ফারুক আহমদ, উখিয়া :

উখিয়ার রত্মপালংস্থ তেলী পাড়া গ্রামের সাহাব উদ্দিন নামক এক যুবককে অপহরনের ৭ দিন পরও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। অপহরন চক্রের সদস্যরা ৩০ লক্ষ টাকা মুক্তিপন দাবী করেছেন বলে জানান অপহ্নত যুবকের পিতা আব্দুল হাকিম। পুত্র উদ্ধার ও সন্ধানে পিতা-মাতা সহ আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে কান্নার রোল পড়েছে। তবে এলাকা বাসীরা জানান, সাহাব উদ্দিন ও তার ভাই আবুল কালাম ইয়াবার গড ফাদার। এ নিয়ে চলছে নানা কানাঘোষা।

গত রবিবার এ প্রতিবেদক ঘটনা অনুসন্ধানে বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় পিতা-মাতা ভাই-বোন সহ সবাই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছে। অপহরণ কারীরা ফোন করে জানান, মুক্তিপনের টাকা না দেওয়ায় সাহাব উদ্দিনকে মেরে ফেলা হয়েছে। এ খরব শুনে মা অজ্ঞান হয়ে পড়লে তাকে তাৎক্ষনিক কক্সবাজার হাসপাতালে নেওয়া হয়।

পিতা বয়োবৃদ্ধ আব্দুল হাকিম জানান, চট্টগ্রামে একটি স্টীল খারখানায় তার ছেলে সাহাব উদ্দিন চাকুরী করে। গত মঙ্গলবার তিনি সোনার পাড়াস্থ বোনের বাড়ীতে রাত যাপন করে। পরের দিন বিকেলে সাহাব উদ্দিন নিজ বাড়ীতে আসে। কে বা কারা ফোন করে ছেলেকে তুলে নিয়ে যায়। ওই দিন রাতে আমার ছেলের মোবাইল ফোন থেকে সন্ত্রাসীরা ৩০ লক্ষ টাকা মুক্তিপন নিয়ে টেকনাফের মোছনির শালবন পাহাড়ের ৭ নং ঘাটে আসতে বলে। অন্যথায় তোমার ছেলেকে জীবিত পাওয়া যাবে না বলে হুমকি দেয়।

এদিকে, গ্রামবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, সাহাব উদ্দিন চট্টগ্রামে একটি স্টীল কারখানায় শ্রমিকের চাকুরী করলেও বছর দুই’য়েক মধ্যে হঠাৎ পরিবর্তন হয়। জমি ক্রয় থেকে শুরু করে প্রাইভেট কার নিয়ে চলা ফেরা তার। এছাড়াও কয়েকটি গাড়ির মালিক এবং নিজ গ্রামে বহুতল ভবনের প্রসাদ নির্মাণ শুরু করে। অপর বড় ভাই আবুল কালাম কক্সবাজার শহরে ফ্ল্যাট বাড়ী নিয়ে সপরিবার নিয়ে বসবাস করছে। গ্রামবাসীর মতে, নুন আনতে পানতা পুরায় এমন পরিবারে হঠাৎ আলা দিনের চেরাগের মত আবির ভাব নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নানা কানাঘোষা চলে আসছিল।

খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়, মূলত সাহাব উদ্দিন চট্টগ্রাম ভিত্তিক ও বড় ভাই আবুল কালাম কক্সবাজার ভিত্তিক ইয়াবা পাচারে জড়িত তাদের নেতৃত্বে বিশাল সিন্ডিকেট রয়েছে। অপর দু’ভাই শাহ জাহান ও মনজুর উখিয়া ভিত্তিক ইয়াবা পাচারে জড়িত। সরকারী গোয়েন্দা সংস্থা তদন্ত করলে আসল রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন সচেতন মহল।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ইয়াবা পাচার ও টাকা লেনদেনের ঘটনা নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা কৌশলে অপহরণ করে তাকে টেকনাফের পাহাড়ে আত্মগোপন করে রেখেছে।

অপহ্নত সাহাব উদ্দিনকে উদ্ধার করার জন্য আইন-শৃংখলা বাহিনীর নিকট প্রতিদিন র্ধনা দিচ্ছে বলে জানিয়ে পিতা আব্দুল হাকিম বলেন, আমার ছেলের বিরুদ্ধে ইয়াবার অভিযোগ সত্য নয়। দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, আইনশৃংখলা বাহিনী গত শনিবার থেকে টেকনাফের মুছনি শালবন পাহাড়ে সাহাব উদ্দিনকে উদ্ধারের জন্য অভিযান পরিচালনা অব্যাহত রেখেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •