বাংলা ট্রিবিউন

মিয়ানমার থেকে যাতে আর কেউ অনুপ্রবেশ না করতে পারে, সেজন্য বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে আব্দুল মোমেন।

বুধবার (৬ ফেব্রুয়ারি) পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা বর্ডার মোটামুটি বন্ধ করে দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘যথেষ্ট লোকের জন্য বর্ডার (সীমান্ত) খুলে দিয়েছি। এখন অন্যদের (অন্য প্রতিবেশীদের) বর্ডার খুললে ভালো হয়।’

মোমেন বলেন,‘আমরা শুনছি,মিয়ানমার ও আরাকান আর্মির মধ্যে সংঘর্ষের কারণে বৌদ্ধ ও হিন্দু ধর্মালম্বী ও অন্যরা বাংলাদেশে পালিয়ে আসার চেষ্টা করছে। আমরা বলেছি,আমরা আর কাউকে নেবো না।’

মন্ত্রী বলেন,‘বাংলাদেশ পৃথিবীর সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ দেশ এবং এদের (রোহিঙ্গা) বেশিদিন রাখার ক্ষমতা আমাদের নেই।’

হতাশা প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন,‘আমরা মিয়ানমারের কাছে আরও ভালো কিছু আশা করি।’

২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমারে সামরিক বাহিনী মুসলমান রোহিঙ্গা অধ্যুষিত রাখাইন রাজ্যে নির্বিচারে গণহত্যা ও নির্যাতন চালানোর কারণে দেশটি থেকে কমপক্ষে সাত লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এর আগেও বিভিন্ন সময়ে দেশটি থেকে আরও চার লাখের বেশি রোহিঙ্গা এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। জাতিসংঘের সহযোগিতায় কক্সবাজারের টেকনাফ ও উখিয়ায় তাদের জন্য শরণার্থী শিবির খোলা হয়েছে। তাদের দেশে ফেরত পাঠাতে অব্যাহত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সরকার। এ অবস্থায় মিয়ানমার থেকে নতুন করে আর কাউকে আশ্রয় দিতে আগ্রহী নয় সরকার।

অ্যাঞ্জেলিনা জোলির সঙ্গে বৈঠক

ড. এ. কে আব্দুল মোমেন বলেন, ‘অ্যাঞ্জেলিনা জোলি একজন বিখ্যাত ব্যক্তি। এই সমস্যা (রোহিঙ্গা সংকট) সমাধানে আমরা তার সহায়তা চেয়েছি। এজন্য রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে হলিউডে একটি বড় অনুষ্ঠান করে জনমত আদায়ের জন্য তিনি যাতে চেষ্টা করেন সে প্রস্তাবও দিয়েছি তাকে।’

মন্ত্রী বলেন,  ‘তাকে বলেছি, রোহিঙ্গাদের জন্য অনেক দেশ সাহায্যের কথা বললেও আশানুরূপ সহায়তা পাওয়া যায়নি।’

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য এ বছরে প্রয়োজনীয় ৯৫২ মিলিয়ন ডলার প্রয়োজন। এর মধ্যে দেশ ও সংস্থাগুলো ৪০ শতাংশের কম প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

মোমেন বলেন,‘ উত্তরে জোলি আমাকে বলেছেন, মিয়ানমার অপরাধ করেছে এবং এখন সময় এসেছে এর ভুল ত্রুটি সংশোধন করার।’

জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূতের সঙ্গে বৈঠক

এর আগে মিয়ানমার বিষয়ক জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত ক্রিস্টিনা বার্গেনার মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন। তার সঙ্গে আলোচনার বিষয়বস্তুও সাংবাদিকদের কাছে তুলে ধরেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমি তাকে (ক্রিস্টিনা বার্গেনার) বলেছি, মিয়ানমার এত বড় অপরাধ করেছে, কিন্তু পৃথিবীর সবদেশ তার সঙ্গে বাণিজ্য করছে এবং সম্পর্ক স্বাভাবিক রেখেছে। কেউ কেউ মাঝে মাঝে কথা বলে, কিন্তু তা আমাদের কোনও উপকারে আসে না।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •