মানবাধিকার ‘বাণিজ্য’ এখন বেশ জমজমাট

শাহীন মাহমুদ রাসেল:

মানব অধিকারের নামে চলছে সাধারণ মানুষকে হয়ারানী। অধিকার আদায়ের নামে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষদের পুঁজি করে একশ্রেণীর মানবাধিকার কর্মীরা দিবারাত্র ২৪ ঘন্টা অবৈধভাবে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। নারী-নির্যাতন, জমি জবরদখল, আগুনে পুড়ে যাওয়া ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার, শিল্প প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন অফিস আদালতে মানবাধিকার নামধারী উক্ত চাঁদাবাজরা নিরবে চাঁদাবাজী করেই চলছে।

পাড়া-মহল্লা, অলিগলিতে মানবাধিকার সংগঠনের ছড়াছড়ি। সাইনবোর্ড ও প্যাডসর্বস্ব ভুঁইফোড় এসব সংগঠনের কর্মকাণ্ডে ক্ষুণ্ন হচ্ছে প্রতিষ্ঠিত মানবাধিকার সংগঠনগুলোর ভাবমূর্তি। নামসর্বস্ব কথিত মানবাধিকার সংগঠনগুলো লব্ধ প্রতিষ্ঠিত মানবাধিকার সংস্থাগুলোর সঙ্গে মিলিয়ে এমনভাবে নিজেদের নাম রাখছে, যাতে বিভ্রান্ত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। এসব সংগঠনের মানবাধিকার ‘বাণিজ্য’ এখন বেশ জমজমাট। ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা সংগঠনগুলো দেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অপপ্রচার চালানোর মাধ্যমে বিদেশি অর্থ আদায় থেকে শুরু করে থানা ও আদালতে তদবিরের মাধ্যমে অপরাধী ছাড়ানোর মতো কাজেও লিপ্ত। এমনকি পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে নির্যাতিতদের আইনি সহায়তা দেওয়ার নামেও সাধারণ ভুক্তভোগী মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করছে তারা।

কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে দ্রুত বাদী-বিবাদীর কাছে পৌঁছে যান কথিত এসব সংগঠনের তদন্ত কর্মকর্তারা। তার পর সালিশ-বৈঠক ও সমঝোতা করে দেওয়ার নাম করে হাতিয়ে নেওয়া হয় টাকা। জেলা, উপজেলা ও পৌরসভা এলাকার প্রতিটি ওয়ার্ডে মানবাধিকার সংগঠনের শাখা অফিস তৈরি করে এবং মানবাধিকারকর্মীর পরিচয়পত্র বিক্রির মাধ্যমেও টাকা হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে। কথিত এসব মানবাধিকার সংগঠনের পরিচালনা পর্ষদে সর্বজনগ্রহণযোগ্য বিচারপতি, উচ্চপদস্থ সামরিক কর্মকর্তা ও অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের নাম রেখে প্রতারণা করা হচ্ছে।

দেশের বিশিষ্ট মানবাধিকার সংগঠক ও বিচারপতিদের নাম ভাঙিয়ে বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, ধনাঢ্য ব্যক্তি ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের কাছ থেকেও মাসোয়ারা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বিভিন্ন শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে অন্তত একশ’র বেশি কথিত মানবাধিকার সংগঠন রয়েছে। এসব সংগঠন শ্রমিকদের ইস্যুতে বিদেশি বিভিন্ন দাতা সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের মালিকদের সঙ্গে গোপন আঁতাতের মাধ্যমে নানা সুযোগ-সুবিধা লুটে নিচ্ছে। সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণাকারী শতাধিক মানবাধিকার সংগঠন চিহ্নিত করেছে এনজিও ব্যুরো। শিগগিরই এসব সংগঠনের নিবন্ধন বাতিলসহ আইনি পদক্ষেপ নেওয়া জরুরী বলে মনে করেছেন সচেতন মহল।

এবিষয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে আরিফ নামের একজন বলেন, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠিত মানবাধিকার সংগঠনের নামের সঙ্গে মিল রেখে প্রতারণার জাল ছড়ানো হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের নামে বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান ও রাস্তার পাশে টানিয়ে দেওয়া হয়েছে নানা চটকদার সাইনবোর্ড। সাইনবোর্ডে ‘বিবাহ, তালাক, যৌতুক, ধর্ষণ, নারী নির্যাতন, পারিবারিক বিরোধ, জমি নিয়ে ঝামেলা, দেনমোহরসহ গরিব-অসহায়দের বিনামূল্যে আইনি সহায়তা’ দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে সাধারণ মানুষকে ফাঁদে ফেলা হয়। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েও আইনি সহায়তার নামে প্রতারণা করা হয়। অনেকে নামের মারপ্যাঁচের ঘোরে পড়ে এসব প্রতিষ্ঠানের দ্বারস্থ হয়ে মানবাধিকারের সুরক্ষা পাওয়া দূরে থাক, উল্টো হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

ওসমান নামের একজন বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের নাম ব্যবহার করে কিছু অসাধু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার ব্যক্তিদের আর্থিক ও মানসিকভাবে হয়রানি এবং প্রতারিত করছে। এসব অসাধু ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান নিজেদের জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের প্রতিনিধি পরিচয় দিয়ে জনগণকে প্রতারিত করছে। তারা জেলা উপজেলায় আইডি কার্ড বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন।

কামরুল নামের একজন মানবাদিকার কর্মী বলেন, নিবন্ধনকারী কর্তৃপক্ষ ও আদালত এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে ভবিষ্যতে মানবাধিকার নিয়ে যাচ্ছেতাই হবে। এদের কারণে প্রায়ই বিব্রত হতে হচ্ছে আমাদের। তিনি আরও জানান, এসব প্রতিষ্ঠানের লাগাম টেনে ধরার জন্য তিনি আহ্বান জানান। এক হাজার টাকা করে কার্ড বিক্রি ও সালিশ-বৈঠকের নামে উভয় পক্ষের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয় মানবাধিকার সংগঠন।

জানতে চাইলে মানবাধিকার সংগঠক ও সাংবাদিক ছৈয়দ উল্লাহ আজাদ বলেন, সংগঠনের নামে প্রতারণার অভিযোগে তথাকথিত মানবাধিকার সংগঠন ‘ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস ক্রাইম রিপোর্টার্স ফাউন্ডেশন’-এর চেয়ারম্যান এস এম হুমায়ুন কবীরসহ তিনজনকে আটক করেছিল পুলিশ। এ সংগঠনও ঢাকাসহ সারাদেশে টাকার বিনিময়ে আইডি কার্ড বিক্রি করে আসছিল। মানবাধিকার সংগঠনের নামে প্রেস লেখা আইডি কার্ড বিক্রি করাই এ সংগঠনের মূল কাজ। সারাদেশে তাদের প্রায় ১৫ হাজার সদস্যকে সাংবাদিক লেখা পরিচয়পত্র দেওয়া হয়েছে বলে এই নেতা জানান। তিনি আরও বলেন, জেল থেকে বের হওয়ার পর এই চক্র আবারও একই ধরনের প্রতারণা অব্যাহত রেখেছে।

অভিযোগ রয়েছে, এই সংগঠনগুলোর প্রধান কাজই হচ্ছে সদস্য সংগ্রহের নামে কার্ড বিক্রি করা, খুন-ধর্ষণসহ বিভিন্ন অপরাধ কর্মকাণ্ডের মীমাংসা করে দিতে সালিশ-বৈঠকের নামে সুবিধা আদায় করা। এ বিষয়ে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির হারুন বলেন, নামে-বেনামে প্রতিনিয়ত ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠছে নামসর্বস্ব মানবাধিকার সংগঠন। এ সংগঠনগুলো সরকারের কোনো বিভাগের নিয়ন্ত্রণে নেই। জবাবদিহিরও বাইরে এদের কার্যক্রম। থানাগুলোতে এদের নিয়মিত যাতায়াত। সেখানে তারা সাধারণ মানুষকে নানা বিপদ থেকে উদ্ধার করার নামে নগদ টাকা হাতিয়ে নেয়।

সর্বশেষ সংবাদ

ভারুয়াখালীতে স্কুলছাত্রকে অপহরণের চেষ্টা  ‘ভাই গ্রুপের’

আজ আন্তর্জা‌তিক মাতৃভাষা দিবস

মুজিবুর রহমান ও এমপি জাফরের দোয়া নিলেন ফজলুল করিম সাঈদী

মাতৃভাষার প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছে রাখাইনদের নতুন প্রজন্ম

শুদ্ধ সংস্কৃতির চর্চার মধ্য দিয়ে অপশক্তিকে রুখতে হবে- মেয়র মুজিব

একুশে ফেব্রুয়ারি : প্রাপ্তি ও প্রত্যাশা

টেকনাফে সাড়ে ১৫ লক্ষ টাকার স্বর্ণালংকার উদ্ধার

চকরিয়ায় শিশু ও নারী নির্যাতন মামলার ৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার

২০ হাজার ইয়াবাসহ দুইজন আটক

এডভোকেট রানা দাশগুপ্তের সাথে কক্সবাজার জেলা নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়

ইসলামে মাতৃভাষার গুরুত্ব ও তাৎপর্য

ঈদগাঁওতে পুজা কমিটির সম্মেলন নিয়ে সংঘাতের আশংকা

কক্সবাজার সিটি কলেজে শিক্ষকদের জন্য আইসিটি প্রশিক্ষণ শুরু

উখিয়ায় হাতির আক্রমণে রোহিঙ্গা যুবকের মৃত্যু

এস আলম গ্রুপের ৩ হাজার ১৭০ কোটি টাকার কর মওকুফ

মালয়েশিয়ায় ভবনে আগুন : বাংলাদেশিসহ নিহত ৬

মহেশখালীতে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে মোস্তফা আনোয়ার

চকরিয়ায় ইয়াবাসহ দুই ব্যবসায়ী আটক

চকরিয়ার চেয়ারম্যান পদে ২ জনসহ ৫ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল

কোর্টরুমে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে হবে : প্রধান বিচারপতি