সংবাদদাতা:
কক্সবাজারের উখিয়ার পশ্চিম সোনার পাড়ায় মৃত আবু সমা প্রকাশ বার্মাইয়া বাটু মাঝির সন্ত্রাসী ছেলেদের হামলায় মোঃ শামীম (২৭) নামের স্থানীয় যুবক ছুরিকাহত হয়েছে। এ এছাড়াও আহত হয়েছেন আরও ৪ জন স্থানীয় বাসিন্দা।

শামীমকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। পরে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত অন্যান্যদের চিকিৎসা চলছে।

সোমবার (২২ এপ্রিল) বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে।

ঘটনায় জড়িতরা হলো- আবু সমা প্রকাশ বাটু মাঝির ছেলে চিহ্নিত সন্ত্রাসী আব্দুল মাজেদ, আব্দুল জলিল প্রকাশ কালু, গুরায়া, আব্দুল গফুর, আব্দলু খালেক প্রকাশ জলটিয়া, হামিদা, আব্দুল হামিদ।

ঘটনার বিষয়ে সত্যতা স্বীকার করে উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের বলেন, আমাদের কাছে এখনো কোন অভিযোগ আসেনি। তবে সোনার পাড়ায় একটি মারামারির ঘটনা আমরা জেনেছি।

ঘটনার খবর পেয়ে ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির একদল পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তবে এ ঘটনায় জড়িত কেউ আটক হয়নি।

জালিয়া পালং ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নং ওয়ার্ডের সদস্য রফিক বলেন, আমি ঘটনার সময় ছিলাম না। তবে উপস্থিত লোকজন থেকে জেনেছি। বেশ কয়েকদিন আগে বাটু মাঝির এক ছেলে স্থানীয় মৃত জাফর আলমের স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করে আসছিলো। সোমবার সন্ধ্যার দিকে তাদের বাড়ির পাশে হঠাৎ এসব বিষয়ে দুইগ্রুপের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে জাফরের পুত্র ও তাঁর স্ত্রীর উপর বার্মাইয়া বাটু মাঝির সন্ত্রাসী ছেলে ও সাঙ্গপাঙ্গরা দলবল নিয়ে হামলা করে এবং শামীমের বুকের মধ্যে তারা ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করে।

আবু সমা প্রকাশ বাটু মাঝি মিয়ানমারের বাসিন্দা। ১০/১৫ বছর আগে বাংলাদেশে এসে কৌশলে ভোটার তালিকাভুক্ত হয়ে যায়। তবুও ‘বার্মাইয়া বাটু মাঝি’ হিসেবে তাকে সবাই চেনে।

আহত শামীমের মামা মুফিজুর রহমান বলেন, বাটু মাঝির ছেলে সন্তানরা পাঁচ দিন ধরে আমার বোনকে উত্ত্যক্ত করে আসলে আমার ভাগিনা তার প্রতিবাদ করেন। এর জের ধরে বার্মাইয়া বাটু মাঝির ছেলেদের সঙ্গে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে শামীমকে ছুরিকাঘাত করে সালাম প্রকাশ গুরাইয়া।

তিনি বলেন, আমার বোন ও ছৈয়দ হোছনকে তারা লাঠিসোঠা নিয়ে হামলা করে। তারাও শারীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হামলায় আহত শামীমকে হাসপাতালে পৌঁছানোর পর মাজেদ নামের বাটু মাঝির পুত্র যখন পুনরায় অশ্লীল গালিগালাজ করছে। তখন স্থানীয় জনতা তাকে পিটুনি দেয়।

স্থানীয় সুত্রে আরো জানা যায়, দীর্ঘদিন আগে আবু সমা প্রকাশ বাটু মাঝি স্বপরিবারে বাংলাদেশে চলে আসে। উখিয়ার পশ্চিম সোনার পাড়া এলাকায় স্থানীয়দের সাথে লিয়াজো করে চলছে।

বেশ কয়েক বছর ধরে বাটু মাঝির পরিবারের সদস্যরা মাদক ব্যবসা থেকে শুরু করে নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়ে। এমন কোন অনৈতিক কাজ নেই যা তারা করেনা। এমনকি মানবপাচার, সাগরে দস্যুতা, ডাকাতি, যাকে তাঁকে হামলাসহ নানাবিধ অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

তাদের বিরুদ্ধে উখিয়া থানায় মাদক, ডাকাতি, মানবপাচারসহ বেশ কয়েকটা মামলা চলমান আছে।

প্রায় সময় জেলে ঢুকে আর বের হয়। বলতে গেলে তাদের জন্য অপরাধ কাজে জড়ানোটা স্বাভাবিক একটা বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এলাকাবাসী বার্মাইয়া বাটু মাঝির ছেলেদের কারণে অতিষ্ট হয়ে গেছে। চিহ্নিত বার্মাইয়া পরিবারটিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সরিয়ে নেয়ার দাবি ভুক্তভোগী ও এলাকাবাসীর।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •