শীর্ষ সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ডন ভুলু ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

ইমাম খাইর, সিবিএনঃ
কক্সবাজার শহরের পাহাড়তলি এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ডন ছৈয়দুল মোস্তফা প্রকাশ ‘ভুলু’র গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
সোমবার (১৩ মে) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে কক্সবাজার শহরের কাটা পাহাড় এলাকা থেকে আলোচিত এই সন্ত্রাসীর গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয় বলে জানা গেছে।
এ সময় ৪০০ ইয়াবা, একটি এলজি, দুই রাউন্ড তাজা কার্তুজ ও ৬ টি খালি খোসা উদ্ধার করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।
মঙ্গলবার ভোর সাড়ে চারটার দিকে এ রিপোর্ট লেখাকালে নিহতের মরদেহ কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।
সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ডন ছৈয়দুল মোস্তফা প্রকাশ ‘ভুলু’ কক্সবাজার শহরের পাহাড়তলী এলাকার হাজি জহির আহমদের ছেলে। তার বিরুদ্ধে মাদক, অস্ত্রসহ বিভিন্ন অভিযোগে মামলা রয়েছে বলে জানা গেছে।
কক্সবার সদর মডেল থানার ওসি মোঃ ফরিদ উদ্দিন খন্দকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সিবিএনকে জানিয়েছেন, শীর্ষ সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ডন ছৈয়দুল মোস্তফা প্রকাশ ‘ভুলু’কে নিয়ে কাটা পাহাড়ে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে গেলে তার বাহিনীর সন্ত্রাসীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে সে গুলিবিদ্ধ হয়। হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ‘মৃত’ ঘোষণা করে।
পুলিশের খাতায় ছৈয়দুল মোস্তফা ‘ভুলু’ মোস্ট ওয়ান্টেড আসামি ছিল। একটি প্রভাবশালী মহলকে ম্যানেজ করে এতদিন ধরে সে আত্মরক্ষা করে চলেছিল। কক্সবাজার শহরের পূর্ব পাহাড়তলীসহ বিভিন্ন এলাকায় তার সশস্ত্র শক্তিশালী বাহিনী রয়েছে। গড়ে তোলে মাদকের সাম্রাজ্য।
দীর্ঘদিন ধরে সন্ত্রাসী ও মাদক ডন ভুুলুকে হন্য হয়ে খুঁজছিল পুলিশ। অবশেষে গোয়েন্দা সোর্সের ভিত্তিতে সোমবার দিবাগত রাতে নিজ এলাকা থেকে আলোচিত সন্ত্রাসী ভুলুকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশ। তবে, তার বাহিনী নিয়ন্ত্রণ করে এমন অনেক ওয়ান্টেড সন্ত্রাসী পাহাড়তলী এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করে বলে স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছে। সব সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে শহরবাসী। এদিকে, ভুলুর মৃত্যুর সংবাদে কিছুটা হলেও স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে স্থানীয় বাসিন্দারা।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, সৈয়দুল মোস্তফা প্রকাশ ভুলু ৫-৬ বছর আগে পাহাড়তলীতে সর্বপ্রথম প্রকাশ্য ইয়াবা ব্যবসা শুরু করে। প্রশাসন অভিযান চালালেও ধরা পড়েনি। নিরাপদে চলছিল ভুলুর মাদক ব্যবসা। ছেলের ইয়াবার পরশে পিতা জহির হাজি বর্তমানে কোটিপতি। বর্তমানে পাহাড়তলীতে তার তিনতলা বাড়ি গড়ে উঠেছে। নগদ টাকাসহ অনেক সহায় সম্পদ রয়েছে ইয়াবা গডফাদার ভুলুর।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একজন সমাজসেবক জানিয়েছে, জহির হাজি মিয়ানমারে বাসিন্দা ছিল। ১৯৯০ সালের দিকে প্রথম বাংলাদেশে আসে। ভুলুসহ তার অনান্য ছেলেরা বেশির ভাগই মাদক ব্যবসায়ি ও মাদকাসক্ত। তাদের কারণে পাহাড়তলীর অনেকে মাদকে জড়িয়ে পড়েছে। প্রতিবেশীরা জানিয়েছে, মাদকের টাকায় নির্মিত ভুলুর আলিশান বাড়ির তৃতীয় তলায় থাকে তার মা। দ্বিতীয় তলায় থাকে প্রথম স্ত্রী এবং নিচতলায় থাকে দ্বিতীয় স্ত্রী। তার স্বজনেরাও ইয়াবার কল্যাণে লাখপতি।

সর্বশেষ সংবাদ

শিশুর অধিকার ও মায়ের ভালোবাসা

ভারুয়াখালী -পিএমখালী সংযোগ সেতু স্থাপনের দাবিতে হাজারো মানুষের মতবিনিময়

হেলালুদ্দিন আহমদের মায়ের ইন্তেকাল, শনিবার বাদে আছর জানাজা

শাহ সুফি নুরুল আমিন (রহঃ) চিশতিয়া হেফজখানা ও এতিমখানা পরিচালনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

ঈদগাঁও ভাদীতলা-শিয়াপাড়া যাতায়াত সড়কের মরণ দশা: জনদূর্ভোগ চরমে

‘শেখ হাসিনা মানবসেবা ও মানবিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় নিরলস প্রয়াস চালাচ্ছেন’

এডঃ অনিল বড়ুয়ার মাতার মৃত্যুতে জেলা আইনজীবী সমিতির শোক প্রকাশ

মগনামায় এক কিলোমিটার সড়ক সংস্কারে দুঃখ ঘুচলো হাজার শিক্ষার্থীর

কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার- ৭

লেখালেখিতে আগ্রহী ১০৩ তরুণ-তরুণী

পর্যটন ও শুটিং স্পট বরিশালের ৩০ গোডাউন

প্রেমের টানে বাংলাদেশে ঘর বাঁধলেন ইন্দোনেশিয়ান তরুণী

কমবার সম্পাদক উত্তম পালের মা লক্ষ্মী রাণী পালের পরলোক গমন, শোক

কমতে শুরু করেছে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা

প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যর্থ সৌদি আরব, অনাহারের হুমকিতে লাখ লাখ ইয়েমেনি

উন্নয়ন ও মুনাফার বলি ‘পৃথিবীর ফুসফুস’ অ্যামাজন

গণহত্যার স্পষ্ট আলামত, মিয়ানমারকে বিচারের মুখোমুখি করতে তৎপর জাতিসংঘ

কাশ্মিরে একদিকে বিক্ষোভের ঘোষণা, অন্যদিকে কারফিউ জারি

রোহিঙ্গা সমস্যায় মিয়ানমারের দায়বদ্ধতা নিশ্চিতে তিন মেকানিজম

জেলায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে জন্মাষ্টমী উৎসব উদযাপন