সংবাদ বিজ্ঞপ্তিঃ
কক্সবাজার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে আবাসন সমস্যার সমাধান চেয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার নিকট খোলা চিঠি লিখেছেন কক্সবাজার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাজিবুল হক রাজু।
নিজের ফেইসবুক ওয়ালে প্রকাশিত খোলা চিঠিটি পাঠকদের জন্যে হুবহু তুলে ধরা হলো…..

বরাবর,
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
জননেত্রী শেখ হাসিনা
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার।
বড় দুঃখের সাথে কিছু কথা আপনাকে বলা..!!
আমাদের মনের আকুতি আপনি ছাড়া কেউ বূঝেনা।
সাধারন ছাত্রছাত্রীদের পক্ষে আমি রাজিবুল হক রাজু সাধারন সম্পাদক,
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ
কক্সবাজার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট শাখা।
আমি মনে করি, ছাত্ররাজনীতি মানে সাধারণ ছাত্র ছাত্রীদের বিপদে আপদে তাদের পাশে থাকা তাদের অধিকার আদায়ের জন্য কাজ করা।
সমুদ্রকন্যা বিশ্বের হাজার ও পর্যটকের শান্তির ঠিকানা কক্সবাজার। তারমধ্যে কক্সবাজার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট কক্সবাজারে কারিগরি শিক্ষার সবচেয়ে বড় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। যেই প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতিবছর হাজার হাজার শিক্ষার্থী বিভিন্ন বিষয়ের উপর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার হয়ে বের হয়ে আগামীর বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়ায় অংশ নিচ্ছে। প্রতিবছর বাংলাদেশের ৬৪ টি জেলা থেকে শত শত শিক্ষার্থী মেধার ভিত্তিতে চান্স প্রাপ্ত হয়ে এসে এই পলিটেকনিকে পড়ালেখা করছে। আমার জানা মতে, কক্সবাজার পলিটেকনিকের শিক্ষার্থী সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ৭ হাজার। এদের মধ্যে প্রায় ৫ হাজার শিক্ষার্থী কক্সবাজার জেলার বাইরের। তাদের বাড়ি কক্সবাজার জেলার বাইরে হওয়ায় তারা এখানে বিভিন্ন জায়গায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকে। বাসা ভাড়া নিয়ে বাইরে থাকার কারনে তারা সবাই মা বাবার নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে আসে। কারন একটা ছেলের বাড়ি যদি উত্তরবঙ্গে হয় সে যদি পড়ালেখা করার জন্য কক্সবাজার চলে আসে তাহলে সে তার মা বাবার কাছ থেকে অনেক দূরে চলে আসে তার সন্তানটি কি করছে ঠিক মত পড়ালেখা করছে কিনা তার মা বাবা খবর রাখতে পারেনা। যার ফলে সন্তানটি বিভিন্ন ধরনের নেশার সাথে জড়িয়ে পড়ে আর মেয়েটি বিভিন্ন ভাবে নির্যাতনের শিকার হয় এবং শিক্ষার পরিবেশটা অনেকাংশে বিনষ্ট হওয়ার পথে…..।
তাই আমি মনে করি, বাংলাদেশের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে দক্ষ ডিপ্লোমা ইন্জিনিয়ার গড়ে তুলার জন্য কক্সবাজার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে একটি ছাত্রদের হোস্টেল এবং আরেকটি ছাত্রীদের হোস্টেল করা দরকার। তাছাড়া কক্সবাজার পলিটেকনিক এর ছাত্রছাত্রীর সংখ্যার তুলনাই কক্সবাজার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ভবনটি অনেক ছোট। যার ফলে এত ছোট ভবনে ৭ হাজার শিক্ষার্থীর শিক্ষার পরিবেশ ভালভাবে তৈরি হয়ে উঠেনা তাই আরও একটি নতুন ভবন দরকার।
উন্নয়নের এই গনজোয়ারে কক্সবাজারে কারিগরি শিক্ষার পরিবেশকে আরও গতিশীল করার জন্য উক্ত দাবিগুলো আপনি পূরন করবেন বলে আমি আশা রাখি।
অবশ্য এই ব্যাপারে আমি স্থানীয় সংসদ সদস্য, ডিসি, শিক্ষা অফিসার এবং অধ্যক্ষ মহোদয় এর সাথে অনেকবার আলোচনা করেছি কিন্তু তারা বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা দেখানোর কারনে কোন ফলপ্রসু হয়নি।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, কক্সবাজার পলিটেকনিক ইনস্টিউটের ছাত্র-ছাত্রীদের আবাসন সমস্যা সমাধানের জন্য আপনার সহযোগীতা আমার একান্ত প্রয়োজন। আপনার সহযোগিতা পেলে কক্সবাজার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ছাত্র-ছাত্রীরা পড়া-লেখা শেষ করে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে বাংলাদেশকে সারা বিশ্বের কাছে একটি সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে অনেক বেশী ভূমিকা রাখবে ইনশাআল্লাহ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •