একদিকে নৌকা অপরদিকে কলাগাছ, মাঝখানে রাজনীতি!

– এম, রিদুয়ানুল হক (এমএ) 
রাজনীতির বৈশিষ্ট্য কোথায় পাওয়া যায় তা হয়তঃ রাষ্ট্রবিজ্ঞানীরা সহজেই বলতে পারবেন। তবে আমার মতো ক্ষুদ্র মানবের পক্ষে তা নিয়ে রাজনীতি করা হাস্যকর বটে। তারপরও হাসিকে তামাশায় পরিণত করার জন্য নয়, হাসিকে পূর্ণতা দেয়ার জন্য আমার ২/১ কলম লেখা।

রাজনীতি যে কত মধুর তা রাজনীতিবিদরা অনুভব করতে পারেন। কিন্তু আমাদের মতো সাধারণ ইনসান তা অনুভব বা অনুমান করতে কিছুটা সময় লাগে। বর্তমানে রাজনীতিতে যে উই পোকা ধরেছে তা মোটেও মিথ্যা নয়। তার কারণ সততার রাজনীতি বর্তমানে লেপ বা তোশকের ভেতর বন্দি। উই পোকা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য যদি লেপকে গরম পানি বা ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে চান তাহলে লেপের অস্তিত্ব খোঁজে পাওয়া সম্ভব হবে না। তাহলে অন্য উপায় আছে কিনা তাও কিন্তু অনুসন্ধান করা উচিৎ।

ছোট কালে শুনতাম, রাজনীতি মানে রাজার নীতি। কিন্তু বর্তমানে রাজনীতির অর্থ ভিন্নতার জালে আটকা পড়ে গেছে। যার কারণে রাজার নীতিটা বিলুপ্ত। শুধু জোর যার মুল্লুক তার এই সুন্দর উক্তিটা এখন রাজনীতি হয়ে দাঁড়িয়েছে। হবার তো কথা, কারণ আসল নীতিটা রাষ্ট্রবিজ্ঞানের বইয়ের পৃষ্ঠায় সীমাবদ্ধ। কেউ রাষ্ট্রবিজ্ঞান চর্চা করে না বা রাষ্ট্রবিজ্ঞান মানে না। যার দরুন এতো সব নতুন নতুন মনোভাবের উদ্ভাবন হচ্ছে।

এখন আসি আসল রহস্যে। বর্তমানে রাজনীতিকে ভোটের মাঠে ছেড়ে দেয়া হয়। ভোট নামক মহা যুদ্ধে ঠিকতে পারলেই রাজনীতি নামক নতুন বৈশিষ্ট্যের সৃষ্টি হয়। তখন ব্যক্তি স্বাধীনতা বা নেতার স্বাধীনতা ফুটে উঠে। সেটা কিন্তু দলীয় প্রতীক হোক বা অন্যকোনো প্রতীক হোক। তবে আসল বিষয় হলো ব্যক্তিত্ব কার কত বেশি। সেই জন্য বর্তমানে দলীয় প্রতীক নিয়ে তেমন বেশি কেউ চিন্তা করে না এবং জাতীয় নির্বাচনের বাইরে অন্যসব নির্বাচন ব্যক্তিত্বের উপর নির্ভর করে। এই জন্য তো কলাগাছ নামক আনকমন প্রতীকের আবির্ভাব।

অল্প কয়েকদিন পরে অনুষ্টিত হতে যাচ্ছে উপজেলা নির্বাচন। এই নির্বাচনে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি অংশ না নেওয়ায় নির্বাচনের কৌলিন্য হারিয়েছে বলে ইসি মাহবুব তালুকদার মন্তব্য করেছেন। তাই আসন্ন উপজেলা নির্বাচন হবে একপক্ষীয়। যার কারণে নৌকা প্রতীকের সাথে যুদ্ধে নেমেছে কলাগাছ নামক স্বতন্ত্র প্রতীক। তাও আবার তাঁরা সরকার দলীয় সমর্থক। যাক, নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অধিকার দেশের প্রত্যেক নাগরিকের রয়েছে। এটা নিয়ে আমার কোনো কিছু চাওয়া-পাওয়া নেই। আমি শুধু একটি কথা বোঝাতে চাচ্ছি, সেটি হলো – একদিকে দলীয় প্রতীক নৌকা অপরদিকে স্বতন্ত্র প্রতীক কলাগাছ! মধ্যখানে রাজনীতি।

বেশ কয়েকদিন ধরে দেশের বিভিন্ন স্থানে যেটি লক্ষ্য করা যাচ্ছে সেটি হলো সড়ক-মহাসড়কের পাশে শত শত কলাগাছ। কারণ কী? জানতে পারলাম – বর্তমান কিছু কিছু জায়গায় সরকারী দলীয় তৃণমূলের জনপ্রিয় নেতাদেরকে মনোনয়ন না দিয়ে কম জনপ্রিয় নেতাদেরকে দলীয় প্রতীক নৌকা দিয়ে ভোটের মাঠে নামিয়ে দিয়েছে। যার কারণে ঐ জনপ্রিয় বঞ্চিত নেতার পক্ষে কলাগাছ রোপন করে প্রতিবাদ করে এবং তাঁর পক্ষে সমর্থন প্রকাশ করে। আবার কিছু কিছু জায়গায় দেখা গেছে- ঐ কলাগাছের পক্ষে স্থানীয় তৃণমূল আওয়ামীলীগের প্রায় ৯০-৯৫% নেতা-কর্মী সরাসরি যুক্ত হয়ে বড় ধরনে শোডাউন করেছে এবং করছে। হয়তঃ প্রার্থী বাছাইয়ে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের চাহিদার প্রতি নজর দেয় নি। যার কারণে আজ বিভিন্ন জায়গায় নৌকা ও কলাগাছের সাথে ধাক্কা ধাক্কি করছে। এখন প্রশ্ন হলো-রাজনীতি কি নৌকা ও কলাগাছের মাঝখানে অবস্থান করছে?

উদাহরণ স্বরূপ উল্লেখ করা যেতে পারে – কক্সবাজার জেলার চকরিয়া ও পেকুয়া উপজেলায় দলীয় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ঘোষণার পরে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে সড়কের অলি-গলিতে শত শত কলাগাছ রোপন করে প্রতিবাদ জানানো হয় এবং হাজার হাজার সমর্থক নিয়ে বিশাল শোডাউন করতে দেখা যায়। এতে স্থানীয় তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায়। তবে বিশেষভাবে লক্ষ্যনীয় যে, এই দুই উপজেলার তৃণমূলের সংখ্যাগরিষ্ঠ নেতা-কর্মী কলাগাছের পক্ষে জোরে-সুরে প্রচারণা করে যাচ্ছেন। এখন অপেক্ষা করার পালা। কারণ রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কোনো কিছুই নেই। নির্বাচন পর্যন্ত অপেক্ষা না করলে হয়তঃ নৌকা ও কলাগাছের স্বাদ পাওয়া যাবে না।

লেখক – শিক্ষক, সংবাদকর্মী ও মানকাধিকারকর্মী

সর্বশেষ সংবাদ

রামুর ডাকভাঙ্গা ও মৈষকুম প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক সম্পন্ন

বিলাসবহুল বাড়ি-গাড়ি, নামে-বেনামে অর্থ পাপিয়ার

বিটিআরসিকে ১০০০ কোটি টাকা দিলো গ্রামীণফোন

জাল দলিলে সাগরেপাড়ের শত কোটি টাকার সরকারী জমি আত্মসাতের চেষ্টা!

কক্সবাজার ও সিলেট বিমানবন্দরের কাজে এত ধীরগতি!

পাপিয়ার ভয়ঙ্কর কর্মকাণ্ড নিয়ে মুখ খুলছে মানুষ, আজীবনের জন্য বহিস্কার

জামিন শুনানি : অপেক্ষা বাড়ল খালেদার

বাংলাদেশ থেকে গৃহকর্মী নিতে আগ্রহী মালয়েশিয়া

চকরিয়ায় হারবাং পুলিশের অভিযানে ইয়াবাসহ যুবক আটক

ঢাকায় ‘কক্সবাজার উৎসব’ হয়ে উঠল মিলনমেলা

কক্সবাজার সৈকত কবিতা চত্বর থেকে মাদক ব্যবসায়ীর গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার

কক্সবাজার সৈকতের শত কোটি টাকা মূল্যের সরকারী জমি আত্মসাতের চেষ্টা!

জাতীয় শরণার্থী নীতি ও সরকারের একক কর্তৃত্বের দাবি

খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মুলতবি

চকরিয়ায় ছোটবোনের দায়ের করা মামলায় বড় ভাই গ্রেপ্তার

ইস্পাহানী পাবলিক স্কুল ও কলেজে বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠান সম্পন্ন

যেসব বদ স্বভাবে মানুষের চরম অধপতন ঘটে

বুবলীকে বিয়ে প্রসঙ্গে মুখ খুললেন শাকিব খান

কিডনিতে পাথর দূর করার ঘরোয়া উপায়

বান্দরবানে আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা