মোঃ নিজাম উদ্দিন, চকরিয়া:
চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে দুর্ঘটনায় নারীসহ আট জন নিহতের দু’দিন পর গতকাল রবিবার একইদিনে চারটি দুর্ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। এতে পিতা-কন্যা নিহতসহ প্রাায় অর্ধশত লোকজন আহত হয়েছে। দুর্ঘটনা কবলিত এলাকাগুলো হলো কক্সবাজার রামু উপজেলার পানিরছড়া, চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী, চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার চুনতি ও রাঙ্গুনিয়া উপজেলার পোমরা ইউনিয়ন।
রবিবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কের রাঙ্গুনিয়ায় অটোরিক্সার সাথে বান্দরবানের লামা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের গাড়ির সংঘর্ষে ২ জন নিহত ও ৪ জন আহত হয়েছে। নিহতরা হলো একই উপজেলার কোদালা ইউনিয়নের আবদুল আজিজ (৩৫) ও তার শিশু কন্যা আছিয়া আক্তার (৩)। আহতদের চমেক হাসপাতাল ও রাঙ্গুনিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
একইদিন সকালে চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার চুনতিতে কক্সবাজার অভিমূখী একটি হানিফ বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে যায়। এতে অন্তত ছাব্বিশ যাত্রী আহত হয়েছে। তাদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত নিহতের খবরাখবর পাওয়া যায়নি।
একইদিন সকালে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের রামু উপজেলার পানিছড়া বাজারে বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নারীসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। এতে উভয় পাড়ীর চালকের অবস্থা আশংকাজনক বলে জানা গেছে। চট্টগ্রামগামী শ্যামলী পরিবহন বাসের সঙ্গে বিপরীতমুখী ইটবোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
ওইদিন বেলা বারটার দিকে চকরিয়া উপজেলার খুটাখালীতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে চট্টগ্রাম মুখী আরামিট সিমেন্ট কোম্পানির একটি গাড়ি উল্টে যায়। বেপরোয়া গতিতে চালাতে গিয়ে মহাসড়কের বিপরীত পার্শ্বে উল্টে যাওয়ার কথা জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা। এ দুর্ঘটনায় গাড়ির চালক সমান্য আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।
রাঙ্গুনিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইমতিয়াজ মোঃ আহসানুল কাদের ভূঞাসহ দুর্ঘটনা কবলিত সংশ্লিষ্ট এলাকার হাইওয়ে পুলিশ দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •