আহমদ গিয়াস :
কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ও পাহাড়ে প্রকৃতি পাঠের আসরের মাধ্যমে সোমবার ২২ এপ্রিল বিশ্ব ধরিত্রী দিবস পালন করেছে পরিবেশবাদী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘নেচার কনজারভেশন ও রিসার্চ ফাউন্ডেশন (এনসিআরএফ)। অনুষ্ঠানের এক আলোচনা সভায় বক্তারা মানুষের অস্তিত্বের স্বার্থে পাহাড় ও বন তথা প্রকৃতি সংরক্ষণের উপর গুরুত্ব দেন।
সোমবার বিকালে শহরের দরিয়ানগর সৈকতে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী মোঃ ইলিয়াছ মিয়া। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা, প্রকৃতি ও পরিবেশ সংরক্ষক সাংবাদিক আহমদ গিয়াস।
ফাউন্ডেশনের সহকারী সাংগঠনিক সেক্রেটারী উলফাতুল মোস্তফা রানার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আরো অংশ নেন সংগঠনের সদস্য যথাক্রমে মোঃ আমের, মিনহাজুল ইসলাম, আবু বক্কর সাদ, রফিকুল ইসলাম বাপ্পী, জাহেদুল ইসলাম, এমদাদুল ইসলাম, রিফাত হাসান তুহিন, রবিউল আলম, মাহতাব উদ্দিন তামজাদ, মোহাম্মদ ফাহাদ, তারেক উল্লাহ, মনিরুল কাদের প্রমুখ।
সভায় প্রধান অতিথি পবিত্র পরিবেশ রক্ষায় পবিত্র কোরআনের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, বিশ্বের কোন কিছুই আল্লাহ বিনা কারণে সৃষ্টি করেন নি। অর্থাৎ প্রকৃতির ভারসাম্যের জন্যই প্রতিটি সৃষ্টির গুরুত্ব অপরিসীম।
তিনি কক্সবাজার বঙ্গোপসাগর তীরের পাহাড়গুলোকে সৃষ্টিকর্তার দেয়া ‘কক্সবাজারের রক্ষা কবচ’ আখ্যায়িত করে বলেন, এখানকার মানুষের অস্তিত্বের স্বার্থে বন, পাহাড় ও সমুদ্র সৈকত রক্ষা করা দরকার। কক্সবাজারে সমুদ্র সৈকত ও পাহাড়ী বনাঞ্চল না থাকলে কেউ এখানে বেড়াতে আসবে না।’
সভাপতির বক্তব্যে মোঃ ইলিয়াছ মিয়া বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য প্রকৃতি ধ্বংস দায়ী। শিল্পায়নের ফলে যে কার্বন নিঃসরণ হচ্ছে তাতে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি সবাইকে অধিক হারে গাছ লাগিয়ে পরিবেশ রক্ষার আহবান জানান।
আলোচনা সভা শেষে সংগঠনের সদস্যরা প্রস্তাবিত দরিয়ানগর অভয়ারণ্যে পাখি পর্যবেক্ষণ করেন। এসময় তারা স্থানীয়দের অংশগ্রহণে অভয়ারণ্য বাস্তবায়নের দাবি জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •