সিবিএন ডেস্ক :
বিএনপিসহ অধিকাংশ দলের বর্জনের মধ্য দিয়ে চলমান উপজেলা নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি কমে আসায় স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন বাতিলের বিষয়ে চিন্তা করছে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারক পর্যায়ের বৈঠকে এই প্রস্তাব উঠেছে বলে দলের শীর্ষ পর্যায়ের একাধিক নেতা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন।স্থানীয় সরকার (উপজেলা) (সংশোধন) বিল-২০১৫ এ বলা হয়েছে, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও দুটি ভাইস চেয়ারম্যান (সাধারণ ও সংরক্ষিত) পদের নির্বাচনের জন্য প্রার্থীকে রাজনৈতিক দল কর্তৃক মনোনীত অথবা স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে হবে।
আইনটি পাস হওয়ার পর ২০১৭ সালের মার্চে প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে ভোট হয় উপজেলায়। এর দুই বছর পর এবার পঞ্চম উপজেলা পরিষদের ভোট শুরু হয়েছে ৯ মার্চ।তবে এই নির্বাচনে ভোটারের উপস্থিতি সর্বশেষ ৩৬ শতাংশ হয়েছে, যা নিয়ে আলোচনা চলছে রাজনৈতিক অঙ্গনে। ভোটারদের মাঝে নির্বাচনে আস্থাশীল করার পরামর্শও আসছে।
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য মাহাবুব-উল- আলম হানিফ বৃহস্পতিবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় প্রতীক না রাখলে কেমন হয় এই বিষয়ে তৃণমূলের মতামত নিচ্ছি। আমাদের কার্যনির্বাহী বৈঠকে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।” ক্ষমতাসীন দলের আরেকজন শীর্ষ পর্যায়ের নেতা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সম্পাদকম-লীর সভায় এই বিষয়ে কথা হয়েছে, কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় বিষয়টা তোলা হবে।”
তিনি বলেন, “ভোটার উপস্থিতি একেবারেই কমে যাচ্ছে। স্থানীয় নির্বাচনে দলীয় প্রতীক না দিয়ে উন্মুক্ত রাখলে ভোটের আমেজ তৈরি হবে। তাই আমরা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে কাউকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন না দেওয়ার পক্ষে।” চলতি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে কোনো দলীয় প্রার্থী দেয়নি আওয়ামী লীগ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •