চকরিয়া প্রতিনিধি : 

চকরিয়ায় কোনাখালীস্থ পুরিত্যাখালী টেকপাড়ায় আহমদ নবী (৩১) নামের এক ব্যক্তিকে হামলা চালিয়ে ধারালো অস্ত্রদিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করার অভিযোগ উঠেছে। আহত আহমদ নবী উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদীর নির্বাচনী কর্মী এবং কোনাখালী ইউনিয়নের পুরিত্যাখালী টেকপাড়া এলাকার মহিউদ্দিনের ছেলে। সোমবার উপজেলা নির্বাচনের দিন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার পথে কোনাখালী ৭নম্বর ওয়ার্ডের পুরিত্যাখালী টেকপাড়াস্থ মসজিদের উত্তর পাশে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে আক্রান্ত পরিবার মঙ্গলবার থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের দিন (সোমবার) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মোটরসাইকেল যোগে দুইজন ভোটার নিয়ে ভোট কেন্দ্রে যাচ্ছিল আহমদ নবী। সে টেকপাড়াস্থ মসজিদ এলাকায় পৌঁছলে চিহ্নিত সন্ত্রাসী কামাল উদ্দিনের ছেলে লায়েক, জালাল উদ্দিনের ছেলে আলী আকবর ও বদিউর রহমানের ছেলে আবদুল হামিদের নেতৃত্বে ১০/১২জন অতর্কিত হামলা চালায়।  সন্ত্রাসীরা তাকে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করতে নিষেধ ও অশালীন গালমন্দ করে। তারপর বেদড়ক পিঠিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে। আহমদ নবীকে স্থানীরা ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে মঙ্গলবার দুপুরে আহত আহমদ নবীকে দেখতে যান উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী। তিনি ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি জানিয়েছেন। শেষ হতে আহতকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

চকরিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এস এম আতিক উল্লাহর কাছে জানতে চাইলে বলেন, এ ধরণের ঘটনার বিষয়ে থানায় কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •