গত ৩০ জানুয়ারি স্থানীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত পৌর আওয়ামী লীগ কর্তৃক আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আমাকে নিয়ে অভিযোগ করা সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদে আমাকে জড়িয়ে যে সব বক্তব্য দেয়া হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন, উদ্দেশ্যমূলক, কল্পনাপ্রসূত ও ষড়যন্ত্রমূলক।

ওই সংবাদের ভাষ্যমতে, জাকির মোস্তফা হত্যা মামলায় আমি জাফর আলমকে আসামী করেছি। এটা একটা উদ্ভট কথা। কারণ জাকির মোস্তফা হত্যা মামলার বাদী তার ভাই এবং মামলাটি তদন্ত করেছেন পুলিশ। সেখানে স্বাভাবিক ভাবেই আমার কি সম্পৃক্ত থাকার সুযোগ আছে? একইভাবে নির্বাচনে কারচুপির মাধ্যমে আমি জাফর আলমের জয় কেড়ে নিয়েছি। এই বক্তব্যটা শুধু উদ্ভট নয়; হাস্যকরও বটে। কেননা আওয়ামী লীগ সরকারের নিয়ন্ত্রণে অনুষ্ঠিত এই নির্বাচনে কারচুপি করে আওয়ামী লীগ নেতা জাফর আলমের জয় কেড়ে নেয়া কি কোনোভাবেই সম্ভব? তাহলে আমরা ধরে নিবো আওয়ামী লীগ আমলে ভোট কারচুপির নির্বাচন হয়েছে?

অন্যদিকে জাফর আলমকে হত্যা পরিকল্পনার অভিযোগটিও বিভ্রান্তিকর। হত্যা বা হিংসাত্মক রাজনীতিতে আমি বিশ^াসী নই। আমি ভালোবাসার রাজনীতি করি। সুতরাং জাফর আলমকে হত্যা প্রচেষ্টার এই ভিত্তিহীন অভিযোগ ৭ নং ওয়ার্ডের পরিবেশকে অশান্তির দিকে ঠেলে দেয়ার ষড়যন্ত্র ছাড়া কিছুই নয়!

আসল ঘটনা হলো, আমি কক্সাবাজার পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের টানা তিনবারের নির্বাচিত কাউন্সিলর। এলাকায় আমার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। জনগণ আমাকে ভালোবাসে; আমিও জনগণকে ভালোবাসি। এতে ঈর্ষান্বিত হয়ে আমার বিরোধী পক্ষ আমাকে ফাঁসাতে নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। তারই অংশ হিসেবে সংবাদ সম্মেলন করে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ তোলা হয়েছে।

পরিশেষে আমি এই মিথ্যা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি এবং এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ করছি।’

প্রতিবাদকারী
আশরাফুল হুদা ছিদ্দিকী জামসেদ
কাউন্সিলর- ৭নং ওয়ার্ড, কক্সবাজার পৌরসভা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •