শাহীন শাহ, টেকনাফ:

উখিয়া-টেকনাফে অবস্থিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এনজিও গুলোতে চাকরিতে স্থানায়ীদের নিয়োগ ও বিভিন্ন দাবি দাওয়া আদায়ের জন্য বিক্ষোভ ও মানববন্ধন সহ নানা কমূসূচি অব্যাহত রেখেছে স্থানীয়রা, ছাটাইকৃত ও চাকরি বঞ্চাতরা । এরই প্রেক্ষিতে নানা এনজিও কর্তৃক গণহারে স্থানীয়দের চাকুরী হতে ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয়েছে। ২৬ জানুয়ারি শনিবার বিকাল ৩ টায় ‘আমরা হোয়াইক্যং বাসী’র ব্যানারে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশ টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং বাজারের প্রধান সড়কে অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় এক পথ সভা বক্তব্য রাখেন, কক্সবাজার জেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রধান শিক্ষক মোস্তফা কামাল চৌধুরী মুসা, আওয়ামী লীগ নেতা আলমগীর চৌধুরী , বাবুধন চাকমা মেম্বার, হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক আব্দু সালাম, রাজনীতিক খোরশেদ আলম, আবুল কাশেম সওদাগর, উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবের আহমদ, ইউনিয়ন শ্রমিকলীগের আহ্বায়ক আব্দুল খলিল চৌধুরী, হোয়াইক্যং উত্তর শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মাসুক শাহরিয়াদ সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান ওয়াসিম, দক্ষিণ শাখার সভাপতি জামাল উদ্দিন, হ্নীলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফরহাদ আলম, পালংখালী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জুনায়েদ প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে লাখ লাখ রোহিঙ্গা জেলার দুটি উপজেলা অর্থাৎ উখিয়া টেকনাফে এগারো লাখ রোহিঙ্গা বসবাস করছেন। তারা বসবাস করতে গিয়ে এলাকার বনভূমি, যোগাযোগ ব্যবস্থা, বাজার ঘাটসহ সার্বিক বিষয়ে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বর্তমানে এর মাশুল গুনতে হচ্ছে স্থানীয়দের। এর পরেও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত এনজিও সংস্থাগুলো উত্তরবঙ্গ বা অন্যান্য এলাকার লোকজনদের এনে চাকুরি সহ নানাবিধ সুবিধা প্রদান করে আসছে। যা স্থানীয়দের হতাশা বিরাজ ও মানসিকভাবে আহত করছে। পাশাপাশি কতিপয় স্থানীয়দের চাকুরী দিলেও বর্তমানে তাদের ছাঁটাই করে এনজিও কর্মকর্তাদের আতœীয় স্বজনদের নিয়োগ দিচ্ছে। বিক্ষোভকারী যোগ্যতা সম্পন্ন স্থানীয়দের এনজিও – আইএনজিওতে নিয়োগের দাবি জানান। অন্যথায় কর্মসূচি আব্যাহত রাখার হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন। পথ সভার শুরুতে কোর আন তিলাওয়াত করেন শরীফুল ইসলাম কাজল। এ সময় উপস্থিত থেকে সহযোগিতা করেন সায়েমুল হক, কাইয়ুম, রনি, মাহফুজ, করিম, হাশেম, মানিক , মিজান, সাইফুল, শাকের, জাহাঙ্গীর, হোছাইন, সৈয়দ আলম, আব্দুল্লাহ, দিল মোহাম্মদ, রিফাত, নয়ন, নাঈম, আব্দুল গণি, নুরুল আলম, সরওয়ার, মাইনুল, শাহেদ আক্তার, মোক্তার, বশর, আবছার কবির আকাশ, মুবিন, শিমুল।

উল্লেখ্য, চলতি মাসে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দায়িত্বরত এনজিও এবং আইএনজিও সমূহ স্বজনপ্রীতি, স্থানীয়দের ছাঁটাই সহ নানাবিধ অনিয়ম ও দূর্নীতির কারণে কক্সবাজার জেলার উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলায় বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন, পথ সভা ও প্রশাসন স্বারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।

ইতিমধ্যে জেলা প্রসাশক, এএসপি, আরআরআরসি, এনজিও সংস্থা ডিআরসি, হ্যান্ডিক্যাপ, টিডিএইচ, ফ্রেন্ডশীপ, রিক, মুসলিম এইড, কোস্ট, ডিএসকে, টিডিএইচ, কনর্সান, ব্র্যাক ও অক্সফার্ম সহ বিভিন্ন এনজিও সংস্থার অফিসে স্মারকলিপি/অনুলিপি দিয়েছেন আন্দোলনরত অধিকার বাস্তবায়ন কমিটি।

এ প্রসঙ্গে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোঃ কামাল হোসেন বলেছেন উখিয়া টেকনাফে যে সমস্ত যোগ্য ছেলে মেয়েরা আছে, তাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এনজিওগুলোতে নিয়োগ দেওয়ার জন্য বলা হবে। প্রয়োজনে তাদের যোগ্যতার দিক দিয়ে শিথিল করে নিয়োগ দেওয়া প্রয়োজন বলেও জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •