বিশেষ প্রতিবেদক:
মাত্র ১২০ দিনে পুরো ৩০ পারা কুরআন শরীফ মুখস্ত করলো এতিম শিশু আব্দুর রহীম। ৯ বছর বয়সের এই এতিম শিশুটি কক্সবাজার খানাকায়ে হামেদিয়া এতিমখানা ও হেফজখানার ছাত্র। তার পিতার নাম মরহুম নুরুল আজিম। গ্রাম টেকনাফের মধ্যম হ্নীলা। ২ ভাই ২ বোনের মধ্যে কোরআনের পাখি আব্দুর রহীম তৃতীয়।
শিশু হাফেজ আব্দুর রহিমের পিতা নুরুল আজিম চার বছর আগে সাগরপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার সময় বোটডুবির ঘটনায় মারা যায়। মা ফাতেমা বেগমের বিয়ে হয়ে অন্য ঘরে।
শিশু বয়সে পিতার চিরবিদায়, মা থেকেও নেই। অনেকটা কুলহীন হয়ে পড়ে আব্দুর রহীম। এমন অবস্থায় ছায়া হয়ে দাঁড়ায় দাদা ইউছুপ ও দাদী সারা খাতুন। তাদের তত্ত্বাবধানে বেড়ে। ভর্তি হয় কক্সবাজার সদর হাসপাতাল সড়ক সংলগ্ন খানেকায়ে হামেদিয়া এতিমখানা ও হেফজ খানায়।
শিক্ষক হাফেজ নাজমুল কামাল জানান, এতিম শিশু আব্দুর রহীম খুবই মেধাবী, নম্র ও ভদ্র ছেলে। এক বৈঠকেই পুরো তিরিশ পারা কুরআন শরীফ শুনিয়েছে। এতিমখানার পক্ষ থেকে যতটুকু সম্ভব তাকে সহযোগিতা করা হয়।
তিনি জানান, সঠিক পৃষ্ঠপোষকতা, অভিভাবকত্ব না পেলে মেধাবী ও এতিম শিশু আব্দুর রহিমের পড়া লেখা চালিয়ে যাওয়া অনিশ্চিত। অনিশ্চয়তায় পড়বে ভবিষ্যৎ জীবন।
এ প্রসঙ্গে এতিম খানার তত্ত্বাবধায়ক সাবেক ব্যাংকার সালাহ উদ্দিন আহমদ জানান, কক্সবাজার খানাকায়ে হামেদিয়া এতিমখানা ও হেফজ খানাটি
গারাঙ্গিয়ার মাওলানা মাহমুদুল হাসানের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়।
এতিম শিশু আব্দুর রহীমের পড়ালেখার বিষয়টি কর্তৃপক্ষের নজরে আছে। তবে কোন শিক্ষানুরাগী বিত্ত্ববান ব্যক্তি তার পড়ালেখার সহযোগিতায় এগিয়ে এলে তারা স্বাগত জানাবে।
হাফেজ আব্দুর রহীম ইসলামের একজন দাঈ বা খ্যাতনামা আলেম হতে চায়। তার ভবিষ্যৎ পড়া লেখার জন্য বিত্তবান ও শিক্ষানুরাগীদের সহযোগিতা কামনা করেছে এতিমখানা কর্তৃপক্ষ।

প্রয়োজনে যোগাযোগ…
সালাহ উদ্দিন আহমদ
সাবেক ব্যাংকার, এতিমখানা তত্ত্বাবধায়ক
০১৭১৮ ২১০ ৯৭১

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •