শাহীন মাহমুদ রাসেল
সম্প্রতি কক্সবাজার জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও সম্পাদকের বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশনকে হিন্দু সম্প্রদায়ের আস্থা ও বিশ্বাসকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন কক্সবাজার জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এডভোকেট রঞ্জিত দাশ।
তিনি বলেন, সত্য মিথ্যা যাচাই না করে যে সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে তা হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে বিভেদ তৈরি করেছে। আস্থার সংকট সৃষ্টি হয়েছে।
প্রকাশিত সংবাদের কারণে আমাদের ব্যক্তিগত, প্রতিষ্ঠান ও সম্প্রদায়ের ঐতিহ্য ও সনাম বিনষ্ট করা হয়েছে। অভিযোগের সঙ্গে আমার বিন্দুমাত্রও সম্পৃক্ততা ছিল না। স্বচ্ছতার সাথে জীবনযাপনের পরও এমন অভিযোগ সত্যি দুঃখজনক ও অনভিপ্রেত।
রবিবার সন্ধ্যায় কক্সবাজার ব্রাহ্ম মন্দির প্রাঙ্গনে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে রঞ্জিত দাশ এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, আমি কক্সবাজার জেলার পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছি দীঘদিন ধরে। দীঘ ৯ বছর ধরে আমার সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য রাত-দিন কাজ করে আসছি। কিন্তু একটি কুচক্রী মহল আমি এবং আমার সাধারণ সম্পাদকের সুনাম ক্ষুন্ন করার জন্য বিভিন্ন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। তার প্রতিয়মান হিসেবে কুচক্রী মহলটি সাংবাদিকদের কাছে আমাদের নামে মিথ্যা তথ্য সরবরাহ করে আমাদের হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করছে।
তিনি আরো বলেন, পূজা উদযাপন পরিষদ সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্বকারী সমাজিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান। এখানে প্রতিটি কাজের জবাবদিহিতা রয়েছে। কারো অনিয়ম দুর্নীতি করে পার পাওয়ার সুযোগ নাই। আমি দায়িত্ব পালনকালে এক পয়সার দুর্নীতির কেউ প্রমাণ দিতে পারলে জনসম্মুখে শাস্তি মেনে নিব।
জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সুনাম অক্ষুন্ন রাখার লক্ষ্যে পূজা সংক্রান্ত সকল কর্মকাণ্ড থেকে অব্যাহতিপ্রাপ্ত একটি কুচক্রী মহল সম্প্রদায়ের ঐক্য বিনষ্ট করতে এসব অপপ্রচার চালাচ্ছে। এতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী হিন্দু সম্প্রদায়ের গুটি কয়েকজন ব্যক্তি জড়িত রয়েছে।
তাই হিন্দু সম্প্রদায়ের বিষয় বিবেচনায় এনে পূজা সম্পর্কিত সকল বিষয় গুরুত্ব সহকারে ভালভাবে খবরাখবর নিয়ে কারো প্রতি ব্যাক্তিগত বিরোপ মনোভাব প্রর্দশন না করে সঠিক সংবাদ প্রকাশের জন্য সম্মানিত সাংবাদিক ভাইদের মাধ্যমে সকলের প্রতি বিনীত অনুরোধ করেছেন রঞ্জিত দাশ।
এছাড়া, চাউল বরাদ্দের বিষয়ে জেলা উদযাপন পরিষদের কোনরূপ সংশ্লিষ্ট না থাকা সত্বেও জেলা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে মানহানিকর শব্দ ব্যবহারপূর্বক মিথ্যা ও ভিত্তিহীন সংবাদ পরিবেশন থেকে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বাবুল শর্মা, উপদেষ্টা প্রফুল্ল রঞ্জন দাশ (মনব বাবু) ইঞ্জিনিয়ার কানন পাল, সমীর পাল, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি প্রিয়তোষ শর্মা চন্দন, সহ সভাপতি রতন দাশ, অধ্যাপক অজিত দাশ, উজ্জল কর, বিপুল সেন, পৌর কাউন্সিলর রাজ বিহারী দাশ, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সরুপম পাল পাঞ্জু, সাংগঠনিক সম্পাদক বিশ্বজিত পাল বিশু, আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. প্রতীভা দাশ, পৌর পূজা কমিটির সভাপতি বেন্টু দাশ, সাধারণ সম্পাদক জনি ধর, কক্সবাজার সদর উপজেলা পূজা কমিটির সভপতি দীপক দাশ, সম্পাদক বাবলা পাল, বাপন পাল, কানন পাল, হারাধন রুদ্র, পিএমখালী ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি সজিব দাশ, ঝিলংজার আহবায়ক তুষার কান্তি ধর, শিপন পাল, কোষাধ্যক্ষ এড.উজ্জল দাশ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক স্বপন দাশ, জেলা কর্মকর্তা এড. অশোক আচার্য্য, সিমুল পাল, বলরাম পাল, বলরাম দাশ অনুপম, রুপন মল্লিক, মিল্টন পাল, খোকন দাশ, পৌর পূজা কমিটির সহ সভাপতি শাওন চক্রবর্তী, তপন দাশ, কৃঞ্চা পাল, শান্তা শর্মা, মিন্টু দত্ত, শুভ দাশ, রাজু পাল, সুজন শর্মা জন, সদর উপজেলা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সাগর দত্ত, খুরুশকুল ইউনিয়ন কমিটির সম্পাদক পলাশ আচার্য্য প্রমুখ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •