নিজস্ব প্রতিনিধি, পেকুয়া:

পেকুয়ায় একটি লবণের ঘাট দখলে নিতে মনজুর আলম নামের এক ব্যবসায়ীর পরিবারের উপর হামলা-নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বুধবার (২৭ফেব্রুয়ারি) দুপুরে এর জের ধরে ওই ব্যবসায়ী ও তার ভাই শমসুল আলমের উপর হামলা চালিয়ে তাদের আহত করেছে দুর্বৃত্তরা।

অভিযোগে জানা যায়, গত ১০ জানুয়ারি রাজাখালী ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক অনুষ্ঠিত খোলা নিলামে লবণের ঘাট (ভাঙ্গাখালী পিচ রোড়ের মাথা হতে উত্তর সুন্দরী পাড়া খয়রাতি রোড়ের মাথা পর্যন্ত) টোল/টেক্স আদায়ের জন্য ডাক পায় একই ইউনিয়নের হাজী মার্কেট এলাকার মৃত মেহের আলী পুত্র মনজুর আলম । চলতি লবণ মৌসুম শুরুর পর থেকে তিনি উক্ত গুদি পরিচালনা (টোল আদায়) করে আসছিলেন। কিন্তু সম্প্রতি উক্ত ঘাটটি অবৈধভাবে দখলে নিতে মরিয়া হয়ে ওঠে একই এলাকার যুবলীগ ছাত্রলীগ নামধারী দুর্বৃত্ত মো. এনাম, মো. ইদ্রিস, টিপু, অনিক, রাশেদ, জিসান, আব্দু মজিদ ও মিনহাজ।

ব্যবসায়ী মনজুর আলম জানান, ঘাটটি অবৈধভাবে দখলে নিতে স্থানীয় যুবলীগ নেতা রিয়াজ খান রাজুর প্রত্যক্ষ ইন্ধনে তারা আমাকে মারধর ও হত্যার হুমকি দিয়ে আসছে। গত মঙ্গলবার রাতে তারা দেশীয় অস্ত্র ও বন্দুক নিয়ে আমার বসতবাড়িতে হামলা চেষ্টা চালায়। তারা আমি ও আমার পরিবারের সদস্যদের জিম্মি করে রাখে। পরে পুলিশের সহয়তায় আমরা রক্ষা পাই। এছাড়া এর আগেও বেশ কয়েকবার আমার বাড়ীতে এসে বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়েছে তারা। সর্বশেষ গত বুধবার দুপুরে হাজী মার্কেট স্টেশনে তারা আমাদের উপর হামলা চালায়। এতে আমার বড়ভাই শমশুল আলমের মাথা ফাটিয়ে রক্তাক্ত জখম সহ আমাকে মারধর করে আহত করে।

এ ব্যাপারে রাজাখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছৈয়দ নূর বলেন, লবণের গুদিটি বিধি মোতাবেক নিলামের মাধ্যমে এক বছরের (১৪২৫ বাংলা সন) জন্য মনজুর আলমকে প্রদান করা হয়। কিন্তু সম্প্রতি স্থানীয় একটি চক্র এটি অবৈধভাবে দখলের অপচেষ্টা চালিয়ে আসছে। বিষয়টি আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবগত করেছি।

পেকুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জাকির হোসেন ভুঁইয়া বলেন, এ ঘটনায় লিখিত কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •