নিজস্ব প্রতিবেদক:
মহেশখালী উপজেলার হোয়ানক ইউনিয়নের সর্ববৃহৎ ও প্রাচীন খোরশাপাড়া, ফকিরখালীপাড়া ও পুঁইছাড়ার (সংযুক্ত) কবরস্থানের জমি জবর দখল করেছে বাদশা মিয়া নামের এক ভূমিদস্যু। বাদশা মিয়া ভূমিহীন হিসেবে একসময় কবরস্থানের পূর্বপাশে টিলায় অস্থায়ীভাবে ঘরে বাস করতে গিয়ে বর্তমানে কবরস্থানের আরো বৃহৎ জায়গা জবর দখল করে নিয়েছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। স্থানীয়রা এর প্রতিবাদ করায় উল্টো ভূমিদস্যু বাদশা তাদের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছে। কবরস্থান দখল ও থানায় মিথ্যা অভিযোগ করায় স্থানীয় লোকজনের মাঝে তীব্র অসন্তোষ বিরাজ করেছে।

স্থানীয়রা জানান, হোয়ানক টাইমবাজার দাখিল মাদ্রাসা ও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পূর্বপাশে অবস্থিত কবরস্থানটি কয়েকশত বছরের। এই কবরস্থানে বৃহত্তর খোরশাপাড়া, ফকিরখালী পাড়া ও বৃহত্তর পুঁইছড়ার লোকজনকে সমাহিত করা হয়। এর মধ্যে বিগত ১৫ বছর আগে ভূমিহীন হিসেবে সমাজের মানুষের করুণা চেয়ে করবস্থানের পূর্বপাশে অস্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য একটি ঘর নির্মাণ করে খোরশাপাড়া এলাকার মৃত কবির আহামদের পুত্র বাদশা মিয়া। কিন্তু ওইদিকে লোকজনের যাতায়াত না থকার সুযোগে ভূমিদস্যু বাদশা মিয়া আস্তে আস্তে পাহাড় কেটে কবরস্থানের বিশাল জায়গা দখল করে ফেলে। সম্প্রতি কবরস্থান রক্ষণাবেক্ষণের অংশ হিসেবে ওই পাশে সীমানা দেয়াল নির্মাণ করতে গেলে জায়গা দখলের বিষয়টি স্থানীয়দের নজরে আসে। তখন কবরস্থান পরিচালনা কমিটির লোকজন ওই জায়গাতে সীমানা দেয়াল নির্মাণ করতে গেলে বাধা দেয় ভূমিদস্যু বাদশা।

কবরস্থান পরিচালনা কমিটির দায়িত্বশীল ব্যক্তি আবছার কামাল সুমন জানান, ভূমিদস্যু বাদশা মিয়া কবরস্থানের বিশাল জায়গা অবৈধভাবে দখল করে নিয়েছে। এমনকি তার ঘরের ভিতরেও কম হলেও ৩০টি মতো কবর চলে গেছে। কমিটি সীমানা দেয়াল দিতে গেলে বাদশা মিয়া বাধা দেয়। বিএস খতিয়ানসহ কিছু ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে জায়গাটি তার বলে দাবি করে। অথচ তার নামে মহেশখালীর কোথাও বিএস খতিয়ান পর্যন্ত নেই।

যুবলীগ নেতা সাজ্জাদ হোসেন রাজু ও আওয়ামী লীগ নেতা মুকছুদ আলম অভিযোগ করেন, এলাকার লোকজন কবরস্থানের সীমানা দেয়াল দিতে গেলে তাদের হামলা করে ভূমিদস্যু বাদশা মিয়া। উপরের ক্ষমতার প্রভাব দেখিয়ে সবাইকে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়। এর অংশ হিসেবে সম্পূর্ণ মিথ্যা ও সাজানো একটি অভিযোগ দায়ের করে থানায়। মূলত একটি টাউট শ্রেণির রাজনৈতিক শক্তির ইন্ধন ও অনৈতিক প্রভাব দেখিয়ে ভূমিদস্যু বাদশা মিয়া কবরস্থানের জায়গা জবর দখল করে রাখার অপচেষ্টা করছে।

বৃহত্তর খোরশা পাড়া সমাজ কমিটির সভাপতি কবির আহামদ বলেন, ‘বাদশা মিয়া যে জায়গা জবর দখল করে নিয়েছে তা সম্পূর্ণ করবস্থানের জায়গা। সেখানে অনেক মানুষকে সমাহিত করা হয়েছে। আমারা আমাদের দীর্ঘ বয়সে তা দেখে এসেছি। কিন্তু ভূমিদস্যু বাদশা অদৃশ্য ক্ষমতার দেখিয়ে কবরস্থান দখলের মতো জঘন্য অপচেষ্টা করছে। কিন্তু এলাকার মানুষ কোনোভাবেই তা হতে দেবে না।’

স্থানীয়রা জানান, কবরস্থানের জায়গা দখল করে তৈরি করা বাড়িতে জুয়ার আস বসায় বাদশা। সেখানে ইয়াবা, মদসহ নানা অপকর্মও চলে প্রতিনিয়ত। এতে কবরস্থানের পবিত্রতা নষ্ট হওয়ায় আশেপাশের লোকজন বারণ করলে উল্টো তাদেরকে মিথ্যা মামলাসহ নানাভাবে হুমকি দেয় বাদশা।

কবরস্থান পরিচালনা কমিটির দায়িত্বশীল ব্যক্তি শাহওনেয়াজ সালাহ উদ্দীন টিপ চৌধুরী বলেন, ‘এলাকার মানুষ কবরস্থানের জমিতে সীমানা দেয়াল নির্মাণ করতে গেলে ভূমিদস্যু বাদশা তার লোকজন নিয়ে হামলা চালায়। কিন্তু থানায় এলাকার মুরুব্বী ও কবরস্থান পরিচালনা কমিটির লোকজনের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে। একই সাথে পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করিয়েছে। কিন্তু সেখানে কবরস্থান ও লোকজনের বিষয় উল্লেখ্য করেনি প্রতারক বাদশা। বলেছে আমরা কয়েকজন ব্যক্তিগতভাবে তার জায়গা দখলের চেষ্টা করছি। আমরা বাদশা কর্তৃক কবরস্থানের জায়গা দখল ও পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এ ব্যাপারে পুলিশসহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষে তদন্ত করে ব্যবস্থার অনুরোধ করছি।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •