cbn  

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:
নারীদের সুন্দর-সুস্থ জীবন ও উন্নয়নের প্রত্যয় নিয়ে যাত্রা করেছিলো হোপ ফাউন্ডেশন। হোপ ফাউন্ডেশনের স্বপ্নদ্রষ্টা কক্সবাজারের কৃতিসন্তান আমেরিকা প্রবাসী খ্যাতনামা চিকিৎসক ইফতিখার মাহমুদ মিনার কক্সবাজারের অসহায় নারীদের সেবা দিতে ক্ষুদ্র পরিসরে এই মানবতাবাদী প্রতিষ্ঠানের যাত্রা করেছিলেন। সেই হোপ ফাউন্ডেশন আজ মহীরূপে রূপান্তর হয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানটি তার উদ্দেশ্য এবং প্রতিজ্ঞা অটুট রেখে কক্সবাজার জেলাজুড়ে নারীদের স্বাস্থ্যসেবার এক মাইলফলক তৈরি করেছে। সেই সাথে শিশুদেরও দিয়ে যাচ্ছে অনুরূপ স্বাস্থ্য সেবা।

শুধু স্বাস্থ্য নয়; তার সাথে নারীর উন্নয়নেও সমানভাবে কাজ করে যাচ্ছে হোপ ফাউন্ডেশন। স্বাস্থ্যসেবার পাশপাশি হোপ ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন সেক্টরে নারীদের কর্মসংস্থান করা, ব্যক্তিগতভাবেও নারীর কর্মসংস্থান তৈরি, নারীদের স্বাস্থ’্যসেবায় প্রশিক্ষিত করাসহ নারীর উন্নয়নে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে হোপ ফাউন্ডেশন।

শুক্রবার (৮ মার্চ) আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপনের এক অনুষ্ঠানে এমনটি জানালেন হোপ ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ডাইরেক্টর কেএম জাহিদুজ্জামান।

আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে সকাল ১১টায় রামুর চেইন্দাস্থ হোপ ফাউন্ডেশন মিলনায়তনের ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগিতায় ডেভলপিং মিডওয়াইভস প্রজেক্টের সহযোগিতায় এক জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন হোপ ফাউন্ডেশন কর্তৃপক্ষ। নারী দিবসের মাহার্ত্য নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সেই সাথে নারী দিবস উপলক্ষ্যে ফিস্টুলা চিকিৎসা প্রাপ্ত  তিন নারীকে সেলাই মেশিন দেয়া হয় অনুষ্ঠানে।


হোপ ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ডাইরেক্টর কেএম জাহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ইউএনএফপিএ’র কক্সবাজার সাব অফিসের প্রধান ব্রোজলিডা রাফায়েল, মিডওয়াইফ বিশেষজ্ঞ ডায়না গ্রেট ও আভাবিকু ডরিন, সিনিয়র কর্মকর্তা মঞ্জু কর্মচারীয়া, বাকুকু মাতুয়া এবং সুইচ রেডক্রসের হেলথ ডেলিগেট ডা. শান্তা ঘটক, হিউম্যানিটেরিয়ার ডাইরেক্টর জেভিয়ার।

উপস্থিত ছিলেন- হোপ হসপিটালের চীফ মেডিকেল অফিসার মোঃ ইসমাঈল, গাইনী বিশেষজ্ঞ নিন্ময় বিশ^াস, হোফ ফাউন্ডেশনের কো-অর্ডিনেটর রাকিবুল হক, প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর মোঃ শওকত আলী, কোর্স কো- অর্ডিনেটর শারমিন নেছা ও ফিস্টুলা বিভাগের সমন্বয়কারী আজমুল হুদা। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন এ্যাসিসটেন্ট প্রজেক্ট ম্যানেজার ইয়াছমিন আকতার। সহযোগিতায় ছিলেন- এডমিন এন্ড ফাইনেন্স অফিসার শামীম রেজা খান।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন- পৃথিবীজুড়ে নারীরা অনেক দূর এগিয়ে গেছে। বাংলাদেশের নারীরাও এগিয়ে গেছে। কিন্তু বাংলাদেশের নারীদের এগিয়ে যাওয়ার সময়ের তুলনায় কম হয়েছে। মনে রাখতে হবে নারীদের উন্নতি এবং এগিয়ে গেলেই সত্যিকার অর্থে দেশের উন্নতি হবে।

বক্তারা আরো বলেন- নিজেদের উন্নতির জন্য প্রতিটি নারীকে প্রচেষ্টা চালাতে হবে। শিক্ষা অর্জন করার সাথে সব ক্ষেত্রে দক্ষতা বাড়িয়ে কাজে লেগে যেতে হবে। নিজেদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন হয়ে তা আদায় করে নিতে হবে। এই অগ্রযাত্রায় পুরুষদেরও পুরনো ধ্যান-ধারণা বদলাতে হবে। নিজেরদের মা-বোন, স্ত্রী-কন্যাসহ সব নারীকে সহযোগিতা করতে হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •