মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনের সংসদ সদস্য শাহীন আক্তার চৌধুরী বলেছেন-দেশকে শতভাগ ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত করতে সরকার বদ্ধ পরিকর। এজন্য সরকার নিরলস ও পরিকল্পিতভাবে সারাদেশে একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। আগামী ২০২১ সালের মধ্যে দেশের সকল নারীদের স্বাবলম্বী করে তোলা হবে উল্লেখ করে এমপি শাহীন আক্তার চৌধুরী বলেন-একই সময়ে বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল রাষ্ট্রেও পরিণত হবে। সেই উন্নয়নশীল রাষ্ট্রের নাগরিক হিসাবে আমরা সকলে গর্ববোধ করতে পারবো ইনশাল্লাহ। শাহীন আক্তার চৌধুরী এমপি বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাঁকে এবং নবম ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাঁর স্বামী আলহাজ্ব আবদুর রহমান বদি’কে কক্সবাজার-৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত করায় উখিয়া-টেকনাফের সকল নাগরিকদের প্রতি তিনি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানান। “শেখ হাসিনার বাংলাদেশ-ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ” এই স্লোগানকে সামনে রেখে উখিয়া উপজেলার রত্নাপালং ইউনিয়নের ৩৫০০ জন মহিলা’কে ভিজিডি চাল বিতরণ কর্মসূচীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে এমপি শাহীন আক্তার চৌধুরী একথা বলেন। মঙ্গলবার ২ এপ্রিল সকালে উখিয়া উপজেলার ভালুকিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে রত্মাপালং ইউনিয়ন পরিষদের সফল চেয়ারম্যান খাইরুল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত বিরাট অনুষ্ঠানে উদ্বোধক হিসাবে বক্তৃতা করেন, একই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আবদুর রহমান বদি। মোহাম্মদ আলমগীরের সন্ঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তৃতা করেন-উখিয়ার ইউএনও মোঃ নিকারুজ্জামান চৌধুরী ও নব নির্বাচিত উখিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, বক্তৃতা করেন, রত্মাপালং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আসহাব উদ্দিন। অনুষ্ঠানের উদ্বোধক সাবেক এমপি আলহাজ্ব আবদুর রহমান বদি বলেন-সরকারিভাবে শুধুমাত্র ১৮০০ মহিলার জন্য ভিজিডি’র চাল বরাদ্দ করা হয়েছিল। আমি সংসদ সদস্যের ডিও লেটার দিয়ে বিশেষভাবে তদবির করে উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার জন্য ১২ হাজার করে মোট ২৪ হাজার মহিলার জন্য অতিরিক্ত ভিজিডি’র চাল বরাদ্দ এনেছি। তিনি বলেন-কথা দরকার নাই, সংসার চালানোর জন্য চাল দরকার। তাই একটু কষ্ট করে হলেও অতিরিক্ত বরাদ্দ এনেছি। এজন্য প্রতি ইউনিয়নে ১৮০০ জন মহিলার স্থলে ৩৫০০ জন মহিলা প্রত্যেকবার ৩০ কেজি ২ বছর ভিজিডি চাল পাবে। সভাপতি’র বক্তব্যে রত্মাপালং ইউনিয়ন পরিষদের স্বনামধন্য চেয়ারম্যান খাইরুল আলম চৌধুরী সমাবেশে উপস্থিত মহিলাদের উদ্দ্যেশে বলেন-আপনারা আপনাদের স্বামীদের বাজার থেকে শুধুমাত্র মাছতরকারি আনতে বলবেন, চাল আনার দরকার নেই। চাল ভিজিডি’র মাধ্যমে সরকারিভাবে পাবেন। তাতেই সংসার সুখী হবে ইনশাল্লাহ। তিনি মা-দের উদ্দ্যেশে বলেন-মাদক ও জঙ্গী তৎপরতা থেকে আপনাদের সন্তানদের দূরে রাখতে হবে এবং নিজ নিজ এলাকায় মাদক বিরোধী সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে। বিশিষ্ট সমাজ সেবক চেয়ারম্যান খাইরুল আলম চৌধুরী মা-দের সন্তানদের দোয়া করার আহবান জানিয়ে বলেন-মায়ের দোয়াতে হজরত বায়েজিদ বোস্তামী (রহ.), শেরেবাংলা এ.কে ফজলুল হক সহ বিশ্ববরেণ্য ব্যাক্তিরা খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। তিনি রত্মাপালং ইউনিয়নবাসীকে সৌভাগ্যবান উল্লেখ করে বলেন-শাহিন আক্তার চৌধুরী এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর, অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কামরুন্নেছা বেবী ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর সর্বপ্রথম উখিয়া-টেকনাফের এধরনের কোন বিশাল মহিলা সমাবেশে উপস্থিত হয়েছেন। এজন্য চেয়ারম্যান খাইরুল আলম চৌধুরী সংসদ সদস্য শাহীন আক্তার চৌধুরী, সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আবদুর রহমান বদি, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নিকারুজ্জামান চৌধুরী, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানান। অনুষ্ঠান শেষে প্রধান অতিথি এমপি শাহীন আক্তার চৌধুরী সহ অন্যান্য অতিথিরা মহিলাদের মাঝে আনুষ্ঠানিকভাবে ভিজিডি চাল বিতরণ উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে পুস্পস্তক দিয়ে এমপি শাহীন আক্তার চৌধুরী সহ অন্যান্য অতিথিদের সম্বর্ধিত করা হয়। অনুষ্ঠানে উখিয়া উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন্নেছা বেবী, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা, রত্মাপালং ইউনিয়নের ট্যাগ অফিসার, রত্মাপালং ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারবৃন্দ, রত্মাপালং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সহ ভিজিডি কার্ডধারী সহস্রাধিক মহিলা উপস্থিত ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •