এনজিওদের দেয়া ত্রাণের পণ্য খোলাবাজারে বিক্রি করছে রোহিঙ্গারা

কায়সার হামিদ মানিক, উখিয়া:
কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফে ৩০টি রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পের আশেপাশে গড়ে উঠেছে প্রায় সাত শতাধিক হাট-বাজার। এসব বাজারে অহরহ বিক্রি হচ্ছে এনজিওদের দেওয়া ত্রাণের পণ্য সামগ্রী। কয়েকটি সূত্র জানায়, ত্রাণের মালামাল বিক্রির মাধ্যমে কিছু রোহিঙ্গা লাখপতিও বনে গেছেন। এদের কেউ কেউ আবার ক্যাম্প থেকে পালিয়ে বিদেশ চলে যাচ্ছেন।
কুতুপালং রেজিস্টার্ড ক্যাম্পের চেয়ারম্যান রশিদ আহম্মদ জানান, ১৯৯২ সালে কিছু রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসে আশ্রয় নিয়েছেন। ২০০৪ সালে প্রর্ত্যাবাসন প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর প্রায় ২২ হাজার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আটকা পড়েন। এসব রোহিঙ্গারা একদিন স্বদেশে ফিরে যাওয়ার প্রহর গুনছেন।
অপর দিকে, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর যেসব রোহিঙ্গারা পালিয়ে এসে এদেশে আশ্রয় নিয়েছেন তাদের সিংহভাগ ছিন্নমূল ও হত দরিদ্র। ত্রাণের মালামাল বিক্রি করে ও অন্য অসাধু উপায়ের মাধ্যমে বেশ কিছু রোহিঙ্গা পরিবার টাকার মালিক বনে গেছেন। যে কারণে মালোশিয়া যাবার জন্য এসব ক্যাম্পের রোহিঙ্গারা মরিয়া হয়ে ওঠেছেন। অনেক ক্ষেত্রে আইন শৃংখলা বাহিনীর হাতে ধরাও পড়ছেন।
আইন শৃংখলা বাহিনীর একটি সূত্র জানায়, তাদের হাতে ধৃত ক্যাম্প থেকে পালানো প্রায় পাঁচ শতাধিক রোহিঙ্গা যুবক, নারী, পুরুষ, শিশু কুতুপালং বালুখালি এবং টেকনাফ উংচিপ্রাং ক্যাম্পের বাসিন্দা। কুতুপালং বস্তি ম্যানেজমেন্ট কমিটির সেক্রেটারি মো. নুর দাবি করেন, তারা ২০১২ সালে এখানে এসেছেন, এ পর্যন্ত থাকার ঘরটি ব্যবহার উপযোগী করে তুলতে পারেনি। অথচ মাত্র ১৮ মাস আগে আসা রোহিঙ্গা উন্নত জীবনের আশা করে মালোশিয়াসহ দেশের বিভিন্ন শহরে ভাড়া বাসা নিয়ে আরাম আয়েশে দিন কাটাচ্ছে। ওই রোহিঙ্গা নেতা ক্যাম্পে গড়ে ওঠা অবৈধ বাজারগুলো বন্ধ করে দেওয়ার দাবি জানিয়ে বলেন, অন্যথায় এসব রোহিঙ্গাদের ঠেকানো পুলিশের পক্ষে সম্ভব হবে না।
রোহিঙ্গা প্রর্ত্যাবাসন কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক পালংখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এনজিও গুলো কোনো প্রকার সমন্বয় না করে তাদের ইচ্ছামত ত্রাণ সামগ্রী ও নগদ টাকা বিতরণ করছে। এখানে স্বর্ণের দোকান থেকে শুরু করে মোবাইল, ইলেক্ট্রনিক্স পার্সের দোকানসহ অনেক দোকান বসিয়েছেন রোহিঙ্গারা।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নিকারুজ্জামান চৌধুরী জানান, খাস জমি হওয়ার কারণে ক্যাম্পের বাজারগুলো নিয়ত্নের আওতায় আনা যাচ্ছে না। তবে এসব হাট বাজারগুলো সরকারিভাবে নিয়ন্ত্রণে আনার প্রক্রিয়া চলছে।

সর্বশেষ সংবাদ

আল্লামা তকী উসমানীর উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে কক্সবাজারে হেফাজতে ইসলামের বিক্ষোভ

সাঈদী ফুল নিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে গেলেন গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী’র কাছে

অবৈধভাবে ব্যালট পেপারে হাত দিলেই গুলি- মহেশখালীর ওসি

ইউএনও বীনার ঘর আলোকিত করল নতুন অতিথি

কক্সবাজার সদর ও কুতুবদিয়া উপজেলায় রোববারের সাধারণ ছুটি কি এখনো বহাল!

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ ৬৩ হাজার প্রবাসী আটক

শেখ হাসিনাকে ডাকসুর আজীবন সদস্য করতে নুরের আপত্তি

জিএম কাদের আউট, রওশন ইন

Two Rohingya rescued from Bhola

প্রতিবাদ

সদর থানা পুলিশের অভিযানে নারী নির্যাতন মামলার আসামিসহ ৩ জন গ্রেফতার

শিক্ষা বিস্তার ও সমাজ সেবার মাধ্যমে মানুষ অমর হয়ে থাকেন -ড. আব্দুল করিম

মরিচ্যার আমির হামজা সিকদারের মৃত্যু, উখিয়া বিএনপির শোক

জাটকা নিধন বন্ধ হলে সুদিন ফিরবে ইলিশের -ড. মো. জুলফিকার আলী

বিলাইছড়ি আ:লীগ নেতা সুরেশ হত্যা মামলার আসামী আশীষ আটক

কে হাসবে বিজয়ের হাসি?

কেউ ব্যালট ছিনতাই বা নির্বাচনী কাজে বাধা দিলে তাদের হাত গুড়িয়ে দেয়া হবে : মহেশখালীতে এসপি

শিক্ষার্থীদের শারীরিক শাস্তি

৬০ কোটি ব্যবহারকারীর পাসওয়ার্ড ফাঁস!

বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতায় উদ্বিগ্ন, সুচিকিৎসার দাবি ১০১ চিকিৎসকের