানা হা. মুসলিম একবাল, মাওলানা হা. ছৈয়দ করিম, মাওলানা জয়নুল আবেদীন, মাওলানা নুরুল কবির প্রমুখ।
একজন শিক্ষক মাদ্রাসার কাজে এলাকার বাইরে এবং একজন অসুস্থ থাকায় সভায় উপস্থিত থাকতে পারেননি। অন্য একজন শিক্ষক মাদ্রাসা থেকে বিদায় গ্রহণ করায় তিনিও উপস্থিত ছিলেন না।
উল্লেখ্য, ১৯৪৬ সালে প্রতিষ্ঠিত রামুর চাকমারকুল এলাকায় ঐতিহ্যবাহী এই দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি এ পর্যন্ত সুনামের সাথে চলে এসেছে। কিন্তু সম্প্রতি ভিত্তিহীন কিছু অভিযোগের অবতারণা করে মাদ্রাসার সুযোগ্য মুহতামিম হযরত মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিকদারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক অপপ্রচার শুরু করে।
শিক্ষকরা দৃঢতার সাথে বলেন, বর্তমান মুহতামিম মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিকদারের নেতৃত্বে এই মাদ্রাসা পূর্বের সকল ধারাবাহিকতা এবং সবকার্যক্রম যথাযথ নিয়মে এবং কওমি মাদ্রাসার যে বিধি বিধান রয়েছে সে অনুসারে পরিচালিত হচ্ছে।
তাঁরা বলেন, দিনদিন মাদ্রাসার শিক্ষা কার্যক্রম ও উন্নয়ন কার্যক্রম এগিয়ে যাচ্ছে। তারা এই দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যেকোনো ধরনের ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচার থেকে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •