মোঃ ফারুক, পেকুয়া :

কক্সবাজারের পেকুয়ায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আ’লীগের সম্ভাব্য ৬ প্রার্থী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। সব প্রার্থীই নৌকার মনোনয়ন পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে প্রচারণার মাধ্যমে এলাকাবাসীর সামনে বিভিন্ন প্রতিশ্রুতিও দিয়ে যাচ্ছে।

সম্ভাব্য ৬ প্রার্থী হলেন, জেলা আ’লীগের সদস্য মোঃ হোছাইন, জেলা আ’লীগের সদস্য গিয়াস উদ্দিন, জেলা পরিষদ সদস্য জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা আ’লীগের সহসভাপতি সাংবাদিক জহিরুল ইসলাম, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম ও যুগ্ন-সম্পাদক ওয়াহিদুর রহমান। এছাড়াও ভাইস চেয়ারম্যান(পুরুষ) পদে ৫জন ও ভাইস চেয়ারম্যান(মহিলা) পদে ৪জন সম্ভাব্য প্রার্থী মাঠে রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০০২ সালে উপজেলা প্রতিষ্ঠার পর থেকে বাংলাদেশ আ’লীগ তথা নৌকার মনোনীত প্রার্থী জয়লাভ করতে পারেনি। যার কারণে জয়ের চ্যালেঞ্চ নিয়ে মাঠে নেমেছে আ’লীগ প্রার্থীরা। ইতিমধ্যে পেকুয়া উপজেলা আ’লীগের কার্যকরী কমিটি ৬ প্রার্থীর বায়োডাটা জেলা কমিটি বরাবর প্রেরণ করেছে। জেলা কমিটি থেকে ৩ জনের বায়োডাটা কেন্দ্রীয় কমিটি বরাবর প্রেরণ করা হবে।

প্রার্থী নির্ধারণের ব্যাপারে জানতে চাইলে পেকুয়া উপজেলা আ’লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) শাহনেওয়াজ চৌধুরী বিটু বলেন,  উপজেলা আ’লীগের পক্ষ থেকে বেশ কয়েকজনের বায়োডাটা জেলা কমিটিতে পাঠিয়েছি।

উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল কাশেম বলেন, নির্বাচন করার প্রস্তুতি শুরু করেছি। এক্ষেত্রে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি নৌকা উপহার দেন তাহলে বিজয় নিশ্চিত করতে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে কাজ করব।

জেলা পরিষদ সদস্য জাহাঙ্গীর আলম বলেন, পেকুয়া আ’লীগ ও যুবলীগকে সংগঠিত করতে দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় তৃণমূল নেতৃবৃন্দের সাথে মিশে কাজ করেছি। সর্বশেষ জেলা পরিষদ নির্বাচনে আমাকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করে এলাকাবাসী তার প্রমাণ দিয়েছে। বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় কাউন্সিলে কৌশলে আমাকে হারিয়ে দিলেও নেতাকর্মীদের কাজ থেকে সরে যায়নি। নেত্রী মূল্যায়ন করে নৌকা উপহার দিলে বিজয় শতভাগ নিশ্চিত ইনশাল্লাহ।

প্রার্থী নির্ধারণের ব্যাপারে জানতে চাইলে সাংসদ (চকরিয়া-পেকুয়া) জাফর আলম বলেন, পেকুয়া উপজেলা আ’লীগ ও জেলা আ’লীগ নেতৃবৃন্দরা বৈঠক বসে করণীয় নির্ধারণ করবেন। এ ব্যাপারে আমার কোন হস্তক্ষেপ থাকবেনা। নেত্রী যাকেই নৌকার প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন দিবেন তাকে জিতিয়ে আনতে আমার সম্ভাব্য সবকিছু তার পক্ষে থাকবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •