চকরিয়া সংবাদদাতা:
চকরিয়ায় দুই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাঝ প্রান্তে নির্মাণ হচ্ছে অবৈধ করাতকল। চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক কিনারায় নির্মাণাধীন এ করাতকলের কোনপ্রকার অনুমোদন নেই বলে জানা গেছে। উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ইসলামীয়া দাখিল মাদ্রাসা ও কলেজিয়েট ইনস্টিটিউট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পঞ্চাশ মিটার অদূরবর্তী মাহাসড়ক সংলগ্ন এলাকায় নির্মাণ হচ্ছে এ করাতকলটি।
স্থানীয়দের অভিযোগ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দুটিসহ নিকটবর্তী অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীরা যাওয়া-আসা এ মহাসড়ক দিয়ে, এছাড়া পর্যটন নগরী কক্সবাজার যাওয়া আসায় চলাচল করছে শতশত দুর পাল্লার যানবাহন, প্রতিদিন বেচাকেনা করতে নিকটবর্তী বাজারে যাতায়াত করছে হাজারো স্থানীয় জনসাধারণ। অপরদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিকটবর্তী করাতকলটি হওয়ায় ছাত্রছাত্রী যাতায়াতসহ প্রবল শব্দে পাঠদানে ব্যঘাত হবে বলে দাবী করেন অভিভাবকরা। জানাগেছে ডুলাহাজারা ইউনিয়নের রংমহল এলাকার বাসিন্দা আক্তার হোসেন নামের ব্যক্তি এ করাতকলটি নির্মাণ করছে। মহাসড়ক কিনারায় এটির অবস্থান হওয়ায় গাছ বুঝাই যানবাহন করাতকলে প্রবেশ-বাহির হতে মারাত্মক দুর্ঘটনার আশংকা করা হচ্ছে।
তবে রহস্যজনক কারণে এ নিয়ে কোনপ্রকার তদারকির দেখা মিলছে না সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের। জানতে চেয়ে করাতকলের মালিক আক্তার হোসেনের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে ফোন রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। এরকম কোন প্রকার করাতকলের অনুমোদন নাই বলে জানায় সংশ্লিষ্ট বন বিভাগ।
কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম বলেন, ইতোমধ্যে ডুলাহাজারায় দুই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যবর্তী এলাকায় কোন প্রকার করাতকলের অনুমোদন দেওয়া হয়নি। বিষয়টি যাচাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।
এ ব্যাপারে মালুমঘাট হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক আলমগির হোসেন জানায়, করাতকল নির্মাতাদের মহাসড়ক থেকে নির্ধারিত দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হয়েছিল। বিষয়টি আরো খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •