মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, লামা (বান্দরবান):
বান্দরবানের লামায় ফাগুনের হঠাৎ ঝড়-বৃষ্টিতে দুর্গম “কলারঝিরি মংপ্রু পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়” এর একমাত্র ভবনটি পুরোপুরি ভেঙ্গে বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। সোমবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) সকাল সাড়ে ৯টায় এই ঘটনা ঘটে। এসময় স্কুলে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা উপস্থিত থাকলেও সবাই দৌড়ে বেড়িয়ে পড়ায় কারো ক্ষতি হয়নি। তবে স্কুলটি একবারে নষ্ট হয়ে যাওয়ায় বিদ্যালয় বন্ধ করে দিতে হয়েছে বলে জানিয়েছেন, প্রধান শিক্ষিকা ক্যচিংমে মার্মা।
বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মো. আবু হানিফ জানান, প্রতিদিনের ন্যায় সকাল ৯টায় আমরা স্কুলের রুটিং কার্যক্রম শুরু করি। এসময় হঠাৎ আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হয়ে প্রচন্ড ঝড়ো হাওয়া আসে। সকাল সাড়ে ৯টায় জোরে এক বাতাসের ধাক্কায় স্কুলের ছাদ উড়ে গিয়ে অন্তত ১শত গজ দূরে তামাক ক্ষেতে পড়ে যায়। স্কুলের একমাত্র টিনসেট ভবনটি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় ও বিদ্যালয়ে বৃষ্টি পড়ার কারণে বিদ্যালয় বন্ধ করে দিতে হয়েছে। ঝড়-বৃষ্টির সময় শিক্ষার্থী ও আমরা শিক্ষকরা স্কুলেই ছিলাম। ভাগ্যক্রমে কারো কোন ক্ষতি হয়নি।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ক্যচিংমে মার্মা জানান, ১লা জানুয়ারী ১৯৯০ইং সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা হয়। প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে তৈরি টিনসেট ঘরটিতে এখনো শিক্ষা কার্যক্রম চলছে। বেসরকারি বিদ্যালয় হিসেবে স্কুলটি যাত্রা শুরু করলেও ২০১৩ সালের ১লা জানুয়ারী বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ করা হয়। বর্তমানে স্কুলে ৫টি সৃষ্ট পদের অনুকূলে ৪জন শিক্ষক এবং স্কুল মিল প্রোগ্রামে ২জন রাঁধূনী কর্মরত আছে। স্কুলে শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ২ শতাধিক। দ্রুত নতুন ভবন তৈরি করা না হলে স্কুলের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা অসম্ভব।
বিদ্যালয়ের ক্ষতি বিষয়টি উল্লেখ করে রুপসীপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ছাচিং প্রু মার্মার বলেন, বিদ্যালয়টি ঝড়-বৃষ্টিতে একেবারে ভেঙ্গে গেছে। দ্রুত ভবনটি মেরামত না করলে স্কুল পরিচালনা করা যাবেনা। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের কথা মাথায় রেখে বিধস্ত ভবন ভেঙ্গে নতুন ভবণ নির্মাণ করা খুবই জরুরী।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তপন কুমার চৌধুরী বলেন, সকালের ঝড়-বৃষ্টিতে বিদ্যালয় ভবনটি নষ্ট হয়ে যাওয়ার কথা শুনেছি। দ্রুত ভবনটি মেরামতে উদ্যোগ নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •