অনলাইন ডেস্কঃ

আমার আর বৈশাখ ভালো লাগে না, বাংলাদেশ। আমার বোন ধর্ষণ হয়, ধর্ষকরা মিছিল করে, কেরোসিন নিয়ে অগ্নুৎসোব করে। সেই খুনীদের বাঁচাতে চায় যে ব্যবস্থা সেই ব্যবস্থায় আমার আনন্দ শোভাযাত্রার নাম শোকমিছিল। আমার ভাই-বোন অনিরাপদ রাস্তা ঘাটে মরে পড়ে থাকে, আর খুনীদের হাসি দেখে আমাকে ঘুমোতে যেতে হয়। আমার ভাইকে রাস্তা থেকে খালি পকেটে ধরে সেই পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে তাদের কাছ থেকে জমি বেঁচে টাকা উদ্ধার করা হয়। ন্যায়ের কথা বললে আমার রুটিরুজি, জীবনধারণ, পারিবারিক নিরাপত্তা বিঘ্নিত হয়। আমার চারপাশে সন্ত্রাসী, দুর্নীতিবাজদের আমাকে স্যার ডাকতে হয়। বিচার, আইন, সুশাসন শুনলে আমার কাছে কেমন যেন স্বপ্ন স্বপ্ন মনে হয়।

আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সন্ত্রাসী আর মেরুদন্ডহীন শিক্ষকদের নয়ছয় সহ্য করে আমাকে তাদেরকেই স্যার ডাকতে হয়। ইদানিং আমি খুব ধর্ষিত, অপমানিত বোধ করি বাংলাদেশ, আমি খুব পরাধীন বোধ করি। আমাকে বলতে দেওয়া হয় না, আমার কথা শোনা হয় না, এ কি নির্বাক অসহ জীবন আমার!

আমি তো বঙ্গবন্ধুকেই ভালোবেসেছিলাম বাংলাদেশ, তাহলে আমার স্বাধীনতা এমন হলো কেন? আমি তো মুক্তিযুদ্ধেই গিয়েছিলাম বাংলাদেশ, তারপরও আমি এত পরাধীন হলাম কেন? আমার চারপাশে মিথ্যুক, ভন্ড ও অন্যায়কারীদের এত আস্ফালন কেন?

আমার জীবনে বৈশাখের দরকার নাই, কালবৈশাখী ঝড়ের দরকার..

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •