cbn  

নুরুল কবির, বান্দরবান:
বান্দরবানে বোমাং রাজ পরিবারের শত বছরের ঐতিহ্যবাহী খাজনা আদায় উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার সকালে পুরাতন রাজবাড়ীর মাঠে ঐতিহ্যবাহী এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিবছর প্রজাদের কাছ থেকে জুমের বাৎসরিক খাজনা আদায় অনুষ্ঠান হিসেবে তিন দিনব্যাপী রাজ পূণ্যাহ মেলার আয়োজন করা হয়। তবে নির্বাচনের কারনে এবার ঐতিহ্যবাহী রাজপূণ্যাহ উৎসবে মেলার অনুমতি দেয়নি প্রশাসন। নির্বাচন চলাকালীন সময়ে তিন দিন ব্যাপী মেলা অনুষ্ঠিত হলে তা নির্বাচনের সুষ্ঠ পরিবেশের বিঘ্ন ঘটবে এমন আশংকায় মেলার আয়োজন না করার পরামর্শ দিয়েছেন প্রশাসন।
শুত্রুবার সকালে পুরাতন রাজবাড়ীর মাঠে খাজনা আদায় উৎসবের উদ্ধোধনী দিনে ঐতিহ্যবাহী রাজকীয় পোষাক পরিধান করে অতিথিদের নিয়ে রাজবাড়ী থেকে রাজকীয় বাঁশির সুরে অনুষ্ঠানস্থলে নেমে আসেন বান্দরবান বোমাং সার্কেল চীফ ১৭তম রাজা ইঞ্জিনিয়ার উচপ্রু মারমা। এসময় তার সৈন্য-সামন্ত, উজির-নাজির, সিপাহী সালাররা রাজাকে গার্ড দিয়ে অনুষ্ঠানস্থল মঞ্চে নিয়ে যান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষি মন্ত্রী ড.মো: আবদুর রাজ্জাক এমপি। অন্যান্যদের মধ্যে কৃষি সচিব নাসিরুজ্জামান, বান্দরবান সেনা রিজিয়ন কমান্ডার বিগ্রেডিয়ার জেনারেল খন্দকার মো: শাহিনুর এমরান, জেলা প্রশাসক মো: দাউদুল ইসলাম,পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদারসহ সরকারী-বেসরকারী উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বোমাং রাজা সিংহাসনে উপবিষ্ট হলে সারিবদ্ধভাবে বান্দরবান জেলার ৭টি উপজেলার ৯৫টি মৌজা এবং রাঙ্গামাটি জেলার কাপ্তাই ও রাজস্থলী দুটি উপজেলার ১৪টি মৌজাসহ মোট ১০৯টি মৌজার হেডম্যান, ৮ শতাধিকেরও বেশি কারবারী, রোয়াজারা রাজাকে কুর্নিশ করে জুমের বাৎসরিক খাজনা ও উপঢৌকন রাজার হাতে তুলে দেন।

পুলিশ সুপার মো: জাকির হোসেন মজুমদার জানান, নির্বাচন চলাকালীন সময়ে তিনদিন ব্যাপী মেলা অনুষ্ঠিত হলে তা নির্বাচনের সুষ্ঠ পরিবেশের বিঘœ ঘটবে এমন আশংকায় মেলার আয়োজন না করার পরামর্শ দিয়েছি তবে তারা চাইলে নির্বাচনের পরে মেলার আয়োজন করতে পারে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো: দাউদুল ইসলাম বলেন পুলিশের প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে মেলার অনুমোদন দেয়া হয় পুলিশের প্রতিবেদনে আইন শৃঙ্খলা বিঘœ ঘটার কথা বলায় অনুমতি দেয়া হয়নি।

১৮৭৫ সালে ৫ম তম বোমাং রাজা সাক হ্ন ঞো’র আমল থেকে বংশ পরস্পরায় ধারাবাহিক ভাবে প্রতিবছর ঐতিহ্যবাহী খাজনা আদায় উৎসব হয়ে আসছে।

প্রসঙ্গত: বংশ পরাম্পরায় বোমাং রাজ প্রথা অনুযায়ী রাজ পরিবারের সবচেয়ে বয়জ্যেষ্ঠ পুরুষ রাজা নির্বাচিত হন। ঢাক, ঢোল পিটিয়ে রাজকীয় পদ্ধতিতে দূর্গমাঞ্চলগুলোতেও পূণ্যাহ মেলার বার্তা পৌছিয়ে দেওয়া হয়েছে রাজ পরিবারের পক্ষ থেকে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •