সহপাঠীকে হত্যার পর রক্তপান!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
এক দশক আগে স্কুলে পড়ার সময় সহপাঠীকে হত্যা করে তার রক্ত পান করেছিলেন। শুধু তাই নয়, ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে চিকিৎসক হিসেবে হাসপাতালে চাকরিও নিয়েছিলেন তিনি। এভাবে প্রায় এক দশক অতিবাহিত করার পর ভুয়া এই চিকিৎসককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, ৩৬ বছর বয়সী এই ব্যক্তি রাশিয়ার চেলইয়াবিনক্সের ইউরালস শহরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসক হিসেবে কাজ করেছিলেন। গত বছরের নভেম্বরে চাকরি পেতে ভুয়া ডিগ্রি সার্টিফিকেট ব্যবহার করার অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

তারা বলছেন, ২০০০ সালে ‘বিশেষ গুরুতর অপরাধ’ করার দোষে বরিস কোন্ড্রাশিন নামের এই ব্যক্তিকে বাধ্যতামূলক মানসিক চিকিৎসা করানোর নির্দেশ দেয়া হয়। এর পরও তিনি চিকিৎসক হিসেবে কাজ করতে সক্ষম হন কীভাবে সেই নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

রুশ সংবাদমাধ্যম বলছে, ১৯৯৮ সালে কিশোর বয়সে তিনি ১৬ বছর বয়সী স্কুলের সহপাঠীকে হত্যার পর টুকরো টুকরো করেন। ধর্মীয় প্রথা মেনে বন্ধুকে মেরে, তার রক্ত পান করেছিলেন কোন্ড্রাশিন। দেশটির আঞ্চলিক সংবাদমাধ্যম জেডন্যাক বলছে, কোন্ড্রাশিন নিজেকে ভ্যাম্পায়ার মনে করতেন!

২০০০ সালের আগস্টে কোন্ড্রাশিনের হোমিসাইডাল স্কিজোফ্রেনিয়া ধরা পড়ার পরে তার মানসিক চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কোন্ড্রাশিন কী করছেন, কী ভাবছেন এসব বোঝার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছিলেন। প্রায় এক দশক পরে তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেয়া হয়।

শহরের স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান নাতালিয়া গার্লোভা জানান, মেডিক্যাল প্রতিরোধ বিভাগে চেলইয়াবিনক্স শহরের ১১ নাম্বার হাসপাতালের প্রাথমিক চিকিৎসক হিসেবে কোন্ড্রাশিনকে নিয়োগ করা হয়। এই হাসপাতালে তার কাজ ছিল মানুষকে মদ খাওয়া বা ধূমপান করার সমস্যা নিয়ে বোঝানো এবং ব্যায়ামের সুবিধা বিষয়ে তাদের উৎসাহিত করা।

রুশ সংবাদসংস্থা ইন্টারফ্যাক্স বলছে, কোন্ড্রাশিনকে জানুয়ারিতে আটক করা হয়েছিল। হাসপাতাল কোন্ড্রাশিনের ডিগ্রি সার্টিফিকেট পরীক্ষা করার পরই তাকে বরখাস্ত করে। একটি মেডিক্যাল আলোচনার ফোরামে শুক্রবার সাদা কোট পরে হাসিমুখে কোন্ড্রাশিনের ছবি পোস্ট করা হয়।

কোন্ড্রাশিনের বোনও একজন চিকিৎসক। তিনি বলেন, তিনি বা তার মা জানতেন না যে কোন্ড্রাশিন চাকরি পেয়েছেন। কোন্ড্রাশিন কেবল উচ্চ বিদ্যালয় পাস করেছিলেন। তিনি জানান, জনসাধারণকে বিপদে ফেলার আপাতত কোনও সম্ভাবনা নেই জেনেই তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে এখনও তাকে চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে রাখা উচিত ছিল।

সর্বশেষ সংবাদ

ঈদগাঁহে সড়ক দূর্ঘটনায় টানা তৃতীয় দিনে প্রাণ ঝরল শিশুর

রামু থানা পুলিশের হাতে ইয়াবাসহ আটক ১

চকরিয়ায় পুলিশের অভিযানে ডাকাতিসহ একাধিক মামলার ৬ পলাতক আসামী গ্রেপ্তার

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে পাকিস্তানের তাঁবেদার রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিল: শফিক মিয়া

চকরিয়া প্রেসক্লাবের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল

এতিমদের মুখের গ্রাস কেড়ে খেল চামড়া সিন্ডিকেট!

চিলাহাটিতে অন্বেষণের কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত

চকরিয়ায় সাবেক পৌর কাউন্সিলারের দুই বসতবাড়িতে দু’দফায় সশস্ত্র হামলা, আহত ৮

২০ আগস্ট বাংলাদেশ আসছেন ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর

জসিম উল্লাহ মিয়াজীর নামাজে জানাজায় শোকার্ত জনতার ঢল

ডেঙ্গু জ্বরে পেঁপে পাতা কতটা উপকারী?

বিনামূল্যে কম্পিউটার শিক্ষা, থাকছে ইংরেজি চর্চাও

চট্টগ্রাম নগরজুড়ে নিরাপত্তা জোরদার করেছে সিএমপি

অন্ধকারাচ্ছন্ন সমাজের আলো ও সফল নেতৃত্বের মডেল ছিলেন জিএম রহিমুল্লাহ

জসিম মিয়াজীর মৃত্যুতে আমেরিকা প্রবাসী রিয়েল স্টেট ব্যবসায়ী নুরুল আজিমের শোক

ঝিনুকমালা খেলাঘর আসরের জাতীয় শোকদিবস পালন

কচ্ছপিয়ার ডাকাত ‘মেম্বার সোনা’ ফের গ্রেপ্তার

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক মানের নেতা ছিলেন : কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়ন

পেকুয়ায় প্রধানমন্ত্রীর মৃত্যু কামনা করে মসজিদে দোয়া, থানায় এজাহার

বেগম খালেদা জিয়ার জন্মদিনে জেলা ছাত্রদলের দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত