মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু, নাইক্ষ্যংছড়ি:
কক্সবাজারে রামু উপজেলার কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের গর্জনিয়া পুলিশ ফাঁড়ি এখন পাখির অভয়ারণ্য। ফাঁড়ির স্বপ্নবান পুলিশের এটি এস আই বদরুল আলম পুলিশ ফাঁড়ির টিন সেট ভবন ও গাছে পাখিদের বাসযোগ্য করে গড়ে তুলেছেন। গাছে গাছে গড়ে তুলেছেন পখির কৃত্রিম আবাসস্থল। তাই দেখা মিলছে চড়ই, সালিক ও বিভিন্ন প্রজাতির পাখির। গর্জনিয়া  বাজারের পূূর্ব পাশে অবস্থিত ১৯৩৯ ইং সালে স্থাপিত এ পুলিশ ফাঁড়ি এখন ‘পাখির গ্রাম’ নামেই হচ্ছে পরিচিত।

খাঁচায় বন্দী করে নয়। ভবনের দেওয়ালে, গাছের ডালে মাটির ছোট কলস বসিয়ে পাখিদের জন্য গড়ে তোলা হয়েছে আবাসস্থল। নির্ভয়ে বাস করছে দেশীয় প্রজাতির নানা পাখি।

কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের মিয়াজির পাড়া গ্রামে অবস্থিত গর্জনিয়া পুলিশের ছোট এই  কর্মকর্তা বদরুল আলম পুলিশ ফাঁড়ির এক সহকর্মী মিলে শুরু করেন পাখি রক্ষার কাজ।

পরে তাহাদের সাথে যোগ দেয় অনন্য পুলিশ সসদ্যও তাই পাখির কলরবে নিরাপদ আশ্রয় থাকায় বাড়ছে পাখির সংখ্যা। পুলিশের এই পাখি বান্ধব ছোট কর্মকর্তার এ উদ্যোগ এলাকার যুব সমাজকে অনুপ্রাণিত করবে আশা গ্রামবাসীর।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •