ইমাম খাইর, সিবিএন:
দীর্ঘ চাকুরি জীবন শেষে অবসরে গেলেন কক্সবাজার হাশেমিয়া কামিল (মাস্টার্স) মাদরাসার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ।
৩১ জানুয়ারি উপাধ্যক্ষ মাওলানা এম আজিজুল হকের কাছে তিনি দায়িত্ব অর্পন করে আনুষ্ঠানিক অবসর গ্রহণ করেন। এসময় মাদরাসার পরিচালনা কমিটির সভাপতি আনোয়ার হাদি, সহসভাপতি সরওয়ার কামাল, সদস্য এডভোকেট জাফরুল্লাহ ইসলামাবাদি, অধ্যাপক হেলাল উদ্দিন, অধ্যাপক ছৈয়দ নুর, অধ্যাপক মাওলানা এনামুল হক, মাওলানা সেলিম উল্লাহ, অভিভাবক সদস্য মাওলানা মুজিবুল হক, প্রধান সহকারী কেফায়েত উল্লাহসহ শিক্ষককবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
১৯৯৮ সালের ১ আগষ্ট কক্সবাজার হাশেমিয়া কামিল (মাস্টার্স) মাদরাসার অধ্যক্ষ পদে যোগদান করেন মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ।
বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রায় ৪৪ বছর চাকুরি জীবন শেষে ৬০ বছর বয়সে অবসর নেন।
মাওলানা মুহিব্বুললাহর গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলার বডশালগড কান্দুগড। পিতার নাম মুন্সী জাফর আলী। মায়ের নাম বিলাতুন্নেসা।
তিন কন্যা ও দু ‘পুত্র সন্তানের মধ্যে তিন কন্যাই বিবাহিত।
প্রথম পুত্র মাসুদ সেনাবাহিনীর সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট পদে চাকরি করেন। দ্বিতীয় পুত্র আল-মাহমুদ ঢাকা ডেন্টাল কলেজে শেষ সেমিস্টারে অধ্যয়নরত।
মাসুদ ও মাহমুদ দুইজনই কক্সবাজার হাশেমিয়ার ছাত্র ছিলেন।
ছাত্র জীবনে প্রখর মেধাবী মুহিব্বুল্লাহ মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডে স্ট্যান্ড করেন।শিক্ষাজীবন শেষে কর্মজীবন আরম্ভ করেন।
১৯৭৪ সালের ১ জানুয়ারী থেকে ১৯৮৬ সালের ৩১ মে পর্যন্ত কুমিল্লা সোনাকান্দা আলীয়া মাদরাসায় মুহাদ্দিস পদে চাকুরী করেন।
১৯৮৬ সালের ২১ জুন থেকে ১৯৮৮ সালের ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত চাপাইনবাবগঞ্জ আলীয় মাদরাসা এবং ১৯৮৮ সালের ১৯ অক্টোবর থেকে ১৯৯৮ সালের ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত নোয়াখালী চাটখীল আলীয়া মাদরাসায় অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ।
সবশেষে ১৯৯৮ সালের ১ আগষ্ট থেকে ২০১৯ সালের ৩১ জানুয়ারী পর্যন্ত কক্সবাজার হাশেমিয়া কামিল মাদরাসায় অধ্যক্ষ পদে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন।
চাকুরী জীবনের সমাপনীতে মহান আল্লাহর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন অধ্যক্ষ মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ।
সেই সাথে মাদরাসা পরিচালনা পরিষদ, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারী, শুভানুধ্যায়ীসহ সবার কাছে দোয়া কামনা করেছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •