এম বশির উল্লাহ, মহেশখালী :

মহেশখালীতে পুলিশের সাথে সন্ত্রাসীদের গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১০টায় উপজেলার শাপলাপুরের গলাছিরা নামক স্থানে এই ঘটনা ঘটে। এতে অস্ত্র সহ ২ জনকে আটক করে পুলিশ।

মহেশখালী থানার ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর জানান, গত শনিবার রাত দশটার  সময় গোপন সংবাদে জানতে পারে,  শাপলাপুর ইউনিয়নের গলাছিড়া কালভার্টের পশ্চিম পাশর্স্থ পাহাড়ে জঙ্গল হইতে অবৈধ অস্ত্রশস্ত্র সহ ডাকাতির প্রস্তুতি গ্রহণ করছে একদল ডাকাত। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌছলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতেরা এলোপাতাড়ীভাবে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি বর্ষণ করিতে থাকে এসময় পুলিশ ও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি বর্ষণ করিলে তখন ডাকাত ও পুলিশের মধ্যে ৩০ মিনিট ব্যাপী গুলি বিনিময় হয়।

ডাকাতরা ৩০০/৪০০ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করেন। পুলিশ আত্মরক্ষার্থে ৪৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। এক পর্যায়ে অবস্থা বেগতিক দেখে ডাকাতেরা পাহাড়ের জঙ্গলের ভিতর দিয়ে পালানোর সময় রাত ১০:৩০ ঘটিকায় পুলিশ দূর্ধর্ষ ডাকাত মোঃ হোছন(৩৭), পিতা-মৃত ছলিম উল্লাহ ছলু, সাং-ফকিরাঘোনা, বড়মহেশখালী, ২। লেদু মিয়া(৩৯), পিতা-ছদর আমিন, সাং-কালাগাজীর পাড়া, হোয়ানককে আটক করে।

এই সময় তাদের কাজ থেকে ১টি দেশীয় তৈরী এলজি ও তার বাম হাতে থাকা শপিং ব্যাগ থেকে আরও ৩টি এলজি ও ৪ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করেন। অপর দিকে ডাকাত লেদু মিয়ার ডান হাত থেকে ১টি দেশীয় তৈরী এলজি ও তার বাম হাতে থাকা প্লাষ্টিকের শপিং ব্যাগে মোড়ানো অবস্থায় থেকে ৪টি কার্তুজ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ সেই এলাকায় তল্লাশী চালিয়ে আরও ৮টি গুলির খোসা উদ্ধার করেন।

পুলিশ জানায় এই দুর্ধর্ষ ডাকাতেরা দীর্ঘদিন যাবৎ মহেশখালী, কুতুবদিয়া, চকরিয়া থানা এলাকায় ডাকাতি, মানব পাচার, অস্ত্র ক্রয়-বিক্রয় সহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধ করিয়া আসিতেছে। তারা অস্ত্র তৈরীর কারিগর বলে পুলিশ দাবী করে।

আটককৃতদের বিরুদ্ধে ২টি মারামারি, ২টি অস্ত্র এবং দুর্ধর্ষ ডাকাত লেদু মিয়ার এর বিরুদ্ধে ০৩টি হত্যা মামলা রহিয়াছে। এই ঘটনায় মহেশখালী থানার মামলা নং-৩২, তারিখ : ২৮/০৪/২০১৯খ্রিঃ, ধারা-১৮৭৮ সনের অস্ত্র আইনের ১৯- এবং মহেশখালী থানার মামলা নং-৩৩, তারিখ ঃ ২৮/০৪/২০১৯খ্রিঃ, ধারা-৩৯৯/৪০২ দঃবিঃ রুজু করা হইয়াছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •