সংবাদ বিজ্ঞপ্তিঃ

পেকুয়ায় ২৮ বছর পর সাবেকুন্নাহার জানালেন তার পিতা কে? শীর্ষক প্রকাশিত সংবাদ ১ এপ্রিল সোমবার দৈনিক কক্সবাজার-৭১ পত্রিকাসহ বিভিন্ন অনলাইন ও বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। উক্ত সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদটি মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। কাল্পনিক ওই সংবাদটি তথ্যের বিভ্রাট ঘটিয়ে একটি দুষ্টচক্র মহিলাকে নিয়ে নষ্টামি করার চেষ্টায় মেতেছে। ডাহা মিথ্যা ও রং ছিটানো এ সংবাদটি দেশ, সমাজ ও রাষ্ট্রকে মিথ্যা তথ্য সরবরাহ দিয়ে অসত্যকে জায়েজ করার কু-পরিকল্পনায় লিপ্ত রয়েছে। প্রকৃতপক্ষে এ সংবাদ ও মহিলা সম্পর্কিত বিষয় সম্পূর্ন সাজানো নাটক। এ সম্পর্কে কাউকে বিভ্রান্ত না হতে আমরা সবিনয় অনুরোধ করব। পাশাপাশি উক্ত সংবাদ প্রত্যাখ্যানসহ এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায়। সাবেকুন্নাহার নামক ওই মহিলাকে আমি চিনিওনা ও জানিওনা। তাকে আমি কোন সময় দেখিওনি। উল্লেখিত ওই মহিলার কোন অস্তিত্ব আমি খোঁজে পাইনি। তবে এ টুকু বিনয়ের সাথে বলব কোন মানুষের মান সম্মান ও মর্যাদা হানি করার এ অধিকার কোন মানবের নেই। পৃথিবীতে ধর্মের চেয়ে মানবতাই উত্তম। কারও হৃদয়ে আঘাত করা মানে খোদ সৃষ্টিকর্তাকে আঘাত করা। আপনি কোন মানবকে উপকার করতে পারলেন না। তবে তাকে আঘাত করার এ অধিকার কোন ধর্ম বিধিবিধান ও নীতি সম্মত নয়। বিষয়টি স্পষ্ট কারা দুষ্টচক্র। কারা মাদককে হ্যাঁ বলছে, সন্ত্রাসী নিয়ে কারা মানুষের জায়গা জমিতে দখলবাজি করছে। কে ইয়াবা ও অস্ত্রের যোগান দিচ্ছে। কার নেতৃত্বে আমাদের জায়গা জমি অস্ত্র নিয়ে দখল করেছে, কারা আমাকে গত কিছু দিন আগে আমিন বাজারে খুন করতে এসেছিল। কোন সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। এদের বিরুদ্ধে কেন একাধিক মামলা হয়েছে। এ সবের তদন্ত, ক্লু ও রহস্য উদঘাটন হলে সাবেকুন্নাহারের নাটকের অবসান ঘটবে। স্পষ্ট হবে এ মহিলা কোন শক্তির ইশারায় এ সব করছে। সম্মানিত পেকুয়া উপজেলাবাসী আমি গর্ববোধ করছি আমার অবস্থান রাজাখালীকে নিয়ে। আমি বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান ছিলাম। অন্যায় ও অবিচারের বিরুদ্ধে সব সময় প্রতিবাদ ও সোচ্চার ছিলাম। জুলুম ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে আমার সংগ্রাম ছিল বর্তমানেও আছে। কোন মাদক ব্যবসায়ীকে আমি সমাজের ভাল মানুষ বলব না। যারা সন্ত্রাসী দিয়ে এলাকার ভাল মানুষের জানমালের বিপর্যস্ত করবে যারা ইয়াবা বিক্রি করে রাতারাতি কোটিপতি হবে। ওই টাকা দিয়ে আমাকে হত্যার মিশন করবে। এদের সাথে আমার কোন আপোষ নেই। তারা এর চেয়ে আরও জঘন্য নাটক ও অপপ্রচার চালাতে পারে। আমার কিছু যায় আসে না। তারা চাই আমাদের পরিবারকে এলাকা থেকে বিতাড়িত করা। কৌশল মারাত্মক। জানমালের ক্ষতি করছে। পথেঘাটে হত্যার চেষ্টা চলছে। এরপর ওই চক্র সংবাদ পত্রে একটি গায়েবী মহিলাকে উপস্থাপন করেছে। আমার প্রশ্ন হচ্ছে যে মহিলা দাবী করছে তিনি ৬ সন্তানের মা। তার আত্ম পরিচয় ও জাতীয় পরিচয় এ সব মিমাংসিত। কোন নীতি ও আইন এসবকে সমর্থন করতে পারে। আমি নিশ্চিত আগামী নির্বাচনে আমাকে হেয় করার চক্রান্ত করছে। আমার পিতা তার সন্তানদের সুশিক্ষিত ও নৈতিক শিক্ষায় মানুষ করেছেন। রাস্তার মানুষ নয় আমরা। সুতারাং প্রকাশিত সংবাদ মিথ্যা বিদায় এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ করছি।

প্রতিবাদকারী
শাহাদাত আলী মাতবর
সাবেক চেয়ারম্যান, রাজাখালী ইউপি, পেকুয়া, কক্সবাজার।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •