সংবাদদাতা:
দীর্ঘদিনের নিজের মালিকানাধীন জমি দখলে নিতে কক্সবাজার সদরের খুরুশকুলে এহছান উল্লাহ (৪০) নামের ব্যক্তিকে কুপিয়ে-পিটিয়ে মারাত্মক জখম করেছে দখলবাজ ও স্বশস্ত্র সন্ত্রাসীরা। তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে মূমূর্ষ অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে কর্তব্যরত চিকিৎসক। বর্তমানে তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
গত ২৭ এপ্রিল সকাল সাড়ে ১১টার দিকে খুরুশকুল ফকিরপাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। ভিকটিম এহছান উল্লাহ ওই এলাকার মৃত বশির আহমদের ছেলে। এ ঘটনায় এজাহারনামী ৪জনসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৬ জনের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় মামলা হয়েছে। মামলা নং-১০৫/২০১৯।
গত ২৮ এপ্রিল ভিকটিম এহছান উল্লাহ নিজেই বাদি হয়ে মামলা করেন। এতে এজাহারভুক্ত চারজন আসামী হলেন- ফকিরপাড়ার মৃত মো. সিকান্দরের ছেলে মো. সাকিব (২২), রহমত উল্লাহ (৪৫), রহমত উল্লাহর স্ত্রী শাহেনা আক্তার প্রকাশ শানু (৪০) এবং ফরিদুল আলমের স্ত্রী তসলিমা আকতার (৩০)। এজাহারনামীয় দুই নম্বর আসামী রহমত উল্লাহকে ২৮ এপ্রিল গ্রেফতার করেছে সদর থানা পুলিশ। অন্যান্য আসামীরা পলাতক।
মামলার এজারসুত্রে জানা গেছে, খুরুশকুল ইউনিয়ন পরিষদের সামনে তথা ফকিরপাড়াস্থ নিজস্ব মালিকানাধীন জমিতে অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করতে যায় চিহ্নিত স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী ও দখলবাজরা। তাদের বাঁধা দেয়ায় জমির মালিক এহছান উল্লাহকে এলোপাতাড়ি কুপাঘাত ও মারধর করতে থাকে প্রতিপক্ষরা। এতে এহছান উল্লাহ রক্তাক্ত হয়ে মাটিড়ে পড়ে যান। জখমপ্রাপ্ত হয় সারাশরীর। স্থানীয় লোকজন তাকে দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।
ভিকটিম এহছান উল্লাহ জানান, খুরুশকুল মৌজার বিএস খতিয়ান নং-১৭৪৬, সৃজিত খতিয়ান নং-৫৬০১, ৫৬০২, বিএস দাগ নং-৮৭৯৭, ৮৭৯৯, ৮৮৯১ এর ১.২৭ একর জমি পৈত্রিকভাবে তিনি মালিক। ওই জমিতে দীর্ঘদিন ভোগ দখলে আছেন। সম্প্রতি তাদের জায়গা দখলে নিতে একটি চক্র মরিয়া হয়ে উঠে। জোরপূর্বক গৃহ নির্মাণের চেষ্টা ছালায়। তাতে বাঁধা দিতে গিয়ে হামলার ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে। ঘটনার সুষ্ট তদন্তপূর্বক জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেছেন মামলার বাদি এহছান উল্লাহ।
এ প্রসঙ্গে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মোহাম্মদ খায়রুজ্জামান জানান, ঘটনার বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে ভিকটিম নিজেই বাদি হয়ে একটি এজাহার দায়ের করেন। এটি যাচাই করে নিয়মিত মামলা হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এ মামলার একজন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনার সঠিক তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •